উৎপাদনশীল কর্মকাণ্ডে নারীর অংশগ্রহণ হবে ৫০ শতাংশ

শুক্রবার, ৬ মার্চ ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেছেন, ২০৩০ সাল নাগাদ উৎপাদনশীল কর্মকাণ্ডে নারীর অংশগ্রহণ শতকরা ৫০ ভাগে উন্নীত করার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে সরকার কাজ করছে। এটি অর্জনে শিল্প মন্ত্রণালয় এসএমই খাতকে মূল চালিকাশক্তি হিসেবে গ্রহণ করেছে। এসএমই খাতে অল্প পুঁজিতে শিল্প স্থাপনের সুযোগ বেশি বিধায় নারীরা এ খাতে বেশি পরিমাণে অন্তর্ভুক্ত হচ্ছেন। ফলে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে নারীর অংশগ্রহণ বাড়ছে এবং তাদের জন্য নতুন নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে।

আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ ব্যাংক আয়োজিত ব্যাংকার-নারী উদ্যোক্তা সমাবেশ ও পণ্য প্রদর্শনী-২০২০ এর উদ্বোধনকালে শিল্পমন্ত্রী এ কথা বলেন। রাজধানীর মিরপুরে বাংলাদেশ ব্যাংক ট্রেনিং একাডেমির এ কে এন আহমেদ মিলনায়তনে আজ এ অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য ও সিনিয়র সচিব ড. শামসুল আলম, বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এস এম মনিরুজ্জামান, এসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ লিমিটেডের চেয়ারম্যান আলী রেজা ইফতেখার, বাংলাদেশ লিজিং এন্ড ফাইন্যান্সিয়াল কোম্পানিস এসোসিয়েশন চেয়ারম্যান মোমিনুল ইসলাম, বাংলাদেশ ব্যাংকের এসএমই অ্যান্ড স্পেশাল প্রোগ্রামস্ ডিপার্টমেন্টের মহাব্যবস্থাপক লীলা রশিদ বক্তব্য রাখেন।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে নারী অংশগ্রহণ বাড়াতে বর্তমান সরকার জাতীয় এসএমই নীতিমালা-২০১৯ প্রণয়ন করেছে। এ নীতিমালার বাস্তবায়নে গৃহীত ১১টি কৌশলের মধ্যে ৮নং কৌশলে সুনির্দিষ্টভাবে নারী উদ্যোক্তাদের উন্নয়নভিত্তিক কর্মসূচির প্রসার ও বিশেষায়িত সেবা প্রদানের নির্দেশনা রয়েছে। এর আলোকে নারী উদ্যোক্তাদের ব্যবসা শুরু ও ব্যবসা পরিচালনায় অর্থায়ন, শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের সুযোগ সৃষ্টি, ব্যবসা সম্পর্কিত তথ্য সহজলভ্যকরণ, ঋণ প্রবাহ বৃদ্ধির উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। পাশাপাশি নারী উদ্যোক্তাদের জন্য উন্নয়ন তহবিল গঠন, উইম্যান চেম্বার ও ট্রেড বডির প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং বাজার সংযোগ সৃষ্টির মাধ্যমে উৎপাদিত পণ্য বিপণনের সুযোগ জোরদার করা হচ্ছে। শিল্পমন্ত্রী আরো বলেন, এসএমই খাতের উদ্যোক্তাদের উৎপাদিত পণ্য বেচাকেনায় বিদ্যমান সমস্যা মোকাবিলায় শিল্প মন্ত্রণালয় রাজধানীর পূর্বাচলে একটি স্থায়ী ‘সেলস্ এন্ড ডিসপ্লে সেন্টার’ স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। এসএমই ফাউন্ডেশন এটি স্থাপন করবে। এ ছাড়া বিসিক শিল্পনগরীতে ১০ শতাংশ শিল্পপ্লট নারী উদ্যোক্তাদের মধ্যে বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে। সিঙ্গেল ডিজিট সুদে ঋণ প্রদানের বিষয়টি ইতোমধ্যে কার্যকর হতে শুরু করেছে। এর ফলে নারী উদ্যোক্তারা আর পুঁজির অভাবে শিল্প স্থাপনে বিমুখ হবেন না বলে তিনি মন্তব্য করেন।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট (বিআইবিএম) প্রাঙ্গণে চার দিনব্যাপী এ মেলা আয়োজন করা হয়। এতে দেশের বিভিন্ন এলাকা আগত এসএমই নারী উদ্যোক্তারা তাদের উৎপাদিত পণ্য প্রদর্শন করছেন। মেলা প্রতিদিন সকাল ১০:০০টা থেকে রাত ৮:০০টা পর্যন্ত সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj