লিভারপুলের হার!

আগের সংবাদ

সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী

পরের সংবাদ

তুলার গোডাউনে আগুন: নিয়ন্ত্রণে যোগ দিয়েছে সেনাবাহিনী

প্রকাশিত: মার্চ ১২, ২০২৩ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: মার্চ ১২, ২০২৩ , ১২:১৮ পূর্বাহ্ণ

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার তুলার গোডাউনের আগুন নিয়ন্ত্রণে যোগ দিয়েছে সেনাবাহিনীর বিশেষ টিম।

শনিবার (১১ মার্চ) রাত নয়টার দিকে তারা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েছেন।

চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান বলেন, ফায়ার সার্ভিসের সঙ্গে সেনাবাহিনীর চারটি ইউনিট আগুন নেভানোর কাজ করবে। লেফটেন্যান্ট কর্নেল মাহমুদের নেতৃত্বে একটি দল আগুন নির্বাপনের কাজ শুরু করেছে। নৌ বাহিনী ও বিমান বাহিনীর ফয়ারা ফাইটিং টিমও ঘটনাস্থলে রয়েছে।

তিনি আরো বলেন, এখানে ইউনিটেক্সের দুই হাজার ৭০০ টন তুলা মুজদ ছিল। এই দাহ্য পদার্থের কারণে আগুন নির্বাপন কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এর আগে শনিবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে উপজেলার কুমিরা ইউনিয়নের ছোট কুমিরা বাইপাস রোড সংলগ্ন হিঙ্গিরি পাড়া এলাকায় লোকমানের মালিকানাধীন ইউনোটেক্সের কাছে ভাড়ায় চালিত তুলার গোডাউনে আগুন লাগে। খবর পেয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের ৯টি ইউনিট। রাত ৯টা ৫০ মিনিট পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রণে আসেনি।

সীতাকুণ্ড ফায়ার সার্ভিসের জ্যেষ্ঠ স্টেশন কর্মকর্তা নুরুল আলম দুলাল কালবেলাকে বলেন, ‘দেরিতে আসার ঘটনাটি সত্য নয়। কোথাও আগুন লাগলে প্রথমে কর্তৃপক্ষ নেভানোর চেষ্টা করে। আগুন যখন বেড়ে যায় তখন সার্ভিসকে খবর দেন।’

সন্ধ্যা সাতটায় তিনি বলেন, এখনো আগুন নিয়ন্ত্রণে আসেনি। তবে ফায়ার সার্ভিসের নয়টি ইউনিট চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে আসতে আরও সময় লাগবে।

দুঃখ প্রকাশ করে এই কর্মকর্তা বলেন, সময়মতো পানি না পাওয়ার কারণে আগুন দ্রুত চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। তুলার গুদামের বিপরীতে ছিল নেমসান কন্টেইনার লিমিটেডের ডিপো। তারা সময়মতো পানি দেননি। যখন আগুনের লেলিহান শিখা তাদের ডিপো ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে তখন বেলা একটার দিকে তাদের ডিপো থেকে পানির সংযোগ দেন।

ফায়ার সার্ভিসের এই কর্মকর্তা আরো বলেন, তুলার আগুন নেভানো কষ্ট। জায়গা মতো পানি না পড়লে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা খুবই কষ্টকর। আমরা যে পানিগুলো দিচ্ছি সেগুলো টিনের ওপরেই পড়ছে। চেষ্টা করছি ভেতরে পানি দেয়ার জন্য। আগুনের তীব্র তাপের কারণে সামনে গিয়ে পানি দেওয়া কষ্টকর হয়ে পড়েছে।

আগুনের সূত্রপাত সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, আগুনের সূত্রপাত কোথা থেকে সেটি আমরা জানি না। কিন্তু স্থানীয়দের মুখে শুনেছি গ্যাসে সিলিন্ডার দিয়ে কাটিয়ের কাজ করার সময় আগুনের স্ফুলিঙ্গ তুলাতে পড়ে। সেখান থেকে আগুন চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সীতাকুণ্ড উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শাহাদাত হোসেন বলেন, স্থানীয়দের মুখে শুনেছি, গ্যাস সিলিন্ডার দিয়ে তুলার ডিপোতে সংস্কার কাজ করার সময় আগুনের সূত্রপাত। তদন্ত করা ছাড়া এই মুহূর্তে কিছুই বলা যাচ্ছে না।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়