যান্ত্রিক যুগে চিঠিকে মিস করি : বিজরী বরকতউল্লাহ

শনিবার, ১৬ মার্চ ২০১৯

প্রযুক্তির ছোঁয়ায় আমরা যখন অভ্যস্ত ছিলাম না তখন চিঠিই যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম হিসেবে ব্যবহৃত হতো। এই চিঠিই কখনো বিনোদনের খোরাক জোগাত, কখনো ব্যথাতুর হৃদয়ে কান্না ঝরাত, কখনো উৎফুল্ল করত, কখনো করত আবেগে আপ্লুত। বিশেষ করে প্রেমের চিঠি পাওয়ার আকুলতা কিংবা চিঠি পড়ার আনন্দ সব কিছুই যেন আজ ¤øান। তারকার পাওয়া কিংবা লেখা প্রথম চিঠির গল্প নিয়েই ‘মেলা’র এই আয়োজন

হলুদ খামেই শুরু

সত্যি বলতে, প্রথম চিঠি কবে লিখেছি অথবা পেয়েছি তা সঠিকভাবে বলা একটু কষ্টকর। এতো আগের কথা এখন আর স্পষ্ট মনে নেই। কিন্তু আমার বড় বোন একসময় পড়াশোনার জন্য ইন্ডিয়া চলে গিয়েছিল। আমার মনে হয় সেই প্রথম ব্যক্তি যে আমাকে প্রথম চিঠি লিখেছিল। তার উত্তরে আমিও তাকে চিঠি দিয়েছিলাম। এভাবে সীমান্ত পেরিয়ে হলুদ খামেই শুরু হয়েছিল আমাদের যোগাযোগ ও কথোপকথন।

আবেগঘন কথাবার্তাই বেশি

বড় বোন দেশের বাইরে চলে যাওয়ার পর আমি তাকে খুব মিস করতাম। দুই বোন একসঙ্গে বড় হয়েছি; একসঙ্গে ঘুমিয়েছি। কত খুনসুটি করেছি। তবে সে যখন দেশে ছিল তখন কিন্তু ভাবতাম, আপু চলে গেলে পুরো বাড়িটাই আমার একার হয়ে যাবে। আমাকে কোনোকিছুতে বাধা দেয়ার জন্য কেউ থাকবে না, কত ভালো হবে! কিন্তু ঘটনা ঘটেছিল সম্পূর্ণ উল্টো; সে চলে যাওয়ার পর আমি বরং আরো একা হয়ে যাই। তাকে খুব মিস করতাম। এসব আবেগঘন কথাবার্তাই তখন বেশি হতো। বিশেষ দিনগুলোতে তাকে কার্ড লিখে পাঠাতাম। কার্ডগুলোতে ছোট্ট করে চিরকুট লিখে দিতাম।

মোবাইল ও চিঠির যুগ দুটোই পেয়েছি

আমার কিংবা আমাদের বয়সী মানুষগুলো আসলে সৌভাগ্যবান কেননা আমরা এমন এক সময়ে জন্মগ্রহণ করেছি যে জন্য আমরা মোবাইলের যুগ, চিঠির যুগ দুটোই পেয়েছি। এক একটা মাধ্যমের আবেদন কিন্তু একেক রকম। অনেক দিন পর কোনোকিছু খুঁজতে গিয়ে হঠাৎ যখন আবিষ্কার করি পুরনো কোনো চিঠি তখন কিন্তু আমার চোখ কপালে ওঠে যায়। আমার ক্ষেত্রে এমনটা অনেক বার হয়েছে। বর্তমান যান্ত্রিক যুগে এসেও চিঠিকে খুব মিস করি।

:: রাব্বানি রাব্বী

মেলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj