১৩ মিনিটের রহস্য ও লুপ লাইনের ধোঁয়াশায় উড়িশার রেল দুর্ঘটনা

আগের সংবাদ

সন্ধ্যার সংবাদ বিশ্লেষণ: ৩০০ আসনের সীমানা চূড়ান্ত করে গেজেট প্রকাশ

পরের সংবাদ

শিশুদের জন্য আলাদা হাসপাতালের প্রস্তাব

প্রকাশিত: জুন ৩, ২০২৩ , ৭:৪০ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ৩, ২০২৩ , ৭:৪২ অপরাহ্ণ

শিশুদের অত্যধুনিক চিকিৎসার জন্য আলাদা বিশেষায়িত শিশু হাসপাতাল করার প্রস্তাব ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের চিকিৎসকদের। ঢাকা মেডিকেলে যেখানে একই বেডে দুই-তিনজন শিশুকে রেখে চিকিৎসা দেয়া হয় সেখানে তাদের জন্য আলাদা হাসপাতাল করা হলে চিকিৎসা সেবার মানও উন্নিত হবে বলে মন্তব্য করেছেন তারা।

শনিবার (৩ জুন) দুপুরে হাসপাতালটির সভাকক্ষে আয়োজিত এক সেমিনারে এসব কথা বলেন চিকিৎসকরা। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। আরো উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব সিরাজুল ইসলাম, ঢাকা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মো. শফিকুল আলম চৌধুরী, উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. আব্দুল হানিফ টাবলু, শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ডা. দেবেশ চন্দ্র তালুকদার ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডা. মো. আহম্মেদ হোসেন হারুন। হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল অনুষদের ডিন ডা. শাহারিয়ার নবি শাকিল প্রমুখ। সেমিনারটির আয়োজন করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু সার্জারি বিভাগ, নিওনেটাল সার্জারি বিভাগ, শিশু সার্জিক্যাল অনকোলজি বিভাগ ও শিশু ইউরোলজি বিভাগ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন শিশু সার্জারি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. মো. আশরাফ উল হক কাজল।

তিনি বলেন, ১৯৯৩ সালে ঢাকা মেডিকেল কলেজের ১০টি বেড নিয়ে শিশু সার্জারি বিভাগের যাত্রা শুরু হয়। বর্তমানে বেড সংখ্যা ৮৭টি, বহিঃবিভাগ, আন্তঃবিভাগ জরুরি চিকিৎসা ও বিশেষায়িত চিকিৎসা (নবজাতক, শিশু ক্যান্সার, শিশু ইউরোলজি, লেপারোস্কোপি সার্জারি ও কলোনোস্কোপি) প্রদান করা হচ্ছে। এখানে ৮৭টি বেডের বিপরীতে প্রতিনিয়ত ১৫৫ বা এর অধিক শিশু রোগী ভর্তি থাকে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি, কাজের চাপ এবং বিশেষায়িত সেবাও বেড়েছে।

অধ্যাপক ডা. আব্দুল হানিফ টাবলু বলেন, বেডের সংখ্যার চাইতে এখানে কয়েক গুণ বেশি শিশু রোগী ভর্তি থাকে। শিশুদের আরো উন্নত চিকিৎসার কথা চিন্তা করে হলেও ঢাকায় সরকারি একটি বিশেষায়িত শিশু হাসপাতাল করা দরকার। রাজধানীর শ্যামলিতে যেই শিশু হাসপাতালটি রয়েছে তা সায়ত্বশাসিত। কাজেই পুরোপুরি সরকারি একটি হাসপাতাল করা খুবই প্রয়োজন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, ঢাকা মেডিকেল সবচেয়ে বৈশিষ্ট্যময় হাসপাতাল। প্রতিদিন অসংখ্য রোগী এখানে চিকিৎসা নেয়। কাউকে ‘না’ বলা হয় না। সব জটিল চিকিৎসাই এখানে সম্ভব।

শিশুদের জন্য বিশেষায়িত হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার বিষয়ে প্রধান অতিথি জানান, বিষয়টিসহ চিকিৎসকদের যে সকল প্রস্তাবনা রয়েছে সব কিছু নিয়েই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করবেন তিনি।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়