×

জাতীয়

আন্তর্জাতিক নারী দিবস আজ

Icon

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৮ মার্চ ২০২৪, ০৮:১৭ এএম

আন্তর্জাতিক নারী দিবস আজ

ছবি: ভোরের কাগজ

আন্তর্জাতিক নারী দিবস আজ শুক্রবার। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য ‘নারীর সমঅধিকার, সমসুযোগ এগিয়ে নিতে হোক বিনিয়োগ’। আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে প্রতি বছরই সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে থাকে নানা আয়োজন। প্রতি বছরের মতো এবারো দিবসটি শুরুর প্রাক্কালে মোমবাতি জ্বালিয়ে আঁধার ভাঙার শপথ নেয় আমরাই পারি জোট। 

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সম্মিলিতভাবে মোমবাতি প্রজ্বালনের মাধ্যমে এই শপথ নেয়া হয়। অনুষ্ঠানে অংশ নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তি ও সাধারণ মানুষ।

দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ পাঁচ জয়িতাকে সম্মাননা দেয়া হবে। অর্থনৈতিকভাবে সাফল্য অর্জন করায় রাজশাহীর কল্যাণী মিনজি, ময়মনসিংহের আনার কলি, বরগুনার জাহানারা বেগম, সিলেটের চা শ্রমিক কমলী রবিদাশ ও খুলনার পাখি দত্ত হিজরাকে পদক দেয়া হবে।

সামাজিক প্রতিরোধ কমিটি আয়োজন করছে সমাবেশ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও র‌্যালি। বিকাল সাড়ে ৩টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বোপার্জিত স্বাধীনতা চত্বরে ‘বৈষম্যপূর্ণ পারিবারিক আইন পরিবর্তন করো, নারীর অগ্রসর হওয়ার প্রতিবন্ধকতা দূর করতে বরাদ্দ বৃদ্ধি কর’- প্রতিপাদ্য নিয়ে এই আয়োজন শুরু হবে। জাতীয় পর্যায়ের ১৩টি অধিকারভিত্তিক সংগঠনের উদ্যোগে আগামীকাল শনিবার বেলা ১১টায় রাজধানীর আসাদ এভিনিউয়ে এক মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করবে।

দিবসটি উপলক্ষে আজ ধানমন্ডির রবীন্দ্র সরোবরে বিকাল সাড়ে ৪টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত ‘মোরা আকাশের মতো বাধাহীন’ শিরোনামে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সংহতি মিলনায়তনে সকাল সাড়ে ১০টায় ‘বিপন্ন দেশে বিপন্ন নারী ও মুক্তির লড়াই’ শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করেছে শ্রমজীবী নারী মৈত্রী। এছাড়া জাতীয় প্রেস ক্লাব, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিসহ বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন দিবসটি উপলক্ষে নানা কর্মসূচি পালন করবে।

প্রেক্ষাপট : ১৮৫৭ সালের ৮ মার্চ যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে একটি সুঁচ কারখানার নারী শ্রমিকরা দৈনিক শ্রম ১২ ঘণ্টা থেকে কমিয়ে ৮ ঘণ্টায় আনা, ন্যায্য মজুরি এবং কর্মক্ষেত্রে সুস্থ ও স্বাস্থ্যকর পরিবেশ নিশ্চিত করার দাবিতে সোচ্চার হন। আন্দোলন করার অপরাধে গ্রেপ্তার হন বহু নারী। কারাগারে নির্যাতিত হন অনেকেই। ৩ বছর পরে ১৮৬০ সালের একই দিনে গঠন করা হয় ‘নারী শ্রমিক ইউনিয়ন’। ১৯০৮ সালে পোশাক ও বস্ত্রশিল্পের কারখানার প্রায় দেড় হাজার নারী শ্রমিক একই দাবিতে আন্দোলন করেন। 

অবশেষে আদায় করে নেন দৈনিক ৮ ঘণ্টা কাজ করার অধিকার। ১৯১০ সালের এই দিনে ডেনমার্কের কোপেনহেগেনে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক সমাজতান্ত্রিক সম্মেলনে জার্মানির নেত্রী ক্লারা জেটকিন ৮ মার্চকে আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিসেবে ঘোষণা করেন। এরপর থেকেই সারা বিশ্বে দিবসটি আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। জাতিসংঘ ১৯৭৫ সালে আন্তর্জাতিক নারীবর্ষে ৮ মার্চকে আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিসেবে পালন করা শুরু করে। এর দুই বছর পর ১৯৭৭ সালে জাতিসংঘ দিনটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App