×

সারাদেশ

হার না মানা এক প্রতিবন্ধীর জীবনের গল্প

Icon

আহমেদ সাজু (সখীপুর) টাঙ্গাইল

প্রকাশ: ০৮ জুন ২০২৪, ০৩:২৪ পিএম

হার না মানা এক প্রতিবন্ধীর জীবনের গল্প

ইমন আলী সরকার

টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার যাদবপুর ইউনিয়নের বোয়ালী বাজার এলাকার কলিয়া পাড়া গ্রামের জন্মগতভাবে ত্রুটিপূর্ণ দুটি পা না থাকলেও জীবন যুদ্ধে থেমে যাননি প্রতিবন্ধী ইমন আলী সরকার (২৪)।

শুক্রবার (৭ জুন) সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বোয়ালী বাজারে এক ছোট্ট টং দোকানে মোবাইলের পাটর্স বিক্রি ও সার্ভিসিংয়ের কাজ করে সংসার চালাচ্ছে প্রতিবন্ধী ইমন সরকার। দুটি পা না থাকা ইমন আলী সরকার ওই গ্রামের মুনসের আলী সরকারের দ্বিতীয় সন্তান। তার বড় বোনের বিয়ে হয়েছে। ইমনের মা মমতা বেগম জানান, অভাবের সংসারে আমার ছেলেটা তেমন লেখাপড়া করতে পারেনি। বয়স হওয়ায় ইমনের বাবা তেমন ভারী কাজ  করতে পারে না। ছেলেটা সংসারের হাল ধরতে কখন যে অন্যের দোকানে মোবাইল মেরামতের কাজ শিখেছে তা জানিও না। কয়েক বছর যাবৎ তার আয় রোজগার দিয়ে সংসারের ব্যয়ভার মেটানো হচ্ছে।

আরো পড়ুন: ৩২ মণ ওজনের সুলতান, দাম ২৫ লাখ

ছবি: ভোরের কাগজ

ইমনের ব্যাপারে জানতে চাইলে ওই এলাকার গণমাধ্যমকর্মী মুর্শেদ খান প্রতিবেদককে জানায়, ইমন একজন সৎ ও দক্ষ মেকানিক। সে এলাকার প্রায় সবার প্রিয় ও আস্থাভাজন ঘনিষ্ঠ লোক। প্রতিবন্ধী হয়েও অন্যের কাছে হাত না পেতে পরিশ্রম করে সংসার চালাচ্ছে। 

ইমনের সঙ্গে কথা হলে জানায়, এলাকার সবাই আমাকে বিভিন্ন সময় কাজে সহযোগিতা করে। ঝড়বৃষ্টির দিনে বাড়ি পৌঁছে দিতে অনেকে এগিয়ে আসে। বাজারের স্থানীয় দোকানদারেরা রাস্তা পার হতে নিয়মিত সহযোগিতা করে থাকে। বোয়ালী বাজার ইমনের দোকান হতে বাড়ির দুরত্ব প্রায় দুই কিলোমিটার। তার আয় দিয়ে সংসারের ব্যয় মিটিয়ে হুইল চেয়ার কেনা সম্ভব নয়। ইমন জানান, সহায় সম্বলহীন ইমনের জন্য কেউ যদি একটি ব্যাটারিচালিত হুইল চেয়ারের ব্যবস্থা করেন তবে খুব অনায়াসে বাড়ি থেকে দোকান পর্যন্ত আসা-যাওয়া করতে পারবো।

এ বিষয়ে সখীপুর উপজেলা প্রতিবন্ধী কল্যাণ সমিতির সভাপতি সুমন সরকার ভোরের কাগজের প্রতিনিধিকে জানান, ইমন একজন মেধাবী কর্মক্ষম ছেলে। তিনি আরো জানান, সখীপুরে ইমনসহ সব প্রতিবন্ধীকে স্বাবলম্বী করতে সার্বিক সহযোগিতা করে থাকি।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App