ফিশিং বোট মালিক সমিতি : সাগরে মাছ ধরার আগের নিয়ম চালু রাখার দাবি

মঙ্গলবার, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

চট্টগ্রাম অফিস : বঙ্গোপসাগরে নতুন করে ৬৫ দিন মাছ ধরা বন্ধে সরকারি নিষেধাজ্ঞার পরিবর্তে আগের নিয়ম চালু রাখার দাবি জানিয়েছেন সামুদ্রিক মৎস্য আহরণকারী বোট মালিক সমিতির নেতারা। গতকাল সোমবার নগরীর শাহ আমানত ব্রিজসংলগ্ন বিতর্কিত নতুন ফিশারিঘাট এলাকায় সমিতি অফিসে এক সংবাদ সম্মেলনে নেতারা এ দাবি জানান। তারা আশঙ্কা প্রকাশ করেন, নতুন সিদ্ধান্তে মৎস্যজীবীরা চরম সংকটে পড়বেন এবং তাদের পরিবার-পরিজন নিয়ে বেঁচে থাকা কষ্টকর হবে।

সমিতির মহাসচিব আমিনুল হক বাবুল সরকার বলেন, ২০১৫ সাল থেকে যে নিয়মে বঙ্গোপসাগর থেকে মৎস্য আহরণ করা হচ্ছে তাতে জাতি সুফল পাচ্ছে। তবে গত ২০ সেপ্টেম্বরে সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদ সংরক্ষণ, ব্যবস্থাপনা ও উন্নয়নবিষয়ক এক সভায় ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত নতুন করে বঙ্গোপসাগরে মৎস্য আহরণ বন্ধের সিদ্ধান্তের পরিকল্পনার নেয়ার কথা জানানো হয়। এ অবস্থায় ৪০ হাজার বোট শ্রমিকের জীবিকা নির্বাহে বড় ধরনের নেতিবাচক প্রভাব পড়বে এবং তাদের পরিবার পরিজন ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তিনি বলেন, এমনিতেই ইলিশের প্রজনন সময়ে প্রতি বছর ১ থেকে ৩১ মে পর্যন্ত সরাসরি ফিশিং বোট বন্ধ রাখতে হয়। এরপর জাটকা নিধন বন্ধে ২২ দিন এবং বৈরী আবহাওয়ার কারণে প্রায় ৩ মাস বন্ধ থাকে মৎস্য আহরণ। সবমিলে যে কয় মাস মাছ ধরার সময় পাওয়া যায়, তা দিয়ে শ্রমিকদের খুব কষ্ট করে সংসার চালাতে হয়। এর মধ্যে আবারো ৬৫ দিনের মৎস্য আহরণ বন্ধ থাকলে ব্যবসায়ী বোট মালিক ও মৎস্য শ্রমিকসহ তাদের পরিবার-পরিজন পথে বসবে।

দাবির সপক্ষে আগামী বৃহস্পতিবার সকালে নতুন ফিশারিঘাটে মানববন্ধন ও সমাবেশের কথাও জানানো হয় গতকালের সংবাদ সম্মেলন থেকে। এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাজার সমিতি সহসভাপতি মো. আলী, নুর হোসেন, বোট মালিক সমিতির সভাপতি আনোয়ার হোসেন, পরিচালক এ কে এম ফজলুল হক, এরশাদুল আলম, মো. লিয়াক আলী প্রমুখ।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj