কাদের-ফখরুল বিতর্ক : ফের জামিন আবেদন, উন্নত চিকিৎসার জন্য লন্ডন যেতে চান খালেদা

বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : ফের বিতর্কে দুই মেরুর দুই নেতা। কারাবন্দি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তির বিষয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে ফোনালাপ নাকচ করে দিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। মির্জা ফখরুলের এমন বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করে ‘কল রেকর্ড’ রয়েছে বলে জানিয়েছেন ওবায়দুল কাদের। ‘প্রয়োজনে প্রমাণ দিতে পারি, কিন্তু আমি তাকে ছোট করতে চাই না’- এমন মন্তব্য আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের। অন্যদিকে দুই নেতার এই বিতর্কের মধ্যেই জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ফের জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেছেন বিএনপি নেত্রীর আইনজীবীরা। জামিন পেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য লন্ডন যেতে চান তিনি।

এদিকে রাজনৈতিক অঙ্গনের বিপরীত মেরুর দুই ডাকসাইডে নেতার ফের বাহাসে আলোচনা-সমালোচনা ও চুলচেরা বিশ্লেষণ চলছে। গত শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত খালেদা জিয়ার মুক্তির আরজি প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌঁছে দিতে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের টেলিফোন করার কথা জানান ওবায়দুল কাদের। এরপর থেকেই দুই নেতার টেলিফোন হয়ে ওঠে ‘টক অব দ্য পলিটিক্স’। ‘কী কথা তাহার সাথে’- জানতে উদ্গ্রীব রাজনৈতিক অঙ্গন থেকে সাধারণ মানুষ। দুই নেতার ফোনালাপে কী ছিল, কোনো সমঝোতা হয়েছে কিনা- এটিই এখন মুখ্য আলোচনা।

অন্যদিকে সরকারের নীতিনির্ধারকদের মতে, খালেদা জিয়া প্যারোল নিলে সরকারের কাছে বিএনপির নতজানু হওয়া প্রমাণিত হবে। বিএনপি নেত্রীর ভবিষ্যৎ শারীরিক অবস্থার দায় সরকারের ঘাড়ে চাপবে না। আর বিএনপি নেতারা মনে করেন, ফোনালাপ অস্বীকার করায় মির্জা ফখরুলের রাজনৈতিক দূরদর্শিতা ও বিচক্ষণতা প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। এর আগেও তিনি বহুবার দলকে বিতর্কিত করেছেন এবং নিজেকে ছোট করেছেন। তিনি বিষয়টি অত্যন্ত সহজভাবেই স্বীকার করতে পারতেন। বিষয়বস্তু না বলতে পারতেন। এখন নিজেও বিব্রত হয়েছেন, আমাদেরও বিব্রত করেছেন। নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক ও ঐক্যফ্রন্টের নেতা মাহমুদুর রহমান মান্না মির্জা ফখরুলের ফোন করার সমালোচনা করে বলেন, সত্যিই কী আপনারা খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা চান এবং নিঃশর্ত মুক্তি চান? তাহলে ফোন করলেন কেন? কী কথা হয়েছে ফোনে?

অবশ্য ফোনালাপে খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তির বিষয়ে আলোচনার বিষয় অস্বীকার করে গতকাল মঙ্গলবার বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আবারো বলেন, আমি আপনাদের পরিষ্কার করে শুক্রবারও বলেছি প্যারোল নিয়ে আপনারা ওবায়দুল কাদেরকে জিজ্ঞাসা করুন। এটা নিয়ে এখন কথা বলাটা কতটুকু সঠিক হয়েছে উনি বিবেচনা করবেন। আমাদের দল থেকে আজ পর্যন্ত আমরা প্যারোল নিয়ে কোনো কথা বলিনি। প্যারোলের জন্য আবেদন সম্পূর্ণভাবে ম্যাডামের ব্যাপার ও ম্যাডামের পরিবারের ব্যাপার।

এদিকে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ‘কল রেকর্ড’ রয়েছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রমাণ চাইলে প্রমাণ দেব। মিথ্যা কথা কেন বলব? মির্জা ফখরুল আমাকে ফোন করে অনুরোধ করেছেন খালেদা জিয়ার মুক্তির ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে একটু কথা বলার জন্য। এখন তিনি ঈ প্রমাণ করতে চান যে তিনি আমাকে অনুরোধ করেননি? তাহলে কিন্তু প্রমাণ দেব। কারণ টেলিফোনে যে সংলাপ সেটি তো আর গোপন থাকবে না। এটা বের করা যাবে। ফোনে কথা বললে এটা কী গোপন রাখা যাবে? এটার রেকর্ড আছে না? আমি আর নিচে যেতে চাই না। উনি নিজেকে কেন নিচে নিয়ে যাচ্ছেন?

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় ফের জামিনের আবেদন : জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ফের জামিন চেয়ে গতকাল আবার হাইকোর্টে আবেদন করেছেন বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। তার শারীরিক অসুস্থতার বিষয়টি উল্লেখ করে এই জামিন আবেদন করা হয়েছে। বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হকের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে এই আবেদনের ওপর শুনানি হতে পারে।

জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের আহ্বায়ক ও সিনিয়র আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, জামিন আবেদনে খালেদা জিয়া গুরুতর অসুস্থতার বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে। চিকিৎসকরাই বলেছেন, তার অ্যাডভান্স চিকিৎসা প্রয়োজন। তিনি পঙ্গুত্বের দিকে চলে যাচ্ছেন। পিজি হাসপাতালে তো তিনি বহু দিন ধরে চিকিৎসা নিচ্ছেন। কিন্তু তার কোনো উন্নতি হচ্ছে না। বরং অসুস্থতা আরো বেড়ে গেছে। এমন কিছু ওষুধ ও ইনজেকশনের কথা বলা হচ্ছে যেগুলো দেশে সম্ভব হচ্ছে না। তাই তার ইচ্ছামতো দেশি-বিদেশি হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য জামিন আবেদন করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ৩৭টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে জিয়া অরফানেজ এবং চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় তার জামিন নেই। বাকি ৩৫টি মামলায় তিনি জামিনে রয়েছেন। দুই বছরের বেশি সময় ধরে কারাবন্দি খালেদা জিয়া। এর মধ্যে গত বছর এপ্রিল থেকে আছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে। দলীয় সূত্র জানিয়েছে, জামিন পেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য লন্ডন যেতে চান বিএনপিপ্রধান।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj