সংবাদ সম্মেলনে এনবিআর চেয়ারম্যান : আয়কর মেলায় একই ছাদের নিচে মিলবে সব সেবা

বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : প্রতিবারের মতো ‘সবাই মিলে দেব কর, দেশ হবে স্বনির্ভর’ এই ¯েøাগানে আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে সারাদেশে একযুগে সপ্তাহব্যাপী জাতীয় আয়কর মেলা শুরু হচ্ছে। করদাতাদের জন্য এবারও আয়কর মেলায় কর বিবরণী থেকে শুরু করে কর পরিশোধের জন্য থাকবে ব্যাংক ও বুথ। এ ছাড়া এবারের মেলায় নতুন করে যুক্ত হচ্ছে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা। করদাতারা বিকাশ, রকেটসহ মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে কর পরিশোধ করতে পারবেন। একই ছাদের নিচে মিলবে সব সেবা। করদাতাকে শুধু প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সঙ্গে নিতে হবে। মেলায় নতুন করদাতারা ইলেকট্রনিক কর শনাক্তকরণ নম্বর (ই-টিআইএন) নিতে পারবেন। এ ছাড়া ই-পেমেন্টের জন্য থাকবে পৃথক বুথ। গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে (এনবিআর) আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান এনবিআর চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। এ সময় এনবিআরের সদস্য কানন কুমার রায়, আলমগীর হোসেন, মেলা কমিটির সদস্যরাসহ প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এবারের আয়কর মেলায় করদাতাদের সহজে ও দ্রুত সময়ে আয়কর পরিশোধের সুবিধার্থে মোবাইল ব্যাংকিংসেবা চালু করা হয়েছে। মেলায় বিকাশ, রকেট, ইউপে, শিওর ক্যাশ ও নগদ- এর মতো মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেসের (এমএফএস) মাধ্যমে ই-পেমেন্ট সেবা দেয়া হবে। এতে সহজে মোবাইল ফোন ব্যবহার করে কর দিতে পারবেন করদাতারা। এ বিষয়ে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে সীমিত লেনদেন করা যায়। তাই প্রান্তিক করদাতাদের সুবিধার্থে এ সেবা চালু করা হয়েছে। যারা কম টাকার কর প্রদান করে তারা এ সেবায় উপকৃত হবেন। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হবে দেশব্যাপী আয়কর মেলা, চলবে ২০ নভেম্বর পর্যন্ত। এর মধ্যে রাজধানীসহ সব বিভাগীয় শহরে সাতদিন, জেলা শহরে চারদিন, ৪৮ উপজেলায় দুইদিন এবং আট উপজেলায় দিনব্যাপী করমেলা আয়োজন করবে এনবিআর। সব মিলিয়ে এবার দেশের ১২০ স্থানে অনুষ্ঠিত হবে এ মেলা। অন্যান্য বারের যেসব সুযোগ-সুবিধা ছিল তার পাশাপাশি এবার মেলায় মুক্তিযোদ্ধা, নারী, প্রতিবন্ধী ও প্রবীণ করদাতাদেরসহ সেনাবাহিনীর সদস্যদের জন্য আলাদা বুথ থাকবে।

প্রসঙ্গত, গত বছর আয়কর মেলায় ১৬ লাখ ৩৬ হাজার ২৬৬ নাগরিক সেবা নিয়েছেন। রিটার্ন জমা হয় ৪ লাখ ৮৭ হাজার ৫৭৩টি। কর আদায় হয় ২৪৬৮ কোটি ৯৪ লাখ ৪০ হাজার ৮৯৫ টাকা। নতুন নিবন্ধন নিয়েছেন ৪৫ হাজার ৪৩৭ জন করদাতা। কারো আয় বছরে আড়াই লাখ টাকার বেশি হলে রিটার্ন দেয়া বাধ্যতামূলক। নারীর ক্ষেত্রে এ সীমা তিন লাখ। ব্যক্তিশ্রেণির করদাতার রিটার্ন জমার শেষ সময় ৩০ নভেম্বর। এ সময়ের মধ্যে রিটার্ন জমা না দিলে জরিমানার বিধান রয়েছে।

অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj