নতুন প্রেমে শাকিরা!

আগের সংবাদ

রাজধানীসহ বিভিন্ন স্থানে ৫.২ মাত্রার ভূমিকম্প

পরের সংবাদ

বায়ুদূষণের শীর্ষে ঢাকা বিভাগ

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৫, ২০২২ , ৯:৫৬ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ৫, ২০২২ , ১১:০৭ পূর্বাহ্ণ

দিন যত এগোচ্ছে, বাংলাদেশে বায়ুদূষণের প্রভাবে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। ২০১৯ সালে দেশে বায়ুদূষণের প্রভাবে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে সর্বোচ্চ ৮৮ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়। দেশে বায়ুদূষণে শীর্ষে রয়েছে ঢাকা বিভাগ। এরপরই অবস্থান বরিশাল বিভাগের।

রবিবার ( ৪ ডিসেম্বর ) বিশ্বব্যাংক প্রকাশিত বায়ুদূষণের নতুন তথ্য-প্রমাণ এবং স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব শিরোনামে প্রতিবেদনে এ তথ্য জানান হয়েছে।

রাজধানীর গুলশানে একটি হোটেলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে আনুষ্ঠানিকভাবে এই প্রতিবেদন তুলে ধরা হয়। এতে বলা হয়, বাংলাদেশে বায়ুদূষণের প্রভাবে যে ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে তার আর্থিক মূল্য জিডিপির ৪ দশমিক ৪ শতাংশের সমান। যে অঞ্চলে বায়ুদূষণ বেশি সেখানে বিষণ্ণতায় ভোগার সংখ্যাও বেশি। বায়ুদূষণের কারণে সবচেয়ে বেশি বিষণ্ণতায় ভুগছেন ৬৫ বছর কিংবা তার চেয়ে বেশি বয়সিরা।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সামগ্রিকভাবে দেশের বায়ুদূষণযুক্ত এলাকার ১৩ দশমিক ৭ শতাংশ নারী ও ১১ দশমিক ৮ শতাংশ পুরুষ বিষণ্ণতায় ভুগছেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) নির্ধারিত মাত্রা থেকে ১ শতাংশ দূষণ বাড়লে বিষণ্ণতায় ভোগা মানুষের সংখ্যা ২০ গুণ বেড়ে যায়। দেশের অভ্যন্তরে বায়ুদূষণের দিক দিয়ে প্রথমে আছে ঢাকা। ঢাকার পর সবচেয়ে বেশি বায়ুদূষণের শিকার বরিশাল বিভাগ। অন্যদিকে সিলেট বিভাগে বায়ুদূষণ অপেক্ষাকৃত কম।

অনুষ্ঠানে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী বলেন, আমরা যানবাহনে যে জ্বালানি তেল ব্যবহার করি, তাতে দূষণ বেশি হয়। দূষণ কমাতে উন্নত মানের তেল আমদানি করতে হবে। সিগারেটের ধোঁয়াকে বায়ুদূষণের অন্যতম উৎস হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, তামাকের কারণে বিশ্বে ৮০ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়। তামাকের ক্ষেত্রে সরকার রাজস্ব বাড়ানোকে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। জনস্বাস্থ্যকে আমলে নেওয়া হচ্ছে না। তামাক জনস্বাস্থ্যের জন্য আরো ভয়ানক। কিন্তু তামাক বন্ধের ক্ষেত্রে রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাব আছে।

প্রতিবেদনে দূষণের প্রধান উৎস হিসেবে তিনটি খাতকে চিহ্নিত করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রথমেই আছে যানবাহনের ধোঁয়া। দ্বিতীয়ত ইটভাটার চুল্লি দিয়ে নির্গত কালো ধোঁয়া দূষিত করছে বাতাস। এরপরই রয়েছে শুষ্ক মৌসুমে অবকাঠামো নির্মাণ ও মেরামতের কারণে সৃষ্ট ধূলা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যানজট ও নির্মাণাধীন প্রকল্পের কারণে যে পরিমাণ বায়ুদূষণ হয়, তা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বায়ুমানের চেয়ে ১৫০ শতাংশ বেশি এবং ইটভাটার কারণে যে দূষণ হয়, তা ১৩৬ শতাংশ বেশি।

এসএম

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়