×

সারাদেশ

আমার বাবার কি জানাজা নামাজ হবে না?

Icon

বেলাল হুসাইন বিজয়, কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি

প্রকাশ: ২৪ মে ২০২৪, ০৭:১৫ পিএম

আমার বাবার কি জানাজা নামাজ হবে না?

ছবি: ভোরের কাগজ

আমার বাবার কি জানাজা নামাজ হবে না? মানুষের দুর্ঘটনা বা রোগ ব্যাধিতে মৃত্যু হয়। কিন্তু আমার বাবাকে খুনিরা হত্যার পর দেহ কেটে টুকরা টুকরা করেছে। সেই টুকরাতে হলুদ মশলাও মিশিয়েছে। কি কষ্ট দিয়ে আমার বাবাকে মেরেছে খুনিরা। আমি জীবনেও তা ভুলতে পারব না। আমি আমার বাবার লাশের এক টুকরো অংশ দেখতে চাই। 

শুক্রবার (২৪ মে) বিকেলে ঝিনাইদহ-৪ আসনের এমপি আনোয়ারুল আজিম আনারের হত্যাকারীদের বিচার চেয়ে শহরের মেইন বাসষ্টান্ডে এক মানববন্ধনে কাঁদতে কাঁদতে কন্যা ডরিন এসব কথা বলেন। 

ডরিন বলেন, আমি এতিম হয়ে গেলাম। আমার বাবার হত্যাকারী যাদেরকে ধরা হয়েছে তাদের প্রিভিয়াস রেকর্ড দেখুন। আমার বাবার মত তারা এমন অনেক নিরীহ মানুষকে খুন করেছে। আমি চাই দ্রতই খুনীদের আটক করা হোক। নইলে আমার মত আরো কেউ এতিম হতে পারে। ডরিন বলেন, প্রধানমন্ত্রী যদি তার বাবার হত্যার বিচার করতে পারেন, তাহলে আমার বাবার হত্যার বিচারও তিনি করতে পারবেন। পিতার শোকে কাতর হয়ে বলেন, তার বাবার খুনিদের প্রধান হোতা কোটচাদপুর উপজেলার আক্তারজ্জআমান শাহিনকে দ্রুত আটক করা হোক। সেই সঙ্গে তার ভাই কোটচাদপুরের পৌর মেয়র শহিদুজ্জামান সেলিমকেউ আটকের দাবী জানান। তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তার খুনি ভাই শাহিনকে দ্রুত আটক করা সম্ভব হবে। 

এসময় তিনি প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে, বলেন আপনি আমার অভিভাবক। আমি ও আমার পরিবারকে রক্ষা করবেন। শুক্রবার বিকেল ৪টায় এমপির নিজ ওয়ার্ড কালীগঞ্জ পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডবাসীর উদ্যোগে শহরের মধুগঞ্জ বাজার মেইন বাসষ্টান্ডে ওই মানববন্ধন করা হয়। নারী, পুরুষসহ অগণিত মানুষের অংশগ্রহণে মানববন্ধনটি এক পর্যায়ে প্রায় জনসভাতে রুপ নেয়। 

আরো পড়ুন: আবেগঘন স্ট্যাটাসে বাবাকে নিয়ে যা বললেন এমপি আনারের মেয়ে

এমপি আনারের মরদেহের সন্ধান চেয়ে ও হত্যাকাণ্ডে জড়িত সব খুনিদের খুজে বের করে ফাসির দাবীতে ওই মানববন্ধন করে তারা। মানববন্ধনে এমপি কন্যা ডরিন ও আওয়ামী লীগের সব অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মী সহ এলাকার সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেয়। এ সময় বক্তারা বলেন, এমপি আনারের মত একজন মানবদরদী নেতা আর কখনও জন্ম হবে না। তার অভাব পূরণ করার মত নয়। সেই মানুষটিকে যারা নৃশংশভাবে কেটে টুকরা টুকরা করে হত্যা করেছে তারা মানুষ নয়, নরপশু। রাজনৈতিক, অরাজনৈতিক, ব্যবসায়িক বা যে চক্রের কোন্দলেই খুন হোক সব খুনিদের মুখোশ উন্মোচন করে দ্রুত গ্রেপ্তার পূর্বক ফাসির দাবী জানান তারা। 

কালীগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক ও পৌর মেয়র আশরাফুল আলম আশরাফের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর সিদ্দিক ঠান্ডু, উপজেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নব-নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শিবলী নোমানী, আওয়ামী লীগ নেতা ওহিদুজ্জামান ওদু. মতিয়ার রহমান মতি, মাসুদুর রহমান মন্টু প্রমুখ। মানববন্ধনে সর্বস্তরের হাজার হাজার নারী পুরুষ অংশ নেন।

ঝিনাইদহ-৪ আসনের এমপি আনোয়ারুল আজিম আনারের হত্যাকারীদের বিচার চেয়ে শহরের মেইন বাসষ্টান্ডে এক মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। 

এর আগে (শুক্রবার) বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে এমপি কন্যা ডরিন তার শহরের বাসভবনের নিচে উপস্থিত গনমাধ্যমকর্মীদের কাছেও বাবা হত্যার বিচার দাবী করে কথা বলেন। ডরিন ও তার মা বাবার সন্ধান পেতে ১৩ মে থেকেই ঢাকাতে অবস্থান করছিলেন। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে ঢাকা থেকে তারা নিজ বাড়িতে এসেছেন। 

আরো পড়ুন: এমপি আনার হত্যাকাণ্ডে ১২ দিনের রিমান্ডে কসাই জিহাদ

কন্যা ডরিন গনমাধ্যমকর্মীদের বলেন, তার বাবা ভারতে চিকিৎসায় গিয়ে নিখোঁজের পর থেকে সরকারের সব সংস্থা প্রশাসন তাকে উদ্ধারে সহযোগিতা করে আসছে। তিনি তার বাবার মরদেহ উদ্ধারে প্রশাসনের সহযোগিতা চান। এদিকে এমপি আনারের মৃত্যুর খবরে শুক্রবার দুপুরে বাদ জুম্মা তার নির্বাচনী এলাকার সব মসজিদে দোয়ার আয়োজন করা হয়। 

উল্লেখ্য, ১২ মে ভারতে গিয়ে নিঁখোঁজ ঝিনাইদহ-৪ আসনের এমপি আনোয়ারুল আজিম আনার হত্যাকাণ্ডটি নিয়ে তার এলাকায় এখনো ধোয়াশা কাটেনি। ভারত যাবার ১০ দিন পর বুধবার (২২ মে) সকালে কলকাতার নিউটাউন এলাকার সঞ্জিভা গার্ডেনে খুন হয়েছে বলে গণমাধ্যমে প্রচার হয়। এমনকি তার দেহ খন্ড বিখন্ড করা হয়েছে বলেও প্রচার হয়। যেহেতু তার মরদেহ এখনো উদ্ধার হয়নি তাই সাধারণ মানুষের কাছে প্রশ্ন হয়ে ঘুরছে এমপি কি সত্যই মারা গেছেন না কোথাও গুম হয়ে আছেন? 

আনোয়ারুল আজিম আনার ঝিনাইদহ-৪ আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য। তিনি ২০১৪, ২০১৮ ও ২০২৪ সালে টানা ৩ বার আওয়ামী লীগ থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এর আগে ২০০৯ সালে উপজেলা চেয়ারম্যান ও ৯৩ সালে পৌর কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছিলেন। এমপি হবার পর দীর্ঘ গেল ১০ বছরে তিনি এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন করছেন। সাংসদ হিসেবে বিভিন্ন সেবামূলক কাজের জন্য তার বেশ সুনাম রয়েছে। তিনি চলাচলের সময় কোন পুলিশ প্রটোকল ব্যবহার না করে একা একা চলতে স্বাচ্ছন্দ বোধ করতেন। 

আরো পড়ুন:

টাইমলাইন: ভারতে এমপি আজিম হত্যাকাণ্ড

আরো পড়ুন

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App