প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত প্রণোদনা হতে বরাদ্দ চায় বিজিএপিএমইএ

শনিবার, ২৮ মার্চ ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : রপ্তানি খাতের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত পাঁচ হাজার কোটি টাকা প্রণোদনা হতে বরাদ্দ চায় বাংলাদেশ গার্মেন্টস এক্সেসরিজ অ্যান্ড প্যাকেজিং ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশন (বিজিএপিএমইএ)। গত বৃহস্পতিবার বিজিএপিএমইএ সভাপতি মো. আব্দুল কাদের খান স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ রবাদ্দ চাওয়া হয়।

এতে বলা হয়, দেশের যে কোনো সংকটকালীন মুহূর্তে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার দূরদর্শী চিন্তা দিয়ে অতি সহজে একটি সমাধান বের করেন এবং জাতিকে সঠিক দিক নির্দেশনা দেন। বৈশ্বিক করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্ব অর্থনীতির সঙ্গে বাংলাদেশের অর্থনীতিও সমস্যার সম্মুখীন। বিশেষ করে রপ্তানিমুখী পোশাক শিল্পসহ অন্যান্য শিল্পখাত নানাবিধ চ্যালেঞ্জে পড়েছে।

কারণ বিদেশি ক্রেতারা প্রতিনিয়ত ক্রয় আদেশ বাতিলসহ স্থগিত করে চলেছে। ফলে শিল্পকারখানা চালু রাখা ও শ্রমিক কর্মচারীদের বেতনভাতা প্রদান অত্যন্ত কঠিন হয়ে পড়েছে। ঠিক সে মুহূর্তে প্রধানমন্ত্রী দূরদর্শী দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে রপ্তানিমুখী শিল্পের মালিকরা যাতে শ্রমিক কর্মচারীদের বেতনভাতা প্রদান করতে পারেন সেজন্য ৫ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন।

বিজিএপিএমইএ ১ হাজার ৭০০-এর অধিক গার্মেন্টস এক্সেসরিজ ও প্যাকেজিং পণ্যের শতভাগ রপ্তানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠানসমূহের একটি বাণিজ্যিক সংগঠন। যা বাংলাদেশের পোশাক শিল্পের ৯৫ ভাগ এক্সেসরিজ পণ্য স্থানীয়ভাবে সরবরাহ করে থাকে। এছাড়াও ওষুধ, ক্রোকারিজ, হিমায়িত খাদ্য, সিরামিক, চামড়া ইত্যাদি রপ্তানি খাতের সব ধরনের মোড়কজাত পণ্যের চাহিদা পূরণ করে থাকে। এতে আরো বলা হয়, প্রধানমন্ত্রীর এ উদ্যোগকে আমরা স্বাগত জানাই এবং তার নির্দেশনায় কাজ করে উন্নত সোনার বাংলা গড়তে চাই। সঙ্গে সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিজিএপিএমইএ-এর বিনীত অনুরোধ, যাতে করে ঘোষিত প্রণোদনা হতে বরাদ্দ পেয়ে এ সেক্টরের সব শ্রমিক, কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের বেতন ভাতাদি প্রদান করে উৎপাদন অব্যাহত রাখতে পারি।

প্রসঙ্গত, গত বুধবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে রপ্তানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা পরিশোধে ৫ হাজার কোটি টাকার বিশেষ তহবিল গঠনের ঘোষণা দেন।

অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj