শৈশব ‘চুরি’ রোধে কেজি স্কুল বন্ধ

বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯

কাগজ ডেস্ক : শুরুরও যেমন একটা শুরু থাকে, প্রাথমিকের আগে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা ঠিক তেমনই; যেমন, প্রি-প্রাইমারি, নার্সারি, মন্তেসরি, কিন্ডার গার্টেন ইত্যাদি। কিন্তু শিক্ষা শুরুর এই শুরুটাই বন্ধ করে দিচ্ছে হরিয়ানা সরকার। তারা ঘোষণা দিয়ে বলছে, সব কেজি স্কুল বন্ধ হবে। কেননা, এর ফলে ‘চুরি’ হয়ে যাচ্ছে শিশুদের মহামূল্যবান শৈশব! ভীষণ ক্ষতি হচ্ছে শিশুদের। ঠিক করা হয়েছে, বাচ্চারা ভর্তি হবে সরাসরি প্রথম শ্রেণিতে। তবে খেলাধুলার মাধ্যমে কিছু শেখার জন্য প্লে-স্কুল রাখা যেতে পারে।

এই সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছেন অনেকেই। কোথাও আবার তা তুমুল সমালোচনার মুখেও পড়েছে। শিক্ষাবিদরা এতে সমর্থন দিলেও কিছু শর্তও জুড়ে দিচ্ছেন। যেমন ছোটদের সাধারণভাবে বেড়ে ওঠার সুযোগ দেয়া উচিত। তবে সে ক্ষেত্রে প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থাকে আরো শক্তিশালী করতে হবে। এমন বন্দোবস্ত করতে হবে যাতে, প্রাথমিক স্কুলগুলোতেই খেলাধুলা এবং লেখাপড়ার মধ্যে সমন্বয় সাধন হতে পারে। তারা বলেন, আমাদের সময়ে তো ৫ বছর বয়স হওয়ার আগে হাতেখড়ি দেয়া হত না। কিন্তু এখনকার অভিভাবকদের মত যেন, মায়ের পেট থেকেই শিক্ষাগ্রহণ শুরু করুক শিশুরা। আমরা মনে করি, আগেকার শিক্ষা ব্যবস্থার মধ্যে কোনো ভুল ছিল না। যদিও হরিয়ানার এই সিদ্ধান্তকে কার্যত কাণ্ডজ্ঞানহীন বলে মনে করছেন রাজ্যের স্কুল সিলেবাস কমিটির চেয়ারম্যান তথা যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক অভীক মজুমদার। তিনি বলেন, রাইট টু এডুকেশন অ্যাক্ট-২০০৯ না মেনে হরিয়ানা সরকার কীভাবে এটা করল! পৃথিবীর সমস্ত শিক্ষাবিদ প্রি-প্রাইমারি এবং নার্সারি শিক্ষার কথা বলছেন। অথচ এরা কী ভাবছে!

অভিভাবকরা বলছেন, ছোট শিশুদের মুক্তভাবে বেড়ে ওঠার সুযোগ দেয়া উচিত। স্কুলে যদি সেই পরিবেশ থাকে এবং খোলামেলা পরিবেশে খেলাধুলার মাধ্যমে ওরা শিখতে থাকে, তা হলে তো খারাপ নয়। কিন্তু অতিরিক্ত পড়াশুনার চাপ এবং স্কুলের জন্য যাতে অধিকাংশ সময় ফুরিয়ে না যায়, সেটাও মাথায় রাখা দরকার। আরেকজন অভিভাবক বলেন, শিশুদের শৈশব কেড়ে নেয়া হচ্ছে বলে যে অভিযোগ রয়েছে, সেটাও অংশত সত্য। শিক্ষা ব্যবস্থা প্রতিযোগিতামূলক হয়ে পড়ছে। আগে সরকার এটা সুনিশ্চিত করুক যে, কোনো শিশুই শিক্ষার অধিকার থেকে বঞ্চিত হবে না এবং বাড়ির এক কিলোমিটারের মধ্যে স্কুলে ভর্তির সুযোগ পাবে। তাহলে এ ব্যবস্থাকে সমর্থন করতে পারি।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj