×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

অর্থনীতি

বাংলাদেশ হতে পণ্য আমদানির জন্য যুক্তরাজ্যের প্রতি ডিসিসিআইর আহ্বান

Icon

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০২ জুন ২০২৪, ০৫:৩৫ পিএম

বাংলাদেশ হতে পণ্য আমদানির জন্য যুক্তরাজ্যের প্রতি ডিসিসিআইর আহ্বান

ছবি: ভোরের কাগজ

যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের মোট রপ্তানির প্রায় ৯৪ শতাংশই তৈরি পোষাক নির্ভর, যার পরিমাণ ৫.০৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, তবে বাংলাদেশের রপ্তানির সম্ভাবনাময় পণ্য সমূহ আরো বেশি হারে আমদানির জন্য যুক্তরাজ্যের প্রতি আহ্বান জানান ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) সভাপতি আশরাফ আহমেদ। 

রবিবার (২ জুন) বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাজ্যের হাইকমিশনার সারাহ কুকের সঙ্গে ডিসিসিআইর দ্বিপাক্ষিক মতবিনিময় সভায় তিনি এ আহ্বান জানান।

যুক্তরাজ্যের হাইকমিশনারকে স্বাগত জানিয়ে অনুষ্ঠানের স্বাগত বক্তব্যে ডিসিসিআই সভাপতি আশরাফ আহমেদ বলেন, ২০২৩ অর্থবছরে বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের পরিমাণ ছিলো ৫.৭৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যেখানে আমদানি-রপ্তানির পরিমাণ ছিলো যথাক্রমে ৪১৫.৩২ মিলিয়ন এবং ৫.৩১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশী পণ্য রপ্তানির ৩য় বৃহত্তম গন্তব্যস্থল হলো যুক্তরাজ্যের বাজার, এছাড়াও সেদেশের উদ্যেক্তারা বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতের বিনিয়োগের পরিমাণ প্রায় ৩.০৪ বিলিয়ন ডলার। ফাইন্যান্স, স্বাস্থ্যসেবা, ফিনটেক, বিপিও, বিপিএস, পর্যটন এবং শিক্ষাখাতে দুদেশের অর্থনৈতিক সহযোগিতা আরো সম্প্রসারণের যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে বলেও তিনি মত প্রকাশ করেন। 

ঢাকা চেম্বার সভাপতি জানান, টেকনিক্যাল নো-হাউ, তথ্য-প্রযুক্তি খাতে উদ্ভাবন ও দক্ষতা উন্নয়ন, আর্টিটেকচার এবং স্বাস্থ্যসেবা খাতে যৌথ বিনিয়োগের ভালো সম্ভাবনা রয়েছে। বাংলাদেশের এলডিসি উত্তরণ পরবর্তী সময়ে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্প্রসারণে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি স্বাক্ষরে সরকারী পর্যায়ের উদ্যোগ গ্রহণেরও দাবী জানান আশরাফ আহমেদ। বাংলাদেশের অর্থনীতির অগ্রাধিকার বিষয়সমূহ যেনো দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য আলোচনায় অগ্রাধিকার পায়, সে বিষয়সমূহকে প্রাধান্য দেয়ার উপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন। ঢাকা চেম্বার সভাপতি বলেন, বাংলাদেশে যুক্তরাজ্যের বৈদেশিক বিনিয়োগ যত সম্প্রসারিত হবে, দুদেশের বেসরকারিখাতের মধ্যকার সমন্বয় আরো বৃদ্ধি পাবে। 

আরো পড়ুন: পোশাক খাতের অর্জনকে কাজে লাগিয়ে ব্র্যান্ডিং জোড়ালোর তাগিদ

বৃটিশ হাইকমিশনার সারাহ কুক বলেন, অর্থনৈতিক ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে কাজ করতে যুক্তরাজ্য আগ্রহী। তিনি বলেন, বাংলাদেশের এলডিসি উত্তরণ পরবর্তী সময়ে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় তার দেশ প্রয়োজনীয় সহযোগীতা অব্যাহত রাখবে, তবে এলডিসি পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের রপ্তানি বাজার ধরে রাখতে হলে বাংলাদেশেকে তৈরি পোষাক ছাড়াও অন্যান্য রপ্তানি পণ্যের বহুমূখীকরণের কোনো বিকল্প নেই বলে জানান তিনি। 

হাইকমিশনার আরো বলেন, কৃষি, সী-ফুড, চামড়াজাত পণ্য এবং হালকা-প্রকৌশল বিশেষ করে বাইসাইকেল প্রভৃতি পণ্য যুক্তরাজ্যের বাজারে রপ্তানির প্রচুর সম্ভাবনা রয়েছে, এক্ষেত্রে বাংলাদেশী উদ্যোক্তাদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। এছাড়াও রপ্তানী পণ্যের বাজার সম্প্রসারণে উৎপাদিত পণ্যের গুণগত মান বজায় রাখার উপর অধিক হারে মনোনিবেশ করতে হবে। বিদেশী বিনিয়োগ আকর্ষনে সংশ্লিষ্ট নীতি সহায়তা ও নীতির ধারাবাহিকতা একান্ত অপরিহার্য, সেই সঙ্গে পণ্যের মেধাসত্ব সুরক্ষা, বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি (এডিআর) কার্যকর ব্যবহার ও ব্যবসায়িক মুনাফা প্রত্যাবর্তন প্রভৃতি বিষয়ে বাংলাদেশকে আরো মনোযোগী হওয়ার আহ্বান জানান। তিনি বাংলাদেশের জিডিপিতে করের অবদান বাড়ানোর উপর জোরারোপ করেন। দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের অধিকতর উন্নয়নে তিনি বাংলাদেশ হতে আরো বেশি সংখ্যক বাণিজ্য প্রতিনিধিদলের যুক্তরাজ্য বাণিজ্য সফরে যাওয়ার আহ্বান জানান। 

ডিসিসিআই সহ-সভাপতি মো. জুনায়েদ ইবনে আলীসহ পরিচালনা পর্ষদের সদস্যবৃন্দরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App