বিসিক ইন্ডাস্ট্রি নির্মাণ পরিকল্পনা : গঙ্গাচড়ায় বাড়ছে উচ্ছেদ আতঙ্ক

বৃহস্পতিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

মজিদ কাজল, গঙ্গাচড়া (রংপুর) থেকে : বাপ-দাদার জমিত্ জীবনভর থাকিয়াও হামরা জমির মালিক নোয়াই (নই)। মালিক হইল সরকার। নদীতে হামার (আমার) বাড়ি ভাঙ্গিচে ১৩ বার। এটে খুব কষ্টে ঘর বান্দি আছি। এলা (এখন) ভাঙ্গি দিবার চায় বিসিক ইন্ডাস্ট্রি। তাইলে হামরা (আমরা) কোন্টে (কোথায়) যামো (যাবো)?

এ সব কথা বলেন তিস্তার চরাঞ্চলের ইচলী গ্রামের বাসিন্দা ফজলুল হক (৫৭)। এ সময় একই গ্রামের দুলাল মিয়া (৪৮), রফিকুল ইসলাম (৫৬), দুলু মিয়া (৬২), মোস্তা (৫০), আব্দুল মতিন (৬৬), কামরুজ্জামানসহ (৫৭) অনেকে উপস্থিত হন। বাড়ি উচ্ছেদ আতঙ্ক এখন সবার মুখে।

রফিকুল ইসলাম বলেন, বিসিক পার্ক হইলে হামার এলাকাত্ উন্নতি (উন্নতি) হইবে। হামার বাড়িই যদি না থাকে তাইলে উন্নতি দিয়া হামরা কি র্কমো। গতকাল বুধবার সরেজমিন গেলে গ্রামের আরো অনেকে এমন কথা বলেন। তারা গ্রামের দক্ষিণাংশে অনাবাদী স্থানে বিসিক মাল্টি সেক্টরাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক নির্মাণের দাবি জানান। তবে গঙ্গাচড়ার লক্ষীটারী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লা আল হাদী কিছুটা অভয় দান করেন। তিনি জানান, ইচলি গ্রামের দক্ষিণাংশেই ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক নির্মাণে জায়গা নির্ধারণ করা হচ্ছে। এ জন্য গ্রামবাসীর উচ্ছেদ আতঙ্কের কোনো কারণ নেই। সম্প্রতি সরকারি উদ্যোগে বিসিক মাল্টি সেক্টরাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক নির্মাণে প্রাথমিকভাবে ইচলী গ্রামকে নির্বাচন করা হয়। এ জন্য ২০০ একরের অধিক জমির প্রয়োজন। অথচ ইচলী গ্রামের আয়তন প্রায় ১ হাজার ৩০০ একর। এ জমির সামান্য পরিমাণ রয়েছে ব্যক্তি মালিকানায়। গ্রামটিতে বসবাস করছে প্রায় ৪ হাজারের অধিক পরিবার।

তাদের প্রায় সবার বাড়ি খাস বা সরকারি জমিতে। এ সব জমি নদীভাঙ্গনের আগে তাদের বাপ-দাদার মালিকানায় ছিল। বর্তমানে তা খাস খতিয়ানভুক্ত। এ গ্রামে বিসিক মাল্টি সেক্টরাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক নির্মিত হলে এ অঞ্চলের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ঘটবে বৈপ্লবিকভাবে।

এ সত্য কথাটি চরাঞ্চলবাসীও জানেন। কিন্তু এটি নির্মিত হলে নিজেদের বসতবাড়ি উচ্ছেদ আতঙ্কে তারা ভীত। তাই ইচলী গ্রামবাসী তাদের বাড়িঘর উচ্ছেদ না করতে ইতোমধ্যে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন জানিয়েছেন। সেই সঙ্গে গ্রামের দক্ষিণাংশে অনাবাদি ও বসতিহীন বিশাল স্থানে বিসিক মাল্টি সেক্টরাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক নির্মাণের দাবি জানান তারা।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj