×

শিক্ষা

বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধের 'নাটক' বন্ধ করতে প্রশাসনকে আহ্বান

Icon

ঢাবি প্রতিনিধি

প্রকাশ: ৩০ মার্চ ২০২৪, ০৯:৪৪ পিএম

বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধের 'নাটক' বন্ধ করতে প্রশাসনকে আহ্বান

ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন

একজন মানুষের মৌলিক অধিকার ও সংবিধান বিরোধী-ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধের যে নাটক বুয়েট ক্যাম্পাসে শুরু হয়েছে সেটি বন্ধ করতে হবে। পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে সব শিক্ষার্থীর হলে থাকার নিরাপত্তা নিশ্চিতের আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন।  

গত ২৮ মার্চ রাতে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের প্রবেশ নিয়ে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ২১ ব্যাচের পুরকৌশল বিভাগের শিক্ষার্থী ইমতিয়াজ হোসেন রাহিমের আবাসিক আসন বাতিলের পরিপ্রেক্ষিতে শনিবার (৩০ মার্চ) ভোরের কাগজের সঙ্গে আলাপকালে সংগঠনটির সভাপতি সাদ্দাম হোসেন এই আহ্বান জানান। 

এ সময় তিনি বলেন, অনতিবিলম্বে ইমতিয়াজ হোসেন রাহিমের সিট বাতিলের সিদ্ধান্ত বাতিল করতে হবে। এছাড়াও ১৭ মার্চ ও ২৬ মার্চসহ জাতীয় দিবসগুলো পালন ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে কথা বলার কারণে অনেক শিক্ষার্থীকেই মানসিক নিপীড়নের শিকার হতে হচ্ছে, এই ঘটনার সঙ্গে যারা দায়ী তাদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে ব্যবস্থা নিতে হবে। 

এর আগে গত বুধবার রাত দেড়টায় বুয়েটের মূল ফটক দিয়ে মোটরসাইকেল ও গাড়ি নিয়ে সাদ্দাম হোসেনসহ ছাত্রলীগের অন্তত ৭০-৮০ জন নেতাকর্মী ক্যাম্পাসে প্রবেশ করেন। এ সময় বুয়েট ক্যাফেটেরিয়ার সেমিনার কক্ষে বৈঠক শেষে সেখানে খাওয়া-দাওয়া করেন নেতাকর্মীরা।

আরো পড়ুন: ৬ জনকে বহিষ্কারসহ নতুন দাবি বুয়েট শিক্ষার্থীদের

এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৯ মার্চ বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) কর্তৃক বিশ্ববিদ্যালয়ের ২১ ব্যাচের পুরকৌশল বিভাগের শিক্ষার্থী ইমতিয়াজ হোসেন রাহিমের আবাসিক হলের বরাদ্দকৃত সিট বাতিলের ঘোষণা দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। 

সিট বাতিলের বিষয়ে ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দাম হোসেন বলেন, বুয়েট শিক্ষার্থীর হলে আসন বাতিলের সিদ্ধান্তকে আমরা একটি অন্যায্য সিদ্ধান্ত মনে করছি। আমরা মনে করি এটি সম্পূর্ণ অন্যায্য, অসাংবিধানিক, মৌলিক অধিকার পরিপন্থি এবং এটি একটি শিক্ষাবিরোধী কর্মকাণ্ড। বুয়েটের একজন শিক্ষার্থীর যেমন রাজনীতি না করার অধিকার আছে ঠিক তেমনি একজন শিক্ষার্থীর রাজনীতি করারও অধিকার রয়েছে। অন্যায়ভাবে একজন শিক্ষার্থীও যদি ক্ষতিগ্রস্ত হয় সেক্ষেত্রে আমরা ছাত্রসমাজকে সঙ্গে নিয়ে আন্দোলনের মধ্য দিয়ে ফয়সালা করবো। 

তিনি আরো বলেন, ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ করার নাম দিয়ে বুয়েটে নিষিদ্ধ ছাত্ররাজনীতির চর্চা শুরু হয়েছে। হিজবুত তাহরির, ইসলামী ছাত্রশিবিরসহ বিভিন্ন উগ্র ও মৌলবাদী ছাত্রসংগঠন এখানে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছে এবং তাদের রিমোট কন্ট্রোলের মাধ্যমেই সাধারণ শিক্ষার্থীদের আবেগ অনুভূতিকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। এটির মাধ্যমে যে রাজনৈতিক এজেন্ডা বাস্তবায়নের চেষ্টা করছে আমরা সেটির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাই। 

বুয়েট প্রশাসনের কাছে দাবি জানিয়ে তিনি আরো বলেন, বুয়েটে নিয়মতান্ত্রিক ছাত্ররাজনীতি প্রতিষ্ঠা, প্রত্যেকটি শিক্ষার্থীর শিক্ষার অধিকার, সাংবিধানিক অধিকার, মৌলিক অধিকারের সুরক্ষা নিশ্চিতের জন্য বুয়েট প্রশাসনকে জরুরিভাবে দাবি জানাচ্ছি। 

আরো পড়ুন: দেশে প্রাথমিকে ২৫ ও মাধ্যমিকে ৫১ শতাংশ শিক্ষা ব্যয় বেড়েছে

বুয়েট ক্যাম্পাসে যাওয়ার বিষয়ে ছাত্রলীগ সভাপতি আরো বলেন, পৃথিবীর যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার অধিকার আমার রয়েছে। শুধু তাই নয়, এখানে আমার যাওয়াকে কেন্দ্র করে একটি নন-ইস্যুকে ইস্যুতে রূপান্তরিত করা হচ্ছে। আমরা বিভিন্নখানে যাই, আড্ডা দেই, সামাজিক সচেতনতামূলক সম্পর্ক থাকে। সেদিন আমি শহীদ মিনারে গিয়েছিলাম। সেখানে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেছি। তবে ঝুম বৃষ্টির কারণে ক্যাফেটেরিয়ায় গিয়েছি। এটি একটি সাধারণ বিষয়। এটির সঙ্গে রাজনীতির কোনো সম্পর্ক নাই। 

তিনি আরো বলেন, বুয়েটে অবশ্যই ছাত্ররাজনীতি থাকতে হবে। যদিও এই ঘটনাটির সঙ্গে রাজনীতির কোনো সম্পর্ক নাই। কিন্তু এই ঘটনা নিয়ে যারা অপরাজনীতি করছে তারাই নিষিদ্ধ রাজনীতির পক্ষে সাফাই গাইছে বলে আমি মনে করছি।

এদিকে বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি করতে দেয়ার দাবিতে আগামীকাল (রবিবার) সকাল ১১টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করবে ছাত্রলীগ। 

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার পর শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে বুয়েট ক্যাম্পাসে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ করা হয়। বুধবার মধ্যরাতে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা বুয়েট ক্যাম্পাসে প্রবেশ করলে এর প্রতিবাদে টানা দুদিন ধরে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন শিক্ষার্থীরা। পাঁচ দফা দাবিতে রবিবারও অবস্থান কর্মসূচির ডাক দেয়া হয়েছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App