করোনার নমুনা পরীক্ষা : অন্যের ওপর নির্ভর করতে হবে সিভাসু ও চমেককে

শনিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২০

চট্টগ্রাম অফিস : স্বাস্থ্য প্রশাসনের অনুমতি লাভের পর গতকাল শুক্রবার থেকে চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি এন্ড অ্যানিম্যাল সাইন্সেস ইউনিভার্সিটিতে (সিভাসু) করোনার নমুনা পরীক্ষার ট্রায়াল শুরু হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ২টি স্যাম্পল দিয়ে বিশ^বিদ্যালয়টিতে পরীক্ষা শুরু হয়েছে। ফৌজদারহাটের বাংলাদেশ ইরস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল এন্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) পরীক্ষার জন্য সিভাসুকে ৪৮০টি কিট দিয়েছে। এই বিশ^বিদ্যালয়ে ৫টি পিসিআর মেশিন আছে। তবে সিভাসু শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন হওয়ায় তাদের বিআইটিআইডির ওপর নির্ভরশীল থাকতে হবে। এদিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের ল্যাবটি করোনার নমুনা পরীক্ষার জন্য ব্যবহারের সিদ্ধান্ত হলেও যন্ত্রপাতি সংযোজনের কাজ সম্পাদন শেষে সেটিতে কাজ শুরু হতে এখনো সপ্তাহখানেক বাকি। চমেককে কিট আনতে হবে ঢাকা থেকে। এ অবস্থায় সিভাসু ও চমেক কর্তৃপক্ষকে করোনার নমুনা পরীক্ষার জন্য পরের ওপরই নির্ভরশীল থাকতে হবে। এ ল্যাব ২টিতে কাজ শুরু হলে চট্টগ্রামে দৈনিক ৪০০-৫০০টি নমুনা পরীক্ষা করা যাবে। তবে পর্যাপ্ত জনবল থাকলে বিআইটিআইডি, সিভাসু ও চমেকের ল্যাবে কমপক্ষে ৭০০/৮০০টি করোনার নমুনা পরীক্ষা করা যাবে বলে মনে করেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হুমায়ুন কবীর।

তিনি ভোরের কাগজকে বলেন, আমাদের ল্যাবে এখনো যন্ত্রপাতি স্থাপনের কাজ চলছে। গণপূর্ত বিভাগীয় প্রকৌশলীরা স্থাপনের কাজ করছেন। কাজ শেষ হতে সপ্তাহখানেক সময় লাগতে পারে। তবে পর্যাপ্ত জনবলের অভাব রয়েছে। চাহিদা অনুযায়ী এখানে আরো টেকনিশিয়ান প্রয়োজন।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj