×

জাতীয়

সহকর্মীকে গুলি করা সেই পুলিশ সদস্য সম্পর্কে যা জানালেন স্ত্রী

Icon

কাগজ ডেস্ক

প্রকাশ: ১০ জুন ২০২৪, ১০:৪৬ এএম

সহকর্মীকে গুলি করা সেই পুলিশ সদস্য সম্পর্কে যা জানালেন স্ত্রী

ছবি: সংগৃহীত

রাজধানীর গুলশান থানাধীন বারিধারা ডিপ্লোম্যাটিক জোনে অবস্থিত ফিলিস্তিন দূতাবাসের সামনে ডিউটিরত অবস্থায় কনস্টেবলকে গুলি চালিয়ে হত্যা করে কনস্টেবল কাউসার আহমেদ। শনিবার (৮ জুন) দিবাগত রাতে রাজধানীর কূটনৈতিকপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। 

কাউসার কুষ্টিয়ার দৌলতপুর ইউনিয়নের দাড়েরপাড়া গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক হায়াত আলীর ছেলে। কাওসার একজন মানসিক রোগী। এমন পরিস্থিতিতে অনাকাঙ্ক্ষিত ওই ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারে বলে জানান তার স্ত্রী নিলুফা ইয়াসমিন। 

নিলুফা আরো জানান, তার স্বামীর ঘটনার বিষয়ে শনিবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে ঢাকা থেকে একজন পুলিশ কর্মকর্তা প্রথমে ফোন করেন। সেই সময় তিনি জানান তার স্বামী কাউসার পুলিশ কনস্টেবলকে গুলি করে হত্যা করেছে। ওই মর্মে তার বিরুদ্ধে মামলাও হয়েছে। তবে বিষয়টি তার ৮০ বছরের বৃদ্ধ শ্বশুর হায়াত আলীকে জানাননি তিনি।

ছেলের এমন ঘটনা শুনলে সহ্য করতে পারবেন না বলে জানানো হয়নি তাকে। বিষয়টি তার শ্বশুরকে না জানালেও তার শাশুড়ি মাবিয়া খাতুনকে জানান তিনি। মাবিয়া খাতুন তার ছেলের এমন ঘটনায় ভীষণ দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। তবে তিনি বিশ্বাস করেন তার ছেলে এমন ঘটনা ঘটাতে পারে না। 

কাউসারের স্ত্রী আরো জানান, কুরবানির ঈদে তার স্বামী বাড়ি আসবেন। এজন্য ছুটির আবেদনও করেছেন।  তার স্বামী একজন মানসিক রোগী। ২০০৫ সালের ডিসেম্বর মাসে কাউসার পুলিশে যোগদান করেন। ২০০৬ সালে তাদের বিয়ে হবার পর থেকে তিনি জানেন কাউসারের মানসিক সমস্যা রয়েছে। চাকরিরত অবস্থায় সরকারিভাবেই তাকে পাবনার মানসিক হাসপাতালে কয়েক দফা চিকিৎসা দেয়া হয়। একবার চাকরি ছেড়ে চলেও আসেন বাড়িতে। পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আবার যোগদান করেন।

তবে কাউসার মানসিক সমস্যায় থাকলেও পরিবারে কখনো ঝামেলা ছিল না। সব কিছু ঠিকঠাক মতোই চলছিল। শনিবার রাত ৩টার দিকে হঠাৎ শুনতে পান এমন দুঃসংবাদ। অথচ শনিবার রাত ৮টার দিকেও তাদের কথা হয়েছে। শ্বশুর-শাশুড়ির সঙ্গেও কথা বলেছে ঈদের ছুটিতে বাড়িতে আসবে বলে। অপ্রত্যাশিত ঘটনায় সবকিছু ওলটপালট হয়ে গেল। 

আরো পড়ুন:

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App