যশোর পৌর কর্তৃপক্ষ : মডেল শহর গড়তে মাস্টার প্ল্যান

শুক্রবার, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

আলমগীর কবীর, যশোর থেকে : গত আড়াই বছরে পাল্টে গেছে যশোর শহরের চিত্র। দেশের প্রথম ডিজিটাল শহর যশোরকে আধুনিক নগরে পরিণত করতে নেয়া হচ্ছে মাস্টার প্ল্যান। ইতোমধ্যে তার কয়েকটি বাস্তবায়নও হয়েছে। বর্তমান মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে বাড়ছে শহরের সৌন্দর্য।

পৌরসভা সূত্রে জানা যায়, নগর উন্নয়ন প্রকল্পের ইতোমধ্যে ১৪ কিলোমিটারের কাজ শেষ হয়েছে। এতে ব্যয় হয়েছে ২৫ কোটি টাকা। প্রতিটি সড়ক প্রশস্ত করা হয়েছে।

১০ ফুটের সড়ক ২০ এবং ১৫ ফুটের সড়ক ৩০ ফুট করা হয়েছে। এর মধ্যে সড়ক হচ্ছে আশ্রম রোড, পিয়ারী মোহন রোড, বেজপাড়া রোড, ঘোপ সেন্ট্রাল রোড, শংকরপুর রোড, বোরহান শাহ রোড (কারবালা), শহীদ আবু তালেব রোড ও রেলরোড। ড্রেনের প্রস্থ দুই ফুট থেকে ছয় ফুট।

উচ্চতা তিন থেকে সাত ফুট। থিকনেস ছয় থেকে আট ইঞ্চি করা হচ্ছে। জুনে শেষ হয়েছে তৃতীয় নগর পরিকল্পনা ও উন্নয়নের কাজ। এতে ব্যয় হয়েছে ৫০ কোটি টাকা।

মাস্টার প্ল্যান অনুযায়ী গৃহীত প্রকল্পে মোট ব্যয় হচ্ছে ১১০ কোটি টাকা। এর আওতায় মোট ৩৯ কিলোমিটার সড়ক সম্প্রসারণ করা হচ্ছে। যার ব্যয় ধরা হয়েছে ৫০ কোটি টাকা। ইতোমধ্যে নগর অঞ্চল উন্নয়ন প্রকল্পের ১৪ কিলোমিটার রাস্তা সম্প্রসারণের কাজ শেষ হয়েছে।

কাজ চলমান রয়েছে তৃতীয় নগর পরিচালন ও অবকাঠামো উন্নতিকরণ প্রকল্পের ২৫ কিলোমিটারের। ড্রেন নির্মাণ এবং সংস্কার কাজ চলছে ৪৮ কিলোমিটার। এ কাজের ব্যয় ধরা হয়েছে ৬০ কোটি টাকা। ইতোমধ্যে ২৫ কিলোমিটার ড্রেনের কাজ শেষ হয়েছে। কাজ চলমান রয়েছে ২৩ কিলোমিটার।

এ প্রকল্পের কাজ দ্রুত সময়ের মধ্যে শেষ হবে। এ কাজ সম্পন্ন হলে শহরবাসী বাইপাস সড়ক ব্যবহার করতে পারবে। এর ফলে শহরের প্রধান সড়কগুলোর ওপর থেকে বাড়তি চাপ কমে যাবে। ফলে শহর হবে যানজটমুক্ত। জনগণের চলাচল হবে স্বাভাবিক।

বর্তমানে শহরের ৯২টি পয়েন্টে রাস্তা ও ড্রেন নির্মাণের কাজ চলছে। চালু হয়েছে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা শহরের একমাত্র সুইমিং পুলটি। সৌন্দর্য বর্ধন করা হয়েছে পৌর পার্কের। শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে রাস্তার পাশে গাছ লাগিয়ে ও আলোক সজ্জায় সজ্জিত করে আকর্ষণীয় করা হয়েছে। আর হ্রাস করা হয়েছে শহরে যানজটের ধকল। নির্বিঘ্নে চলাচল করতে পারছে শহরবাসী। এসব সুবিধা নিশ্চিত করতে মাস্টার প্ল্যান প্রকল্প নিয়ে কাজ করছে পৌর কর্তৃপক্ষ।

এ প্রকল্পের আওতায় ৫০ ভাগ কাজ ইতোমধ্যে বাস্তবায়ন করা হয়েছে। বাকি কাজ দ্রুত সম্পন্ন হবে জানিয়েছেন পৌরসভার মেয়র জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু।

মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু বলেন, পৌরসভার সব কাজ ধারাবাহিকভাবে চলতে থাকবে। কোনো কাজ বন্ধ হবে না। যশোর শহর হবে মডেল শহর। কথায় নয় কাজ করে আমি প্রমাণ করতে চাই।

তিনি জানান, আড়াই বছরে শহরের উন্নয়নমূলক ৫০ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। তার মধ্যে বিভিন্ন পয়েন্টে ৩০ কিলোমিটার রাস্তা করা হয়েছে। এ ছাড়া বিভিন্ন স্থানে কাজ অব্যাহত রয়েছে। নভেম্বর-ডিসেম্বরের মধ্যে সব কাজ সম্পন্ন করা হবে। রাস্তার সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে রেলরোড, ভোলাট্যাক রোড, ষষ্টিতলাপাড়া ও মশিউর রহমান সড়কে পাঁচ কিলোমিটর এরিয়ায় আইল্যান্ডের ওপর গাছ লাগানো হয়েছে।

মেয়াদের বাকি আড়াই বছরের মধ্যে সব কাজ সম্পন্ন করার আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি বলেন, শহরে কোনো ভাঙা রাস্তা থাকবে না। জলাবদ্ধতা দূর করতে সব স্থানে উন্নত টেকসই ড্রেন করা হবে। সঙ্গে বিভিন্ন মোড়ে থাকবে ডাস্টবিন। শহরে কোনো আবর্জনা থাকবে না। পুরাতন পৌর মার্কেট হবে দশতলা বিশিষ্ট মার্কেট।

এ প্রকল্পে ৩৭টি সড়ক প্রশস্তকরণের কাজ করা হয়েছে। পূর্ব বারান্দী প্রধান সড়ক, পশ্চিম বারান্দী প্রধান সড়ক, খালধার রোড, এইচ এম এম রোড, নীল রতন ধার রোড, ঘোপ নওয়াপাড়া রোড, তাঁতিপাড়া রোড, ঘোষ পাড়া রোড, গাজীর ঘাট রোড, রওশন আলী রোড (নওদাগ্রাম), পুলিশ লাইন স্কুল রোড, টিবি ক্লিনিকমোড়, মুক্তিযোদ্ধা সড়ক (নার্সারি পট্টি), মাওলানা শাহ আব্দুল করিম রোড, ইসহাক রোড, মুন্সী মেহেরউল্লাহ রোড, এম এম আলী রোড, কেশবলাল রোড, গুরুদাস বাবু লেন, হরিনাথ দত্ত লেন, বকচর কবরস্থান রোড, শুরেন্দ্রনাথ দত্ত লেন ও রায়পাড়া তুলোতলা রোড। যানজট নিরসনে মাস্টার প্ল্যান করা হয়েছে। এ প্ল্যানের কাজ চলছে। ইতোমধ্যে ফুটপাত দখলমুক্ত করা হয়েছে। হকারদের জন্য পৃথক মার্কেট করা হয়েছে। মানুষ এখন ফুটপাত ব্যবহার করতে পারছে। এ ছাড়া ইজিবাইক লাইসেন্স নির্দিষ্ট সংখ্যায় বেঁধে দেয়া হয়েছে। যার ফলে ইজিবাইক অনেক কমে গেছে।

পৌরসভার সহকারী রেজিস্ট্রার মঞ্জুর হোসেন বলেন, শহরে যানজট নিরসনের জন্য ইজিবাইক রেজিস্ট্রেশন নতুন করে আর দেয়া হচ্ছে না। বর্তমানে রেজিস্ট্রেশনকৃত ইজিবাইকের সংখ্যা ২ হাজার ৫৬৯টি। প্রশাসনের কড়া নিষেজ্ঞা রয়েছে। এর বাইরে অবৈধ ইজিবাইক শহরে প্রবেশ করার সুযোগ নেই। ফলে ইজিবাইক নিয়ে যানজটে তেমন সমস্যা নেই।

আরও সংবাদ...'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj