দেশে প্রাপ্তবয়স্কদের ১৭ শতাংশ ভোগে মানসিক সমস্যায়

শুক্রবার, ৮ নভেম্বর ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : দেশের বিভিন্ন বয়সী মানুষের মধ্যে মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা বেড়েছে। প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের ১৭ শতাংশ মানসিক সমস্যায় ভুগলেও ৯২ শতাংশই কোনো চিকিৎসা নেয় না। আর শিশুদের (৭ থেকে ১৭ বছর বয়সী) ১৪ শতাংশের মানসিক সমস্যা আছে। তাদের ৯৫ শতাংশ চিকিৎসা নেয় না।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে প্রকাশিত ‘জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য জরিপ ২০১৮-১৯’ প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটের কনভেনশন হলে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক মোহিত কামাল। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, জরিপের প্রধান সমন্বয়ক স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এ এইচ এম এনায়েত হোসেন, মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের সাবেক পরিচালক অধ্যাপক ডা. ফারুক আলম ও ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক ডা. হেলালউদ্দিন আহমেদ প্রমুখ।

দীর্ঘ ১৪ বছর পর জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা নিয়ে জরিপের ফল প্রকাশিত হলো। এর আগে ২০০৫ সালে এ সংক্রান্ত একটি জরিপ হয়েছিল। এবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নন-কমিউনিকেবল ডিজিজ কন্ট্রোল বিভাগ ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সহায়তায় জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে জরিপ পরিচালিত হয়। চলতি বছরের এপ্রিল থেকে জুন পর্যন্ত নারী, পুরুষ, শহর ও গ্রাম এ চার ভাগে ৭ হাজার ২৭০ জন প্রাপ্তবয়স্ক এবং দুই হাজার ২৪৬ শিশুর ওপর এ জরিপ চালানো হয়।

জরিপে দেখা গেছে, মানসিক সমস্যায় আক্রান্তদের মধ্যে যে ৮ শতাংশ চিকিৎসা গ্রহণ করেন; তাদের ৮০ শতাংশ বিজ্ঞানভিত্তিক চিকিৎসা অর্থাৎ প্রশিক্ষিত চিকিৎসকের কাছে চিকিৎসা গ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, মানসিক স্বাস্থ্য নীতিমালা চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য দেশে পর্যাপ্ত অবকাঠামো গড়ে ওঠেনি। নেই পর্যাপ্ত জনবলও। দেশের ১৬ কোটি মানুষের জন্য মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞ রয়েছেন ২৫০ জন। এ সংখ্যা খুবই অপ্রতুল।

দ্বিতীয় সংস্করন'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj