চাকরি স্থায়ী করার দাবিতে ন্যাশনাল লাইফ ঘেরাও

শুক্রবার, ৬ মার্চ ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : চাকরি স্থায়ী করার দাবিতে ন্যাশনাল লাইফ ইন্সুরেন্সের প্রধান কার্যালয় ঘেরাও করেছে দেশের বিভিন্ন স্থানে কর্মরত প্রতিষ্ঠানটির শতাধিক অস্থায়ী কর্মী। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর কারওয়ানবাজারে অবস্থিত কোম্পানিটির প্রধান কার্যালয় ঘেরাও করেন। এসময় তারা চাকরি স্থায়ীকরণসহ বিভিন্ন দাবি তুলে ধরেন কর্তৃপক্ষের কাছে। পরে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ চাকরি স্থায়ী করার আশ্বাস দিলে আন্দোলন স্থগিত করে বাড়ি ফেরেন কর্মীরা।

আন্দোলনরত কর্মীরা জানান, ন্যাশনাল লাইফে প্রায় দেড় হাজার ক্যাজুয়াল স্টাফ আছেন। যাদের অনেকের চাকরির বয়স ১৫-২০ বছর, কিন্তু এখনো তাদের চাকরি স্থায়ী হয়নি। এমনকি বেতন-ভাতাও তেমন বাড়েনি। কিন্তু সময়ে সাথে তাল মিলিয়ে বড় হয়েছে পরিবার। বেড়েছে সংসারের খরচ, জীবন যাত্রার ব্যয়ভার। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির এই বাজারে তারা হতাশার সাগরে হাতড়িয়ে বেড়াচ্ছেন। অথচ চাকরির বয়স ১০ বছর হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে তা স্থায়ীকরণের কথা ছিল।

আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী গাজীপুরের আনোয়ার হোসেন ইন্স্যুরেন্সনিউজবিডি’কে বলেন, চাকরি স্থায়ীকরণ ও বেতন-ভাতা বৃদ্ধির আশায় অনেক কষ্টে পড়ালেখা করেছি। দুই বছর হলো মাস্টার্স পাসের সনদ জমা দিয়েছি কোম্পানিতে। কিন্তু এখনো চাকরি স্থায়ী হচ্ছে না, আবার বেতন-ভাতাও বাড়ছে না। তিনি বলেন, গত বছরের ৫ ডিসেম্বর আমরা প্রধান কার্যালয় এসেছিলাম। সে সময় জানুয়ারির মধ্যে আমাদের চাকরি স্থায়ী করার আশ্বাস দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এখনো চাকরি স্থায়ী করা হয়নি।

আনোয়ার হোসেন বলেন, আবারো যখন আমরা আন্দোলনে নেমেছি তখনও আশ্বাসের ওপর ভিত্তি করে আন্দোলন স্থগিত করা হলো। কোম্পানি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, আগামী রবিবার থেকে আমাদের চাকরি স্থায়ী করার চিঠি ইস্যু করা হবে। এরইমধ্যে সব ধরণের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে চাকরি স্থায়ী করা হবে বলে জানিয়েছে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ। তবে সবার চাকরি স্থায়ী করা হবে কিনা এবং কাদেরকে আগে স্থায়ী করা হবে সে বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি।

অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj