×

সারাদেশ

পুলিশের ওপর হামলা করে আসামি ছিনতাই

Icon

কাগজ ডেস্ক

প্রকাশ: ০৯ জুন ২০২৪, ১০:৫১ এএম

পুলিশের ওপর হামলা করে আসামি ছিনতাই

গতকাল রাত ১১টায় চট্টগ্রামের আনোয়ারার চাতরী চৌমুহনী বাজারে জনতা পুলিশ সংঘর্ষের সময় কাঠের বক্স হাতে মারমুখি এক ব্যক্তি। ছবি: সংগৃহীত

চট্টগ্রামে দলবল নিয়ে পুলিশের ওপর হামলা করে আসামি ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে আনোয়ারা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কাজী মোজাম্মেলের বিরুদ্ধে। শনিবার (৯ জুন) রাত ১১টার দিকে আনোয়ারার টানেল রোডের মুখে ভোজনবাড়ি রেস্টুরেন্ট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। 

এর আগে গত শুক্রবার আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনায় কর্ণফুলী থানায় মামলা হয়। মামলার আসামি মোজাম্মেল হককে গ্রেপ্তার করতে গেলে আনোয়ারা ও কর্ণফুলী থানার পুলিশের সঙ্গে স্থানীয় লোকজনের সংঘর্ষ বাধে।  এসময় লোকজন মোজাম্মেল হককে ছিনিয়ে নেয়। মোজাম্মেল হক আনোয়ারা উপজেলার নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান কাজী মোজাম্মেল হকের সমর্থক। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী মোজাম্মেল হক অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খানের অনুসারী বলে জানা গেছে।

হামলার ঘটনায় অন্তত পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন কর্ণফুলী থানার ওসি জহির হোসেন। ওসি জহির আরো বলেন, শুক্রবার আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় কর্ণফুলী থানায় মামলা হয়। শনিবার রাতে টানেল রোডের মুখে ওই মামলার অন্যতম আসামি মোজাম্মেলের অবস্থান জানতে পেরে পুলিশ সেখানে অভিযান চালায়। মোজাম্মেলকে গ্রেপ্তার করে গাড়িতে তোলার সময় উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী মোজাম্মেলের নেতৃত্বে কয়েকশ লোকজন এসে হামলা চালিয়ে আসামিকে ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এসময় তারা লাঠিসোটা দিয়ে হামালা ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। সেখান থেকে ফেরার পথে আনোয়ারার চাতুরি চৌমুহুনী এলাকায় সড়কে ব্যারিকেড দিয়ে আবার তারা পুলিশের ওপর হামলা করে গাড়ি ভাঙচুর করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ বেশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ মান্নান চৌধুরীর অনুসারীরা বাজেটকে স্বাগত জানিয়ে বিকালে বন্দর কমিউনিটি সেন্টারের সামনে সমাবেশের ডাক দেয়। একইসময়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হকের অনুসারীরাও কর্মসূচি পালন করতে গেলে দুই পক্ষের মধ্য সংঘর্ষ বাঁধে।

আনোয়ারা উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান কাজী মোজাম্মেল হক অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘আমি রেস্তোরাঁর ওয়াশরুমে ছিলাম তখন। সেখান থেকে এসে দেখি মোজাম্মেলকে ধরে গাড়িতে তুলে ফেলেছে পুলিশ।  আমি তখন কথা বলতে চাইলে আনোয়ারা থানার ওসি আমার দিকে লাঠি হাতে তেড়ে এসে বলেন, মামলার আসামি, তাই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তখন উপস্থিত বিক্ষুব্ধ জনতা মোজাম্মেলকে কেড়ে নেয়।’

আরো পড়ুন:

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App