মাদারীপুরে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে কিশোর গ্যাং কালচার

শুক্রবার, ৮ নভেম্বর ২০১৯

জাহাঙ্গীর আলম, মাদারীপুর : জেলায় দিন দিন ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে কিশোরদের ‘গ্যাং কালচার’। স্কুল-কলেজের গণ্ডি পেরোনোর আগেই কিশোরদের একটা অংশের বেপরোয়া আচরণ এখন মাদারীপুর শহরের আতঙ্কের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই গ্যাং কালচারের প্রভাবে মাদারীপুরে খুন, ধর্ষণ, সংঘর্ষ, ইভটিজিং, বখাটেপনা, ছিনতাই বেড়েছে বহুগুণ। কিশোর গ্যাং কালচারের মাস্তানির কারণে খুন হয়েছে একাধিক কিশোর যুবক। বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালানোর কারণে নিহত হয়েছে একাধিক কিশোর। গ্যাং কালচারের সর্বশেষ শিকার স্কুলছাত্র সোহান। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মাদারীপুর শহরের বিভিন্ন এলাকায় কমপক্ষে ৪টি গ্রুপ বর্তমানে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। এসব গ্রুপের সদস্যরা দলবদ্ধভাবে শহরের ডনোভান বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সামসুন্নাহার ভূঁইয়া বালিকা বিদ্যালয়সহ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সামনে দাঁড়িয়ে কিশোরীদের উত্ত্যক্ত করে থাকে। এক একটি গ্রুপে ১০ থেকে ৫০ জন সদস্য রয়েছে। এসব সদস্য ইভটিজিং, মহল্লাভিত্তিক বখাটেপনা, মাদক সেবন, এলাকায় প্রভাব বিস্তার, দ্রুত গতিতে মোটরসাইকেল চালানোসহ পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ডেও অংশ নিচ্ছে। এমনকি ধর্ষণের মতো ঘটনাও ঘটাচ্ছে। গত ২৯ অক্টোবর রাতে মাদারীপুর শহরের জেলা পরিষদ সংলগ্ন এলাকার এনায়েত হোসেন নান্নুর বাড়ি থেকে সোহান শেখ (১৪) নামে এক কিশোরের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত কিশোরের বাবা হাবিব শেখের দাবি, তাকে কিশোর গ্যাং পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। নিহত কিশোর মাদারীপুর ইউআই স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্র ছিল। এদিকে ঘটনাস্থলের আশপাশের সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে। ফুটেজে দেখা গেছে, ঘটনাস্থলে একাধিক কিশোরকে। তবে তারা ওখানে কী কারণে গেছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ ১৪ জনকে আটক করেছে। কয়েক মাস আগে শহরের সবুজবাগ এলাকায় এরশাদ নামে এক যুবককে খুন করা হয়। এটাও এলাকাভিত্তিক প্রভাব বিস্তারের কারণেই ঘটেছে বলে জানা গেছে। মাদারীপুর সচেতন নাগরিক কমিটির সদস্য এনায়েত হোসেন নান্নু বলেন, মাদারীপুরে কিশোর অপরাধ বেড়েছে। মঙ্গলবার রাতে সোহান নামে এক স্কুলপড়ুয়া কিশোর খুন হয়েছে বলে জানতে পেরেছি। আমরা কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ করব এই গ্যাং কালচার বন্ধ করার জন্য। এ ব্যাপারে মাদারীপুর সদর থানার ওসি সওগাতুল আলম বলেন, কিশোর অপরাধ নিয়ে কাজ করার জন্য অফিসিয়াল নির্দেশনা রয়েছে। সেই নির্দেশনা মোতাবেক আমরা কাজ করছি। এ ছাড়া সোহানের নিহতের বিষয়টি নিয়ে পুলিশ তদন্ত করছে। ঘটনাস্থলের আশপাশের সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে। শিগগিরই রহস্য উদঘাটন সম্ভব হবে।

সারাদেশ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj