×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

সারাদেশ

আলোচিত কনটেন্ট ক্রিয়েটর ঈসমাইল পুলিশ হেফাজতে

Icon

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশ: ১০ জুলাই ২০২৪, ০৩:২০ এএম

আলোচিত কনটেন্ট ক্রিয়েটর ঈসমাইল পুলিশ হেফাজতে

আলোচিত কনটেন্ট ক্রিয়েটর ঈসমাইল পুলিশ হেফাজতে

ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট উপজেলার আলোচিত কনটেন্ট ক্রিয়েটর ঈসমাইল হোসেন ধর্ষণের অভিযোগে এখন পুলিশ হেফাজতে রয়েছে। মঙ্গলবার (৯ জুলাই) দুপুরে এক নারীর দায়ের করা ধর্ষণের অভিযোগে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়।

হালুয়াঘাট উপজেলার খন্দকপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ভুক্তভোগী কিশোরীর মা এই অভিযোগ দায়ের করেন। তবে ঘটনাটি ধর্ষণ কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানান হালুয়াঘাট থানার ওসি মো. মাহাবুবুল হক। 

তিনি বলেন, ঈসমাইলের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের হলেও এখন জানা যাচ্ছে ভুক্তভোগী তরুণী ঈসমাইল হোসেনের দ্বিতীয় স্ত্রী। গোপনে সে এক বছর আগে ওই কিশোরীকে বিয়ে করেছিল। সম্প্রতি তাকে তালাক দেওয়ায় কিশোরীর মা থানায় এই ধর্ষণের অভিযোগ করে। 

এ ঘটনায় ঈসমাইলকে থানায় ডেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। যদি তিনি বিয়ের ডকুমেন্ট দেখাতে পারেন তাহলে ঘটনাটি ভিন্ন রকম হবে। তবে এখনই এই বিষয়ে স্পষ্ট কিছু বলা যাচ্ছে না। ঘটনাটি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে ভুক্তভোগীর মা বলেন, বাসায় মেয়েকে রেখে জীবিকা নির্বাহে প্রতিদিনের মতো মানুষের বাসায় কাজ করতে যান। সেই সুযোগে আলোচিত কনটেন্ট ক্রিয়েটর ঈসমাইল হোসেন একা বাড়িতে এসে মেয়েকে কু-প্রস্তাব দিত। একপর্যায়ে ইচ্ছার বিরুদ্ধে থাকে ধর্ষণ করতো। পরে ঈসমাইল হোসেন তার বাড়িতে ৫ হাজার টাকা মাসিক বেতনে কাজ করার প্রস্তাব দেন তার মেয়েকে। অভাব অনটনের সংসার সামাল দিতে না পারায় ঈসমাইলের কথায় মেয়েকে তার বাড়িতে ঝি এর কাজ করার জন্য রাজি হয়ে যায়। প্রতিমাসে তাকে পাঁচ হাজার টাকা করে কাজের মজুরি দিতে থাকে।

তবে অসৎ উদ্দেশ্যে মেয়েকে বিভিন্নভাবে লোভ লালসা দেখিয়ে প্রায় ৫/৬ মাস তাদের বাড়িতে রেখে মেয়ের ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগে জানা যাচ্ছে। 

মেয়ের মা বলেন, কিছুদিন পূর্বে তার মেয়ে তাকে বিয়ের প্রস্তাব দিলে এতে রাজি না হয়ে তাকে উল্টো হুমকি দেয়। ৬ জুন রাতে আমি বাড়িতে না থাকায় মেয়েকে একা পেয়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে জোরপূর্বক ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করে। বিষয়টি মেয়ে আমাকে খুলে বললে আমি এলাকার লোকজনদের বিষয়টি জানিয়েছি। এলাকায় কোন বিচার না পেয়ে থানায় এসে অভিযোগ করতে বাধ্য হই।  

প্রসঙ্গত, ময়মনসিংহের সীমান্তবর্তী হালুয়াঘাট উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রামে বসে ভিডিও বানিয়ে অনলাইন দুনিয়ায় হইচই ফেলে দিয়েছেন ইসমাঈল হোসেন ও তার ছোট ভাই এনামুল হাসান। তাদের দলে কাজ করছেন আরো অন্তত ৮ থেকে ১০ সদস্য। যাদের প্রায় সবাই ছিলেন দিনমজুর।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App