আতঙ্কে সেরেনা

মঙ্গলবার, ২৪ মার্চ ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : চীনের উহান শহর থেকে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে বিশ^ব্যাপী আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। সারা বিশ^ এখন কাঁপছে এ ভাইরাসের আতঙ্কে। তেমনি করোনা আতঙ্কে ভুগছেন টেনিস তারকা সেরেনা উইলিয়ামস। তিনি ২ বছরের শিশু অলিম্পিয়াকে নিয়ে রীতিমতো শঙ্কিত সময় কাটাচ্ছেন। এমনকি আশপাশে কেউ হাঁচি-কাশি দিলেই তিনি ভয় পেয়ে যান সেরেনা।

করোনা ভাইরাস সতর্কতায় আগেই বন্ধ হয়ে গেছে সব খেলা। নিজেদের বাড়িতে রীতিমতো বন্দি জীবনযাপন করছেন তারকা খেলোয়াড়রা। কিন্তু করোনা আতঙ্ক যেন পিছু ছাড়ছে না তাদের। টেনিস তারকা সেরেনাও স্বেচ্ছাবন্দি রেখেছেন নিজেকে। সঙ্গে আছেন তার দুই বছরের কন্যা সন্তান। মূল শঙ্কাটা বাচ্চাটাকে নিয়েই। মায়ের মন তো! চারদিকে এত মৃত্যু, এত সংক্রমণ, সেরেনা বাচ্চা নিয়ে ঠিক থাকেন কীভাবে?

গত রবিবার সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে একটা ভিডিও পোস্ট করেছেন সেরেনা। সেখানে তিনি নিজের শঙ্কার কথা জানিয়েছেন, ‘দুই সপ্তাহ হলো ঘরে বসে আছি। সঙ্গে আমার মেয়ে অলিম্পিয়া। কিন্তু মন থেকে শঙ্কা কিছুতেই দূর করতে পারছি না। বারবার মনে হচ্ছে, আমার বাচ্চাটা অসুস্থ হয়ে পড়বে না তো! বাচ্চাটার মধ্যে কোনো সংক্রমণ হলো না তো!’

কেউ হাঁচি-কাশি দিলেই এখন ভয় লাগে এমন কথাও জানালেন ২৩টি গ্র্যান্ড ¯øাম জয়ী টেনিস তারকা সেরেনা। তিনি বলেন, ‘আমি নিয়ম মেনে চলছি। কিন্তু আমার সামনে যদি কেউ হাঁচি বা কাশি দিয়ে ফেলে, তাহলেই ভয় লাগে। আতঙ্ক বোধ করছি রীতিমতো। বাচ্চাকে নিয়ে কোথাও যাচ্ছি না। এমনকি ছোট্ট অলিম্পিয়া হাঁচি-কাশি দিলেও ওর দিকে বাঁকা চোখে তাকাচ্ছি। সে বুঝতে পারছে, মা রেগে যাচ্ছে, তখন খুব খারাপ লাগে।

কিন্তু এভাবে কত দিন চলবে, সেটা বুঝতে পারছে না সেরেনা। করোনার কারণে খেলা বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর কিছুটা খুশিই হয়েছিলেন সেটা সরল মনে স্বীকারও করেছেন এই টেনিস তারকা। সেরেনা বলেন, ‘প্রথমে যখন ইন্ডিয়ান ওয়েলস প্রতিযোগিতা বাতিল হয়ে গেল, তখন অস্বীকার করব না, মনে মনে একটু খুশিই হয়েছিলাম। ভেবেছিলাম এখন কিছুটা বিশ্রাম পাওয়া গেল। করোনা ভাইরাস খুব গুরুতর কিছু হবে না এমনটাই ভেবেছিলাম। কিন্তু আমার সব ভাবনা ভুল প্রমাণিত হয়েছে। এখন একঘেয়ে লাগছে। আবার কবে সবকিছু স্বাভাবিক হবে জানি না। সত্যিই ভয় পাচ্ছি।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj