×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

জাতীয়

আইএমএফ

প্রাকৃতিক দুর্যোগে ঋণের ১ লাখ কোটি টাকা ক্ষতির শঙ্কা

Icon

কাগজ ডেস্ক

প্রকাশ: ১৮ মে ২০২৪, ১০:৪৫ পিএম

প্রাকৃতিক দুর্যোগে ঋণের ১ লাখ কোটি টাকা ক্ষতির শঙ্কা

ছবি: সংগৃহীত

আইএমএফ (আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিল) বলেছে, বাংলাদেশে জলবায়ুর পরিবর্তন ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে সৃষ্ট মাত্রাতিরিক্ত বন্যায় মোট বার্ষিক দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ক্ষতি হতে পারে। এ ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ দেশের আর্থিক স্থিতিশীলতা নষ্ট করতে যথেষ্ট উদ্বেগের কারণ বলে চিহ্নিত করেছে সংস্থাটি। 

সংস্থাটি আরো জানায়, এতে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর ঋণের ক্ষতি হতে পারে ১ লাখ কোটি টাকা। 

দেশজ সম্পদের ক্ষতি হতে পারে ২ লাখ ৬৬ হাজার কোটি টাকার। সম্ভাব্য এ ক্ষতি মোকাবিলায় সংস্থাটি স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘ মেয়াদে বাস্তবায়নের জন্য ১০ দফা সুপারিশ করেছে। 

শুক্রবার (১৭ মে) রাতে প্রকাশিত আইএমএফের কারিগরিক সহায়তা প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। এ প্রতিবেদনের সঙ্গে আইএমএফের ৪৭০ কোটি ডলারের ঋণের সরাসরি কোনো সম্পর্ক নেই। তবে মূল ঋণ আটকে গেলে জলবায়ুর পরিবর্তনজনিত মোকাবিলার তহবিলের ঋণও আটকে যাবে। যার পরিমাণ ১৪০ কোটি ডলার। 

আরো পড়ুন: উপজেলা নির্বাচন সংক্রান্ত সেবা মিলবে ৯৯৯-এ

প্রতিবেদনে বলা হয়, মাত্রাতিরিক্ত বন্যায় মোট জিডিপির ৬ শতাংশ ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। বর্তমানে বাংলাদেশের জিডিপির আকার ৪৪ লাখ ৪০ হাজার কোটি টাকা। একই সঙ্গে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মোট ঋণের বা সম্পদের স্থিতির ৫ শতাংশ ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। বর্তমানে ব্যাংকগুলোর ঋণ স্থিতি ২০ লাখ কোটি টাকা। 

আর্থিক খাতের ক্ষতিকর প্রভাব মোকাবেলায় সংস্থাটি কেন্দ্রীয় ব্যাংককে এ খাতের খেলাপি ঋণ, অবলোপন, সম্পদের মান বিষয়ে হালনাগাদ তথ্য সংগ্রহ করতে বলেছে। 

প্রতিবেদনে সংস্থাটি জলবায়ুর ক্ষতিকর প্রভাব মোকাবেলায় বাংলাদেশকে স্বল্প মেয়াদে ২টি, মধ্য মেয়াদে ৬টি এবং দীর্ঘ মেয়াদে ২টি শর্ত বাস্তবায়নের সুপারিশ করেছে। 

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, বাংলাদেশের অর্থনীতি একাধিক সামষ্টিক অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে এগোচ্ছে। ইউক্রেনের যুদ্ধ বাহ্যিক চাপকে তীব্র করে তোলে এবং করোনার ক্ষতি পুনরুদ্ধারে বাধার সৃষ্টি করে। বৈশ্বিক কারণে বিশ্বব্যাপী দ্রব্যমূল্যের বৃদ্ধি, সরবরাহ ব্যবস্থা বাধাগ্রস্ত হওয়ায় দেশটির অর্থনীতিও প্রবল চাপে পড়ে। এ কারণে বৈদেশিক মুদ্রার চলতি হিসাবে ঘাটতি বেড়েছে, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ কমছে এবং মূল্যস্ফীতির হার বাড়ছে। আর মূলত এসব কারণেই বেশ চাপ যাচ্ছে দেশের অর্থনীতিতে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App