মিরপুর মুক্তিদাতা শহীদ লে. সেলিম

সোমবার, ৩০ জানুয়ারি ২০১৭

প্রতি বছর ৩০ জানুয়ারি মিরপুর মুক্তি দিবস পালিত হয়ে আসছে। ১৯৭২-এর এই দিনে মিরপুরকে মুক্ত করতে গিয়ে লে. সেলিম ৪১ জন সামরিক বাহিনীর সদস্যসহ বেশ কিছু পুলিশ এবং মুক্তিযোদ্ধা জীবন উৎসর্গ করেছিলেন। জ্যেষ্ঠ সামরিক কর্মকর্তার অনুপস্থিতিতে লে. সেলিমই যুদ্ধ পরিচলনা করে মুক্ত করেন অবরুদ্ধ মিরপুর। ৩০ শে জানুয়ারি ৭২-এর সারাটা দিন এবং সন্ধ্যে পর্যন্ত নিজের শেষ রক্তবিন্দুটুকু ঝরিয়ে যুদ্ধ করে বিজয়ের পথ খুলে দেন সেলিম। এভাবেই ৩১ জানুয়ারি প্রভাতে মুক্ত হয় অবরুদ্ধ মিরপুর। বুকে বুলেটের আঘাত নিয়েও সম্মুখসমরে লে. সেলিম যে অসাধারণ সাহসিকতা ও কর্তব্যনিষ্ঠার পরিচয় দিয়ে গেছেন তা তার সহযোদ্ধারাই বিভিন্ন মাধ্যমে ব্যক্ত করেছেন।

এই অসাধারণ বীর যোদ্ধা এবং তার ভাই লে. আনিস (ডা. এম এ হাসান) ২৫ মার্চ ১৯৭১-এ ঢাকার তেজগাঁয়ে ১ প্লাটুন পুলিশ সদস্য নিয়ে যে যুদ্ধ শুরু করেন তা পরিণত সমরে পরিণত হয় ১৯৭১-এর ১৪ এপ্রিল লালপুর আশুগঞ্জে। ঐ দিনে সম্মুখ সমরে অংশগ্রহণ করে লে. সেলিম যে সাহসী সমর অভিযাত্রা শুরু করেন তা ’৭১-এর নয় মাসে কখনও থেমে থাকেনি। তেলিয়াপাড়ার প্রতিরোধ যুদ্ধসহ বিভিন্ন যুদ্ধে পাকিস্তানি সেনাদের বার বার পরাভূত করেছেন লে. সেলিম। সিলেটের হরশপুর ও নোয়াখালীর বেলোনিয়া-পরশুরাম মুক্তকরণ অভিযানে তিনি দ্বিতীয় ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের ডেল্টা কোম্পানির কমান্ডারের সহযোগী হিসাবে যুদ্ধ করেছেন। ৪ ডিসেম্বর আখাউড়া যুদ্ধে লে. বদি শহীদ হলে লে. সেলিম দ্বিতীয় ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের ব্রাভো কোম্পানির দায়িত্বভার গ্রহণ করেন এবং আখাউড়া যুদ্ধে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখেন। অথচ এই বীর যোদ্ধাদের যথাযথ মূল্যায়ন আজও হয়নি। যুদ্ধে শহীদ হলে বীর যোদ্ধা শহীদ লে. সেলিমকে শীর্ষ সম্মানে ভূষিত করার কথা ছিল, একটি মূখ্য রাস্তার নামকরণ করার কথা ছিল তার নামে। এর কিছুই হয়নি। ব্যর্থতা ও গøানিতে নিমজ্জিত কিছু অক্ষম ব্যক্তি মুছে ফেলতে চেয়েছিল মিরপুর মুক্তকরণের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাসকে। অমার্জনীয় অবহেলায় তারা ফেলে এসেছিল নিজ সেনা ও সাথীদের মৃতদেহকে। ইতিহাসের অমোঘ নিয়মে ৩০ বছর পর ১৯৯৯-এ মিরপুরের মুসলিম বাজার ও জল্লাদখানায় শহীদদের হাড়গোড় ভেসে উঠে তাদের ত্যাগ, বিসর্জন ও বীরত্বের কথাকে ব্যক্ত করে সত্যকেই উন্মোচিত করেছে।

স্বাধীনতার ৪১ দিন পর মুক্ত বাংলাদেশের বুকের কোণে অবরুদ্ধ মিরপুরে দলছুট পাকিস্তানি সেনাসহ আলবদর বাহিনী তথা বিহারী মুজাহিদ কর্তৃক আত্মসমর্পণ চুক্তি ও জেনেভা কনভেনশন ভঙ্গ করে বাঙালি সেনাদের ওপর ঐ আক্রমণ কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছিল না। পাকিরা বাংলাদেশের মাটিতে পরাভূত হবার পরেও এ দেশকে তাদের করায়ত্ব রাখবার জন্য যে অশুভ পরিকল্পনা ও অভিলাষ পোষণ করছিল এবং বিজয়ীর প্রতি যে ঘৃণা ও বিদ্বেষ পোষণ করছিল ঐ দিন মিরপুরে সংঘটিত ঘটনা ছিল তারই একটি জ্বলন্ত প্রমাণ।

১৩ এপ্রিল ১৯৭১ সালে লালপুরে পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রায় দুই কোম্পানি সৈন্য নিয়ে যুদ্ধে যোগদান করেন সেলিম ও আনিস ভ্রাতৃদ্বয়। এই যুদ্ধে প্লাটুন কমান্ডার হিসাবে অসাধারণ নৈপুন্য প্রদর্শন করেন সেলিম। ১৪ এপ্রিল বিকালে পাকিস্তানি বাহিনী জল, স্থল ও আকাশ পথে আক্রমণ শুরু করলে তারা ব্রাহ্মণবাড়িয়া হয়ে শাহবাজপুরে ফিরে আসেন সেলিম। এরপর শাহবাজপুর, নাসিরনগর, শাহাজিবাজার, তোলিয়াপাড়াসহ অসংখ্য যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেন সেলিম ও আনিস ভ্রাতৃদ্বয়। সিমনা বিওপি কেন্দ্র করে ২য় বেঙ্গলের সদস্য হিসাবে তারা অসংখ্য যুদ্ধে অসম সাহসিকতা প্রদর্শন করে ব্রিগেডিয়ার পান্ডের নজর কারেন এবং শীর্ষ পাঁচ মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে নিবার্চিত হন। এই দুই ভ্রাতা পাকিস্তানের জন্য ত্রাস সৃষ্টি করে ভারতীয় মিডিয়া ও আন্তর্জাতিক মিডিয়ার নজর কারেন। তাদেরকে নিয়ে ডকুমেন্টরি ছবি তৈরি করে এবিসি টেলিভিশন। জুলাইয়ের শেষে ভারতে যে ৬১ জন অফিসারকে ট্রেনিং দেওয়া হয় তারা তাতে নির্বাচিত হন। এতে মেধা তালিকায় শীর্ষদের মধ্যে স্থান করে নেন সেলিম। অক্টোবরের ১৮ তারিখে ২য় ইস্ট বেঙ্গলের যোগ দিয়ে সেলিম বেলোনিয়া যুদ্ধে শরিক হন।

ফুলগাজী বেলোনিয়া, হরষপুর, মুকন্দপুর মুক্ত করে সেলিম যখন ব্যাটালিয়নের হেড কোয়ার্টারে ফিরে আসেন তখন আখাউড়া যুদ্ধে ভ্যানগার্ড কোম্পানিকে নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন তার অনুজ লে. আনিসুল হাসান (ডা. এম এ হাসান)। ৪ ডিসেম্বর ঐ যুদ্ধে লে. বদি শহীদ হলে ২য় ইস্ট বেঙ্গল এর ব্রাভো কোম্পানির দায়িত্ব নেন সেলিম। এরপর শুধু বিজয় আর বিজয়। তিনি ছিলেন বাংলাদেশের প্রথম প্রেসিডেন্টের প্রথম গার্ড কমান্ডার। ঐ পদে থাকা কালে ৩০ জানুয়ারি ১৯৭২ অবরুদ্ধ মিরপুর ম্ক্তু করতে তাকে মিরপুরে নেয়া হয়। একটি অসম এবং অতর্কিত যুদ্ধে প্রাণ দেন লে. সেলিম। বীর সেনা এবং মুক্তিযোদ্ধার সম্মান তথা দায়িত্বকে সর্বোচ্চ মূল্য দিতে একজন প্রকৃত বীরের মত যুদ্ধ করতে করতেই শহীদ হন লে. সেলিম।

শহীদ লে. সেলিম ১৯৪৮ সনে যশোহরের অভয়নগরের জন্মগ্রহণ করেছিলেন। শৈশব থেকেই গণিতে ছিল তার অসাধারণ মেধা। যুদ্ধে যোগদানের পূর্বে তিনি রাজশাহী ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে অধ্যয়নরত ছিলেন। সেখানে তিনি কেবল একজন আপসহীন ছাত্রনেতাই ছিলেন না, সেই সাথে একজন অসাধারণ এ্যাথলেট ও কৃতি খেলোয়ার হিসাবে কলেজ ও বিভাগীয় পর্যায়ের অধিকাংশ ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন ছিলেন। ২৭ মার্চ ১৯৭১-এ ঢাকা বিশ্ববিদল্যায় আহত-নিহত শিক্ষকদের উদ্ধার অপারেশনে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন সেলিম ও আনিস ভ্রাতৃদ্বয়।

২৭ মার্চ ১৯৭১-এ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালের জগন্নাথ হলের নিকট থেকে অধ্যাপক ড. গোবিন্দচন্দ্র দেবসহ তার পালিতা কন্যা শহীদ সেলিমের আপন খালা রোকেয়া বেগম এবং খালু মোহাম্মদ আলীকে উদ্ধার করার চেষ্টা করেন এবং আহত-নিহত শিক্ষকদের প্রতি সাহায্যের হাত বড়িয়ে দেন। উল্লেখ্য, ঐ দিন ২৫ মার্চ রাতে আমার খালু মোহাম্মদ আলী ও ড. জেসি দেব নিজগৃহে পাকিস্তানিদের হাতে শহীদ হন। এ কাজ করতে গিয়ে প্রায় বন্দি হন পাকিস্তানিদের হাতে।

১৯৭১-এ ৩১ মার্চ ভৈরবে দ্বিতীয় ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের সাথে যুক্ত হলেন সেলিম। ১৯৭১-এর জুনের শেষে এবং জুলাই এর শুরুতে ভারতে শহীদ লে. সেলিম মোহাম্মদ কামরুল হাসান প্রথম শট কোর্স গ্রহণ করেন এবং ৯ অক্টোবর ১৯৭১ বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে কমিশন লাভ করে। জুলাইয়ের শেষে ভারতে যে ৬১ জন অফিসারকে ট্রেনিং দেওয়া হয় তাদের মধ্যে মেধা তালিকায় শীর্ষদের মধ্যে স্থান করে নেন শহীদ লে. সেলিম মোহাম্মদ কামরুল হাসান। অক্টোবরের ১৮ তারিখে ২য় ইস্ট বেঙ্গলের যোগ দিয়ে শহীদ লে. সেলিম মোহাম্মদ কামরুল হাসান ক্যাপ্টেন হেলাল মোর্শেদকে নিয়ে বেলোনিয়া যুদ্ধে শরিক হন। ফুলগাজী, পরশুরাম, হরষপুর, মুকুন্দপুর ও বেলোনিয়া মুক্ত করে সেলিম ১লা ডিসেম্বর ’৭১ ব্যাটালিয়নের হেড কোয়ার্টারে ফিরে আসেন। ৪ ঠা ডিসেম্বর ১৯৭১-এ আখাউড়া যুদ্ধে লে. বদি শহীদ হলে ২য় ইস্ট বেঙ্গল এর ব্রাভো কোম্পানির দায়িত্ব নেন সেলিম। এরপর শুধু বিজয় আর বিজয়।

শহীদ লে. সেলিম এমন এক মায়ের সন্তান যার স্বপ্নে ছিল দ্রোণাচার্যের মতো এক সাহসী যোদ্ধা এবং বিবেকানন্দের মতো এক বোদ্ধা। তিল তিল করে জমানো নানা স্বপ্ন আর অফুরন্ত ভালোবাসাকে বুকে ধারণ করে বুদ্ধি ও প্রাণ চাঞ্চল্যের মিশেল চাইলেন মা তার সন্তানের মাঝে। তিলে তিলে স্নেহ ও ভালোবাসায় গড়া এমন একটি সন্তান তার কোলে এল ১৯৪৮ সনে। মেধা, বুদ্ধি, ক্রীড়াকৌশল, সাহস, শৌর্য্য ও বীর্যে অপূর্ব হওয়া সন্তান তার নানা কাজের মাঝে জয় করে নেয় সবার প্রাণ। মায়ের অন্তহীন ভালোবাসা আর অশ্রæতে তৈরি সেই নক্ষত্র প্রিয় মাকে আরো গভীর অশ্রæস্রোতে ভাসিয়ে চিরতরে অপসৃয়মান হলেন ১৯৭২-এর উষালগ্নে মিরপুরের রক্তস্নাত যুদ্ধ প্রাঙ্গণে। অকালে সমাপ্ত হল অসাধারণ সম্ভাবনাময় এক অভিযাত্রা। এতে প্রথম প্রথম সহানুভূতির হাত বাড়ালেও মুক্তিযোদ্ধা সেলিমের মা-এর প্রতি ফিরে তাকানোর অবকাশ আর কারো রইল না। গভীর নিশিথে লাখো শহীদের কান্না শিশিরের মতো ঝরে, অলস দুপুরে তাদের দীর্ঘশ্বাস হাওয়া হয়ে ফিরে, কিন্তু ঐ পর্যন্তই। কথামালা ও কিছু গান আর ছবির ফ্রেমে বাঁধা হয়ে রইলেন শহীদ লে. সেলিম। কেবল স্মৃতি হওয়া রইলো-সেলিম এবং তার মুক্তিযুদ্ধের ডায়েরি।

মা ঘটনার বিবরণ ও শেষ কথা বলেন এভাবে- সেলিম তখন বঙ্গভবনে থাকত। সেখান থেকে সহযোদ্ধাদের নিয়ে ত্রিশে জানুয়ারি সকালে মিরপুর যায়। ঐদিন সকাল থেকেই মিরপুর উত্তপ্ত ছিল। দেশ স্বাধীন হওয়ার পরও মিরপুরে অবাঙালিরা স্থানীয় বাঙালিদের জবাই করছিল। প্রতি রাতে সেখান থেকে গোলাগুলির আওয়াজ পাওয়া যেত। সেলিম তার বাহিনীসহ বারো নম্বরের ভেতরের দিকে পানির ট্যাঙ্কের কাছে অবস্থান নিয়েছিল। শুনেছি ওখান থেকেই মূল যুদ্ধ শুরু হয়। স্বাধীনতা যুদ্ধে পরাজিত পাকিস্তানি হানাদার ও অবাঙালিরা সম্মিলিতভাবে এই যুদ্ধ চালায়। ন’মাস ধরে মিরপুর ছিল অবাঙালিদের মিনি ক্যান্টনমেন্ট। প্রচুর অস্ত্রসস্ত্র মজুদ ছিল সেখানে। হানাদাররা এই অস্ত্রসস্ত্রের বলেই অঘোষিত যুদ্ধ শুরু করে। যুদ্ধের এক পর্যায়ে সেলিম গুলিবিদ্ধ হলে নিজের গায়ের সার্ট খুলে ক্ষতস্থান বেঁধে নেয়। ওর সহযোদ্ধা ক্যাপ্টেন গাড়ি ও ওয়্যারলেস নিয়ে পালিয়ে যায়। সেলিম এক সময় সহযোদ্ধাদের নিয়ে নুরী মসজিদের ভেতরে আশ্রয় নেয়। সবাইকে কলেমা পড়ায় এবং শপথ করায়, ‘আমরা যুদ্ধ করে শহীদ হব, তবুও হানাদারদের হাতে ধরা দেব না।’ তার সহযোদ্ধারা বলেছিল, ‘স্যার, আপনি আমাদের ফেলে যাবেন না।’ সেলিম প্রতিজ্ঞা করে বলেছিল, ‘আমার গায়ে একবিন্দু রক্ত থাকতে তোমাদের ফেলে যাব না।’ নিশ্চিত মৃত্যু জেনেও সেলিম এই সহযোদ্ধাদের ফেলে কাপুরুষের মতো পালিয়ে আসেনি, যদিও ইচ্ছা করলেই সে পালাতে পারত। সেলিম ওয়াদা ভঙ্গ করেনি। ও ওয়াদা ভঙ্গ করতে জানত না। বীরের মতো যুদ্ধ করে একচল্লিশজন সহযোদ্ধাসহ শহীদ হয়েছে মিরপুরে বধ্যভূমিতে। মুক্ত হল মিরপুর। মিরপুর মুক্তিদাতা লে. সেলিম মোহাম্মদ কামরুল হাসান এ ভাবেই শেষ করলেন নিজের জীবন।

ডা. এম এ হাসান : মুক্তিযুদ্ধ বিষযক গবেষক।

মুক্তচিন্তা'র আরও সংবাদ
আ ব ম খোরশিদ আলম খান

ঘরে বসে তারাবিহ্র নামাজ পড়ুন

ড. এম জি. নিয়োগী

ধান ব্যাংক

মযহারুল ইসলাম বাবলা

করোনার নির্মমতার ভেতর-বাহির

অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান চৌধুরী

শিক্ষা খাতে প্রণোদনা প্যাকেজ প্রয়োজন

মমতাজউদ্দীন পাটোয়ারী

করোনা যুদ্ধে জয়ী হওয়া

অধ্যাপক ড. অরূপরতন চৌধুরী

করোনা ভাইরাস এবং আমাদের যতœ

Bhorerkagoj