ব্যবসায় শিক্ষার ক্রমবর্ধমানে গুলশান কমার্স কলেজ

বৃহস্পতিবার, ৩১ মে ২০১৮

প্রথাগত ডিগ্রির গুরুত্ব ব্যাপকভাবে হ্রাস পেয়েছে কয়েক দশক ধরে। বিশেষ করে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে এখন ব্যবসায় শিক্ষাকে গুরুত্বসহকারে পড়ানো হচ্ছে। প্রায় ৬০ শতাংশ শিক্ষার্থীই ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে অধ্যয়ন করছে এবং প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে কমার্স বিশেষায়িত কলেজ। ব্যবসায় শিক্ষার ক্রমবর্ধমান এ ঝোঁকের কারণে রাতারাতি বিভিন্ন কমার্স বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠলেও মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করছে হাতেগোনা দুয়েকটি প্রতিষ্ঠান মাত্র!

এ তালিকায় অগ্রগণ্য একটি নাম ‘গুলশান কমার্স কলেজ’। তাদের ক্যাম্পাস গ-৯৭, ১০৯ এবং গ-১০৮/এ প্রগতি সরণি, ঢাকা। এই নাম্বারে যোগাযোগও করতে পারেন ০১৫৩১৩৪৩৮৭। প্রতিষ্ঠার অতি অল্প সময়ের মধ্যেই কলেজটি সবার দৃষ্টি আকর্ষণে সক্ষম হয়েছে।

ইতোমধ্যে এদের ১১ ব্যাচ অত্যন্ত সাফল্যের সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়ে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করছে। চলমান উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে কলেজটির ১২তম ব্যাচের ৮১৭ শিক্ষার্থী। ২০০৮ সালে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডে ষষ্ঠ স্থান অধিকার করে রীতিমতো চমক সৃষ্টি করেছিল এ কলেজ। ২০১৭ সালের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় ঢাকা বোর্ডের মেধাবৃত্তি তালিকায় মেয়েদের মধ্যে প্রথম স্থান অর্জন করেছেন সালমা আক্তার ঝুমা। তিনি ঢাকা মহানগরীর অন্তর্গত ব্যবসায় শিক্ষা শাখার বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান গুলশান কমার্স কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে এই অসামান্য কৃতিত্ব অর্জন করেন। এ ছাড়াও ২০১৭ সালে অনেক শিক্ষার্থী ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়ে মেধার স্বাক্ষর রেখেছে। গুলশান কমার্স কলেজের অধ্যক্ষ এম এ কালাম শিক্ষার্থীদের মেধা, কলেজের নিয়ম শৃঙ্খলার প্রতি একাগ্রতা ও শিক্ষকদের নির্দেশনার প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকাসহ বিভিন্ন বিষয়কে ভালো ফলাফলের অন্যতম কারণ হিসেবে উল্লেখ করেন। শুধু চাকরি নয়, উদ্যোক্তা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করতে হলেও ব্যবসায় শিক্ষায় জ্ঞান অর্জনের কোনো বিকল্প নেই। প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল বিষয় সম্পর্কে আমাদের শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের সুযোগ সৃষ্টি করে তাদের দক্ষতা বৃদ্ধি অব্যাহত রেখেছে, যাতে শিক্ষার্থীরা নিত্যনতুন জ্ঞানের সঙ্গে পরিচিত হওয়ার সুযোগ থেকে বঞ্চিত না হয়।

:: ক্যাম্পাস ডেস্ক

ক্যাম্পাস'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj