মোবাইল ব্যাংকিংয়ে আড়াই কোটি টাকার কর পরিশোধ

মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : করদাতাদের সুবিধার্থে এবার করমেলায় মোবাইল ব্যাংকিং সুবিধা চালু করা হয়েছে। মোবাইল ফোন ব্যবহার করে করদাতারা রকেট, ইউ পে, বিকাশ, শিওর ক্যাশ এর মাধ্যমে কর পরিশোধ করতে পারছেন। মেলার প্রথম পাঁচদিনে ৩ হাজার ৫শ’ জন করদাতারা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে প্রায় আড়াই কোটি টাকার কর পরিশোধ করেছেন।

এ বিষয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সদস্য কানন কুমার রায় বলেন, বাড়তি সময় ও অর্থ ব্যয় না করে দিনে-রাতে যেকোন সময় করদাতারা যেন কর পরিশোধ করতে পারেন সেজন্য মেলায় মোবাইল ব্যাংকিং সেবা চালু করা হয়েছে। ইতোমধ্যে সেবাটি বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। মোবাইল ব্যবহার করে করদাতারা মাত্র কয়েক মিনিটের ব্যবধানে কর পরিশোধ করতে পারছেন।

এদিকে উৎসবমুখর পরিবেশে করদাতারা আয়কর মেলায় কর প্রদান ও সেবাগ্রহণ করছেন। ঢাকায় অফিসার্স ক্লাব প্রাঙ্গণে মেলার ৫ম দিন গতকাল সোমবারও করদাতাদের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। মেলায় তরুণ ও নারী করদাতাদের উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়। আগের বছরের তুলনায় এবার মেলায় সেবা গ্রহণকারী ও আয়কর রিটার্ন দাখিলের সংখ্যা বেড়েছে।

৫ম দিনে সারাদেশে ৮টি বিভাগীয় শহর ও ৫৬টি জেলা শহর মিলে মোট ৬৪টি স্পটে মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রিটার্ন দাখিল, ই-টিআইএন গ্রহণ এবং ব্যাংক বুথ করদাতাদের পদচারণায় মুখরিত ছিল। এদিকে ঢাকাসহ দেশব্যাপী আয়কর মেলার চতুর্থ দিন গত রবিবার রিটার্ন দাখিল ও আয়কর বাবদ মোট ২৮২ কোটি ৫৭ লাখ ১০ হাজার ৫৭৯ টাকা রাজস্ব আহরণ করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। গত বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) থেকে রবিবার পর্যন্ত মোট ১ হাজার ৩৪৬ কোটি ৮০ লাখ ২৫ হাজার ৫১২ টাকার কর আহরণ করেছে এনবিআর। এ সময় মেলায় এসে সেবাগ্রহণ করেন ৯ লাখ ৬৮ হাজার ৯০৭ জন, রিটার্ন দাখিল করেছেন ৩ লাখ ১৪ হাজার ৫৬৫টি এবং নতুন ই-টিআইএন নিবন্ধন নিয়েছেন ১৬ হাজার ৫৪১ জন করদাতা। এনবিআরের তথ্য মতে, আয়কর মেলার চতুর্থ দিনে অর্থাৎ রবিবার করদাতারা ২৮২ কোটি ৫৭ লাখ ১০ হাজার ৫৭৯ টাকা কর দিয়েছেন। এদিন সেবাগ্রহণ করেন ২ লাখ ৯২ হাজার ৫২৫ জন, রিটার্ন দাখিল করেছেন ৯২ হাজার ৯১৬টি এবং নতুন ই-টিআইএন নিবন্ধন নিয়েছেন ৪ হাজার ৫৬২ জন করদাতা। ‘কর প্রদানে স্বতঃস্ফ‚র্ত অংশগ্রহণ, নিশ্চিত হোক রূপকল্প বাস্তবায়ন’ এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে গত বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) শুরু হয় সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা। এ বছর দেশের ৮টি বিভাগ, ৫৬টি জেলা, ৫৬টি উপজেলাসহ মোট ১২০টি স্পটে আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মেলার পরিধি গত বছরের মেলার চেয়ে কয়েকগুণ বৃদ্ধি করা হয়েছে। প্রতিদিন মেলা সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত চলে।

মেলায় আয়কর রিটার্ন দাখিল, ই-টিআইএন গ্রহণ, ই-পেমেন্ট, ই-ফাইলিং, ই-পেমেন্টের ব্যবস্থা রয়েছে। মেলার বিশেষ আকর্ষণ মোবাইল ব্যাংকিং সুবিধা গ্রহণ করে করদাতারা রকেট, নগদ, বিকাশ ও প্রযোজ্য শিওর ক্যাশের মাধ্যমে আয়কর জমা দিতে পারছেন। ঢাকার মেলায় করদাতাদের সুবিধার্থে ৫২টি আয়কর রিটার্ন বুথ, ৫৩টি হেল্প ডেস্ক, ব্যাংক বুথ (সোনালী ব্যাংক ১৩টি, জনতা ব্যাংক ৫টি এবং বেসিক ব্যাংক ৪টি), ই-পেমেন্টের জন্য তিনটি, ই-ফাইলিংয়ের জন্য দুটি বুথ পৃথক রয়েছে। এ ছাড়া মেলায় আগত করদাতাদের তাৎক্ষণিক স্বাস্থ্য সেবা প্রদানের জন্য একটি মেডিকেল বুথ রয়েছে।

অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj