ভারতে প্রথমবারের মতো হদিস মিলল লিথিয়ামের

আগের সংবাদ

ধ্বংসস্তূপে জন্মগ্রহণকারী শিশুকে দত্তক চান হাজারো মানুষ

পরের সংবাদ

যশোরে পুলিশের অনুষ্ঠানে অতিথি ১৬ মামলার আসামি

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২৩ , ৫:২৭ অপরাহ্ণ আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২৩ , ৫:২৮ অপরাহ্ণ

যশোরে বার্ষিক পুলিশ সমাবেশ ও ক্রিড়া প্রতিযোগিতা ২০২৩ অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন পুলিশের তালিকাভুক্ত ১৬ মামলার আসামি ও চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম। তবে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবেই দাওয়াত পেয়েছেন বলে শফিকুলের দাবি।

শফিকুল ইসলাম চৌগাছার বড় কাবিলপুর গ্রামের সোনাই মণ্ডলের ছেলে। তার বিরুদ্ধে জেলার বিভিন্ন থানায় ১১টি মাদক ও অস্ত্রসহ ১৬টি মামলা রয়েছে।

 

জানা যায়, ২০১৭ সালে যশোরের সাবেক পুলিশ সুপার (বর্তমানে ডিআইজি) মো. আনিসুর রহমান বিপিএম, পিপিএম (বার) যশোর জেলার ১৪ জন চিহ্নিত ও কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তারের জন্য পুরস্কার ঘোষণা করেছিলেন। সেই ঘোষণার ৪ নম্বর তালিকায় ছিলো এই শফি মেম্বার ওরফে ডাইল শফি ওরফে শফিকুল ইসলাম। সে সময় তাকে ধরিয়ে দেয়ার জন্য পোস্টার ছাপিয়ে যশোর প্রেসক্লাবে সংবাদ সন্মেলন করে ২৫ হাজার টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেছিল যশোর পুলিশ। কিন্তু ২০২২ সালে ২৮ মে ধূলিয়ানী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলনে হঠাৎ করেই সভাপতি হিসেবে এই শফিকুলের নামই শোনা যায়।

ঘটনার দুই দিন পরে ৩১ মে তালিকাভুক্ত মাদক কারবারি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শিরোনামে দৈনিক সমকালে সংবাদ প্রকাশিত হয়। পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শফিকুলের ছবিসহ ব্যাপক লেখালিখি শুরু হয়। তখন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএম হাবিবুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক মেহেদী মাসুদ চৌধুরী তথ্য গোপন করার অপরাধ এনে শফিুকুলের নাম সভাপতি হিসেবে স্থগিত করেন। এর পরের দিন ১ জুন পদ থেকে সরানো হলো সেই মাদক কারবারিকে শিরোনামে উপজেলা সভাপতি ও সম্পাদকের বক্তব্যসহ দৈনিক যায়যায়দিনে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

এদিকে গত ৬ ফেব্রুয়ারি যশোরে পুলিশ সমাবেশ ও বার্ষিক ক্রিড়া প্রতিযোগিতা ২০২৩ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক চৌধুরী আব্দুল্লাহ-আল-মামুন বিপিএম (বার) পিপিএম। সেই অনুষ্ঠানে বিভিন্ন উপজেলা ও জেলা থেকে যাচাই-বাছাই করে অতিথিদেরকে কার্ডের মাধ্যমে দাওয়াত দেয়া হয়। সেখানে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে শফিকুলও উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে শফিকুল বলেন, আমি ধূলিয়ানী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দাওয়াত পেয়েছিলাম। আপনার পদ-তো স্থগিত ছিল প্রশ্নের উত্তরে শফিকুল বলেন, নিষেধাজ্ঞা কেটে গিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী যশোরে আসার আগেই ওটা কেটে গিয়েছে।

যশোর চৌগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল ইসলাম বলেন, তাকে তো দাওয়াত দেয়া হয়নি। তবে উনি কোনো রাজনৈতিক নেতার সঙ্গে যেতে পারেন।

শফিকুলের বিষয়ে জানতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী মাসুদ চৌধুরীকে শুক্রবার বিকেলে দুইবার কল করেও পাওয়া যায়নি।

তবে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএম হাবিবুর রহমান শফিকুলকে সভাপতির পদে বহাল করা হয়নি বলে নিশ্চিত করেছেন।

এনজে

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়