×

জাতীয়

বেনাপোল এক্সপ্রেসে আগুন

যেভাবে শনাক্ত হলো এলিনার মরদেহ

Icon

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশ: ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২:৪৯ পিএম

যেভাবে শনাক্ত হলো এলিনার মরদেহ

রাজধানীর গোপীবাগে গত ৫ জানুয়ারি রাতে বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিখোঁজ এলিনা ইয়াসমিনের (৪০) মরদেহ শনাক্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন এলিনা ইয়াসমিনের চাচা নজরুল ইসলাম। নিহত এলিনা ইয়াসমিন রাজবাড়ী পৌরসভার নুরপুর গ্রামের সাজ্জাদ হোসেনের স্ত্রী।

এলিনা ইয়াসমিনের চাচা নজরুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, গত ৫ জানুয়ারি রাতে বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেন দুর্ঘটনায় দগ্ধ এলিনা ইয়াসমিনের মরদেহ ঢাকা মেডিকেলে ডিএনএ টেস্টের মাধ‍্যমে শনাক্ত করা হয়েছে। বিষয়টি ঢাকা মেডিকেল কর্তৃপক্ষ টেলিফোনে আমাদেরকে জানিয়েছেন। ১৫ ফেব্রুয়ারি মরদেহ আমাদের কাছে হস্তান্তর করার কথা রয়েছে। মরদেহ হস্তান্তর করা হলে পরবর্তীতে জানাজার নামাজের সময় ও স্থান জানানো হবে।

তিনি আরো বলেন, এলিনা তার বাবার কুলখানি শেষ করে ৬ মাসের শিশু সন্তান, বোন ডেইজি আক্তার রত্না, বোন জামাই ইকবাল বাহার ও তা‌দের দুই সন্তানসহ বেনা‌পোল এক্স‌প্রেস ট্রেনে ‘চ’ ব‌গি‌তে ঢাকায় যা‌চ্ছিলেন। রাজবাড়ী রেলস্টেশন থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। মাঝে একবার তাদের সঙ্গে কথা হয়েছিল। কিন্তু রাত সাড়ে ৯টার দিকে গোপীবাগ এলাকায় ট্রেনে আগুন লাগার ঘটনার পর থেকেই নিখোঁজ ছিল এলিনা।

 উল্লেখ্য, বেনাপোল এক্সপ্রেস ১৫৪ যাত্রী নিয়ে ৫ জানুয়ারি দুপুর ১টায় বেনাপোল থেকে ঢাকার কমলাপুর স্টেশনের উদ্দেশে ছেড়ে আসে। পথে ১১টি স্টেশনে বিরতি নেয় বেনাপোল এক্সপ্রেস। তখন ওই ট্রেনে কমলাপুরগামী যাত্রী ছিলেন ৪৯ জন। রাত ৯টার দিকে ঢাকায় পৌঁছানোর কথা থাকলেও গোপীবাগ এলাকায় পৌঁছালে আগুনের ঘটনা ঘটে। এতে ট্রেনের চারটি বগি পুড়ে গেছে। এসব বগিতে থাকা চার জনের মৃত্যু হয়েছে। দগ্ধ হয়েছেন বেশ কয়েকজন। এ ঘটনায় আরো দুইজন নিখোঁজ রয়েছেন। তারা হলেন- চন্দ্রিমা চৌধুরী ওর‌ফে সৌমি (২৮) ও আবু তালহা(২৮)। চন্দ্রিমা ও আবু তালহার মরদেহ এখনো শনাক্ত করা যায়নি।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App