×

আন্তর্জাতিক

পর্ন তারকাকে ঘুষ: নির্বাচনে কতটা প্রভাব ফেলবে ট্রাম্পের রায়?

Icon

কাগজ ডেস্ক

প্রকাশ: ০১ জুন ২০২৪, ১০:৫২ এএম

পর্ন তারকাকে ঘুষ: নির্বাচনে কতটা প্রভাব ফেলবে ট্রাম্পের রায়?

ছবি: সংগৃহীত

পর্ন তারকার সঙ্গে সম্পর্ক চেপে রাখতে তাকে ঘুষ দেয়ার মামলায় দোষী সাব্যস্ত হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের পাতায় আলাদা জায়গা করে নিয়েছেন সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। ট্রাম্পই দেশটির প্রথম সাবেক প্রেসিডেন্ট, যিনি ফৌজদারী অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত হয়েছেন। অপরাধের দায় মাথায় নিয়ে আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রধান কোনো দলের সম্ভাব্য প্রার্থীও তিনি। আসছে ১১ জুলাই এ মামলায় ট্রাম্পের সাজা ঘোষণা হবে। তাতে তার কারাদণ্ড এবং মোটা অঙ্কের জরিমানা হতে পারে। ট্রাম্প অবশ্য আদালতের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল করার পরিকল্পনা করছেন। এই রায় ট্রাম্পের রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের পতন ডেকে আনবে কি না, স্বাভাবিকভাবেই সে আলোচনা সামনে আস। এখন প্রশ্ন হল, ট্রাম্পের মামলার বিচার তার ক্যারিয়ারে কতটা প্রভাব ফেলবে?

বিবিসি লিখেছে, ট্রাম্পের এই সমীকরণটি জটিলই হবে। ফৌজদারি অপরাধের কারণে রাজনৈতিক পতনের ঘটনা যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে আগে কখনো ঘটেনি। সাদার্ন মেথোডিস্ট ইউনিভার্সিটির সেন্টার ফর প্রেসিডেন্সিয়াল হিস্ট্রির ডিরেক্টর জেফরি অ্যাঙ্গেল বলেন, সামনে কী ঘটতে চলেছে সে ইঙ্গিত পেতে আমরা অনেক সময় ইতিহাসের দিকে তাকাই। কিন্তু সেরকম কিছু বা তার কাছাকাছি কিছুও যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে নেই। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়ার জন্য রিপাবলিকান দলের হয়ে মনোয়ন নিশ্চিত করেছেন ট্রাম্প। সাজা ঘোষণার কিছুদিন পরেই আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে প্রার্থী ঘোষণা করার কথা রয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন নিয়ে জরিপগুলোতে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও ডনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস পওয়া যাচ্ছে। যে রাজ্যগুলো নির্বাচনের ফল বদলে দিতে পারে, দোদল্যুমান সেইসব রাজ্যের অনেকগুলোতে ট্রাম্পকে সামান্য এগিয়ে থাকতেও দেখা যাচ্ছে জরিপে। আবার জরিপগুলো এও দেখাচ্ছে, ট্রাম্পের দণ্ডাদেশ সবকিছু বদলে দিতে পারে। গত শীতে রিপাবলিকানদের প্রার্থী বাছাইয়ের প্রাথমিক নির্বাচনের সময়ে একটি মতামত জরিপ চালানো হয়েছিল। সেখানে দ্বিগুণ সংখ্যক ভোটার বলেছিলেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প দোষী সাব্যস্ত হলে তারা তাকে ভোট দেবেন না। 

গত এপ্রিলে বাজার গবেষণা কোম্পানি ‘আইপিএসওএস’ এবং এবিসি নিউজের জরিপে দেখা যায়, ট্রাম্প দোষী প্রমাণিত হলে তার ১৬ শতাংশ সমর্থক ভোটের সিদ্ধান্তের ব্যাপারে পুনর্বিবেচনা করবেন। সে সময়ে ট্রাম্প চারটি ফৌজদারি মামলার মুখে ছিলেন। এর মধ্যে ২০২০ সালের নির্বাচনের ফল উল্টে দেওয়ার কথিত ষড়যন্ত্রের অভিযোগ এবং হোয়াইট হাউস ছাড়ার সময় নথি হস্তান্তর নিয়ে মামলাও ছিল। ট্রাম্পের দোষী সাব্যস্ত হওয়ার সম্ভাবনার ভিত্তিতে সে সময় জরিপ চালানো হয়েছিল। ভোটারদের উত্তর ছিল অনুমাননির্ভর। আর এখন ফৌজদারি মামলার সত্যিই দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন ট্রাম্প। ভোটাররাও সেভাবেই তাদের সিদ্ধান্ত নেবেন।

বিচার চলাকালে আদালত থেকে বেরিয়ে ট্রাম্প বলেছিলেন, আগামী ৫ নভেম্বর জনগণ প্রকৃত রায় দিতে চলেছে। ডেমোক্রেটিক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন ও নিউ ইয়র্ক সিটি মেয়র মাইকেল ব্লুমবার্গের সঙ্গে কাজ করা জনমত জরিপ পরিচালনকারী ডগ শোয়েন বলেন, পর্ন তারকার সঙ্গে সম্পর্ক চেপে রাখতে ঘুষ দেওয়ার বিষয়টিকে আমেরিকানরা বড় কোনো বিষয় নাও ভাবতে পারে। আর ঘটনাটা আট বছর আগের। নভেম্বরে নির্বাচনে ভোটাররা যে জিনিসগুলো নিয়ে ভাবছেন, তা হল- মুদ্রাস্ফীতি, মেক্সিকো সীমান্ত, চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে প্রতিযোগিতা এবং ইসরায়েল ও ইউক্রেনে ব্যয় করা অর্থের মত বিষয়গুলো। 

আবার রায়ের ফলে ট্রাম্পের সমর্থন সামান্য কমলেও প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তা বড় কোনো প্রভাব ফেলবে বলে মনে হয় না। সমর্থন সামান্য কমার পরও জোরালো প্রতিদ্বন্দ্বিতা হতে পারে। উইসকনসিন বা পেনসিলভানিয়ার মত গুরুত্বপূর্ণ রাজ্যের ট্রাম্পের কয়েক হাজার ভোটার যদি তাকে ভোট না দিয়ে ঘরে বসে থাকেন, তখন বড় পার্থক্য হতে পারে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App