কমিটি বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন : আওয়ামী লীগ নেতাদের কড়া সমালোচনায় পদবঞ্চিতরা

বৃহস্পতিবার, ১৬ মে ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : ঘোষিত কেন্দ্রীয় পূর্ণাঙ্গ কমিটি বাতিল ও মধুর ক্যান্টিনে সংগঠনের নারী নেত্রীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা। গতকাল বুধবার দুপুরে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। এ সময় মধুর ক্যান্টিনে ছাত্রলীগের নারী নেত্রীদের ওপর হামলাকে ‘ছোট ঘটনা’ বলায় আওয়ামী লীগ নেতাদের কড়া সমালোচনা করেন তারা। মানববন্ধনে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে পদবঞ্চিত শতাধিক নেতাকর্মী অংশ নেন। মানববন্ধনকারীরা ‘আমাদের বোনদের ওপর হামলা কেন, বিচার চাই বিচার চাই’, ‘অবৈধ কমিটি মানি না’, ‘অছাত্রদের, আদু ভাইদের কমিটি মানি না’, ‘ক্যাম্পাস থেকে বহিষ্কৃতদের কমিটি মানি না’, ‘বঙ্গবন্ধুর ছাত্রলীগে অছাত্রদের স্থান নেই’, ‘চাকরিজীবী-ব্যবসায়ীদের কমিটি মানি না’ ইত্যাদি ¯েøাগান সংবলিত প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করেন।

মানববন্ধনে অংশ নেন ছাত্রলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন শাহজাদা, প্রচার সম্পাদক সাঈফ বাবু, কর্মসূচি ও পরিকল্পনা বিষয়ক সম্পাদক রাকিব হোসেন, সমাজসেবা সম্পাদক রানা হামিদ, উপ-দপ্তর সম্পাদক নকিবুল ইসাম সুমন, সহ-সম্পাদক এস এম মামুন, ডাকসুর ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক বিএম লিপি আক্তার, সদস্য তানভীর হাসান সৈকত, বঙ্গবন্ধু হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আল আমিন রহমান, কবি জসীম উদ্্দীন হলের সাধারণ সম্পাদক শাহেদ খান, বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী হলের সভাপতি ফরিদা পারভীন, সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী শায়লা, সুফিয়া কামাল হলের সভাপতি ইফফাত জাহান এশা, সাধারণ সম্পাদক শারজিয়া শম্পা প্রমুখ। মধুর ক্যান্টিনে হামলার ঘটনাকে ‘ছোট’ বলায় আওয়ামী লীগ নেতা মাহবুব-উল আলম হানিফের সমালোচনা করে ছাত্রলীগের শামসুন্নাহার হল শাখার সভাপতি নিপু তন্বী বলেন, আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের কাছে সম্মান প্রদর্শন করে জানতে চাই, মধুর ক্যান্টিনের ঘটনাটি কোন পর্যায়ে গেলে তাদের কাছে মনে হতো এটি বিশাল আকারের ঘটনা। আমাদের আর কতটুকু লাঞ্ছিত করলে তাদের কাছে মনে হতো ছাত্রলীগের নারীদের ওপর নির্যাতন হয়েছে। আমরা মারা যাওয়ার পরে কি ঘটনার সত্যতা প্রকাশ পেত?

লিপি আক্তার বলেন, সবার মন জয় করে কমিটি করা সম্ভব নয়। যারা কমিটিতে স্থান পেয়েছে তাদের সমালোচনা সহ্য করার ক্ষমতা থাকতে হবে। যারা যোগ্যতা অনুযায়ী পোস্ট পেয়েছে তাদের শুভেচ্ছা জানিয়েছি। কিন্তু যাদের যোগ্যতাই নেই, তাদের বিরুদ্ধে অপকর্মের সাক্ষ্য, প্রমাণ রয়েছে।

তারা কমিটিতে থাকলে ছাত্রলীগ প্রশ্নবিদ্ধ হবে। কমিটিতে মাদক মামলার আসামি, বিবাহিত, অছাত্র, ছাত্রদল, রাজাকারের সন্তানদের পদ দেয়ায় আমরা আন্দোলন করছি।

দ্বিতীয় সংস্করন'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj