ডিবিএইচ ফার্স্ট ফান্ড বে মেয়াদিতে রূপান্তরে কমিশনে চিঠি

বৃহস্পতিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : ডিবিএইচ ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ডকে বে মেয়াদিতে রূপান্তরের জন্য করণীয় দিক নির্দেশনা চেয়ে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে (বিএসইসি) চিঠি দিয়েছে ফান্ডটির ট্রাস্টি বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি। সম্প্রতি ট্রাস্টি সদস্য আহমেদ সাইফুদ্দিন চৌধুরী সাক্ষরিত ওই চিঠি দেয়া হয়েছে।

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, সিকিউরিটিজ ও এক্সচেঞ্জ কমিশন (মিউচুয়াল ফান্ড) বিধিমালা, ২০০১ এর বিধি ২৪ (১০) (খ) অনুযায়ি, ডিবিএইচ ফার্স্ট ফান্ডের বিভিন্ন বিনিয়োগকারীরা ট্রাস্টিকে মিটিংয়ের জন্য আহ্বান করেছেন। তারা ফান্ডটিকে সিকিউরিটিজ ও এক্সচেঞ্জ কমিশন (মিউচুয়াল ফান্ড) বিধিমালা, ২০০১ এর বিধি ৫০ (গ) অনুযায়ি, বে-মেয়াদিতে রুপান্তরের বিষয়টি আলোচনার জন্য ওই মিটিং আহ্বান করতে বলেছেন।

ফান্ডটিকে বে মেয়োদিতে রুপান্তরের আলোচনার জন্য ৭৮.৪২ শতাংশ ইউনিটধারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা ট্রাস্টিকে আহ্বান করেছেন। এই ইউনিটধারী প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে- পূবালি ব্যাংক সিকিউরিটিজ, ডেল্টা ব্র্যাক হাউজিং ফাইন্যান্স, আইডিএলসি ইনভেষ্টমেন্টস, সাউথইষ্ট ব্যাংক ক্যাপিটাল সার্ভিসেস, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক, ভিআইপিবি অ্যাসেট ম্যানেজম্যান্ট, আইডিএলসি এসেট ম্যানেজমেন্ট, ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স, ইডিজিই এএমসি ও এশিয়ান টাইগার ক্যাপিটাল পার্টনারস এসেট ম্যানেজমেন্ট। তবে বে মেয়াদিতে রুপান্তরের জন্য সভায় উপস্থিত ইউনিটধারীদের তিন-চতুর্থাংশের প্রস্তাব লাগবে।

বে মেয়াদিতে রূপান্তরের মাধ্যমে ফান্ডটি থেকে ইউনিটধারীদের বিনিয়োগ উঠিয়ে নেয়ার সুযোগ তৈরি হবে।

সেক্ষেত্রে ফান্ড ম্যানেজারকে ইউনিটের পরিবর্তে সম্পদ মূল্য ফিরিয়ে দিতে হবে। তবে ফান্ড ম্যানেজার চাইলে ওই ইউনিট আগ্রহীদের মধ্যে বিক্রিও করতে পারবেন। অন্যথায় ফান্ডের আকার ছোট হয়ে আসবে। ফলে এসেট ম্যানেজারের ফান্ডটি থেকে ফি বাবদ আয় কমে আসবে।

এলআর গ্লোবাল বাংলাদেশ এসেট ম্যানেজম্যান্টের পরিচালিত ডিবিএইচ ফান্ড মিউচুয়াল ফান্ডের পরিশোধিত মূলধনের আকার ১২০ কোটি টাকা। যে ফান্ডটির ১০ টাকার প্রতিটি ইউনিটে ৯.৯৪ টাকার সম্পদ রয়েছে। আর ইউনিটটির বাজার দর রয়েছে ৮.৫০ টাকা।

অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj