×

অর্থনীতি

ইআরএফ-বিসিসির কর্মশালা

নিয়ম ভাঙলে প্রতিষ্ঠিত কোম্পানির বিরুদ্ধেও মামলা

Icon

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশ: ২৯ জুন ২০২৪, ০৯:২৭ পিএম

নিয়ম ভাঙলে প্রতিষ্ঠিত কোম্পানির বিরুদ্ধেও মামলা

ছবি: ভোরের কাগজ

নিয়ম ভঙ্গ করে ব্যবসা করলে প্রতিষ্ঠিত কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা করা হচ্ছে। কোনো ছাড় নেই বলেও মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের (বিসিসি) চেয়ারপারসন প্রদীপ রঞ্জন চক্রবর্তী।

শনিবার (২৯ জুন) রাজধানীর পল্টনে ইকোনমিক রির্পোটার্স ফোরাম (ইআরএফ) কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে ‘প্রতিযোগিতা আইন বাস্তবায়নে গণমাধ্যমের ভূমিকা’ শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 

বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন ও ইআরএফেরে যৌথ উদ্যোগে এই কর্মশালা অনুষ্টিত হয়। ইআরএফ সভাপতি মোহাম্মদ রেফায়েত উল্লাহ মীরধার সভাপতিত্বে মূল প্রকল্প উপস্থাপন করে বিসিসির সদস্য ও অতিরিক্ত সচিব মো. হাফিজুর রহমান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিসিসির সদস্য মো. মোস্তাফিজুর রহমানসহ অন্যরা। 

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বিসিসি চেয়ারপারসন প্রদীপ রঞ্জন চক্রবর্তী বলেন, ‘ফুডপান্ডা, জাপান ট্যোবাকোসহ দেশের বহু প্রতিষ্ঠিত কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। সেগুলোর উপর শুনানী হওয়ার পর জরিমানাও করা হয়েছে। অভিযোগ প্রমানিত হওয়ার পর জরিমানা করা অনেক কোম্পানি আবার নিয়ম ভঙ্গ করায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। কোনো চাপের কাছে মাথা নত করা হয়নি। নিয়ম মেনে ব্যবসা না করায় এসব মামলা করা হয়েছে। 

আরো পড়ুন: নিত্যপণ্যের দাম নাগালে রাখতে সাপ্লাই-চেইন স্থিতিশীল রাখার আহ্বান

তিনি আরো বলেন, ২০১২ সালে বিসিসি প্রতিষ্ঠিত হলেও ২০১৬ সালে এর কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত বহু প্রতিষ্ঠিত কোম্পানির বিরুদ্ধে ৯৭টি মামলা করা হয়েছে। তার মধ্যে ৫১টির নিস্পত্তি হয়েছে। বিভিন্ন মিডিয়ায় নিউজ প্রকাশের পর প্রথমে আমরা অনুসন্ধান করি। এরপর তদন্ত করে স্বপ্রনোদিত হয়ে আমরা মামলা করি। অভিযোগ প্রমানিত হলে তাদের জরিমানা করা হয়েছে। কোনো ছাড় দেয়া হয়নি। তাদের দন্ডিত করা হয়েছে। কোনো কোম্পানির লাভের একটা অংশ জরিমানা করা হয়েছে। আইনের ১৫ ধারার ক্ষমতা বলে অপরাধ প্রমানিত হওয়ায় এসব জরিমানা করা হয়েছে।’ 

সাবেক এই সচিব বলেন, ‘ওটিএম পদ্ধতি না মানায় একটি হাসপাতালকেও জরিমানা করা হয়েছে। তবে একেবারে রাতারাতি পরিবর্তন করা যাবে না। সবকিছু মোকাবেলা করার জন্য আমাদের সক্ষমতার অভাব রয়েছে। তবে চেষ্টা করা হচ্ছে প্রতিযোগিতা কমিশনকে সবার দ্বারে নিয়ে যাওয়ার। ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে মুখোমুখি হওয়া আমাদের কাজ না। কারণ এর লেগুলেশন হচ্ছে ব্যবসাবান্ধব।’ 

বিসিসি সদস্য হাফিজুর রহমান মূল প্রবন্ধে বলেন, ‘একাধিক পণ্য বা কোম্পানি থাকলে কেউ বাজারে মনোপলি করতে পারে না। প্রতিযোগিতা থাকলে কাস্টমারের সঙ্গে ভোক্তারাও নায্যমূল্য পান। বাজারে প্রতিযোগিতা আইন কার্যকর হলে জিডিপিতে ২ শতাংশ অবদান রাখে। কারণ এই আইন কার্যকর হলে অনেকে বিনিয়োগে সাহস পান। তাই বিনিয়োগও বাড়ে। কেউ যোগসাজস করে সিন্ডিকেট করলে সেই অভিযোগ প্রমানিত হলে শাস্তি অবধারিত। তাদের লাভের একটা অংশ বা টার্নওভারের একটা অংশ জরিমানা করা হয়।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App