আমরা খুব একটা ভুগিনি

আগের সংবাদ

রোবোফিশ কৃত্রিম হৃদপিণ্ডের পথে আরেক ধাপ অগ্রগতি

পরের সংবাদ

ট্র্যাকিং প্রযুক্তি যেভাবে কাজ করছে

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৪, ২০২২ , ৯:৫২ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ৪, ২০২২ , ৯:৫২ পূর্বাহ্ণ

বেশকিছু নতুন এবং চমকপ্রদ প্রযুক্তির ব্যবহার দেখা যাচ্ছে চলমান ফিফা বিশ্বকাপে। মুহূর্তেই যেগুলো মোড় ঘুরিয়ে দিচ্ছে খেলার ফলাফলে। এসব প্রযুক্তির মধ্যে আলোচনার শীর্ষে রয়েছে ভিএআর বা ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারির নাম। যার বদৌলতে বেশ কয়েকটি গোল পড়েছে অফসাইডের খাতায়। এ ছাড়া প্রথমবারের মতো ফিফা বিশ্বকাপে দেখা যাচ্ছে লাইভ বল-ট্র্যাকিং প্রযুক্তির ব্যবহার। বিশেষ ট্র্যাকিং প্রযুক্তির নিয়ে আজকের এই আয়োজনে-

লাইভ বল-ট্র্যাকিং কিভাবে কাজ করে: জার্মানির এআই সমাধান প্রদানকারী কিনেক্সনের ডিজাইন করা এ বছরের ফিফা বিশ্বকাপে ব্যবহৃত বলগুলোর ভেতরে রয়েছে একটি করে লাইটওয়েট সেন্সর। ইন্টারশিয়াল মেজারমেন্ট ইউনিট (আইএমইউ) দ্বারা তৈরি এ সেন্সরগুলো আল্ট্রা-ওয়াইডব্যান্ড (ইউডব্লিউবি) রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহারের পাশাপাশি রিয়েল-টাইম স্থানিক অবস্থান এবং স্থান পরিবর্তন সম্পর্কে তথ্য দিতে পারে। কিনেক্সনের নিজস্ব লোকাল পজিশনিং সিস্টেম (এলপিএস) বলের গতি ট্র্যাক করার কাজটি সম্ভব করেছে। এটি ম্যাচগুলোর পিচের চারপাশে ইনস্টল করা হয়েছে। যার মাধ্যমে রেফারি এবং কর্মকর্তারা কোথায় বল যাচ্ছে, খেলোয়াড়রা কোথায় অবস্থান করছে, এক স্থান থেকে কোথায় গতিপথ পরিবর্তন করছে, মাঠের চারপাশে কি ঘটছে এসব বিষয়ে সর্বদা অবগত থাকতে পারে। কিনেক্সনের ওয়েবসাইটে দেয়া তথ্যমতে, বলের ভেতরে থাকা সেন্সরটি ২ এবং ত্রিমাত্রিক উভয় গতিবিধি শনাক্ত করতে পারে, রিয়েল টাইমে আউটপুট দিতে পারে এবং ২০ মাইক্রোসেকেন্ডের কম সময়ে সেন্টিমিটার পরিমাণ সঠিক গণনা প্রদান করতে পারে।

বল-ট্র্যাকিং যেভাবে সাহায্য করে: কিনেক্সনের ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, লাইভ বল ট্র্যাকিংয়ের স্বয়ংক্রিয় প্রযুক্তির সাহায্যে নির্দিষ্ট খেলোয়াড়ের পারফরম্যান্সকে সঠিকভাবে চিহ্নিত করা যায়। এছাড়া গোল, পেনাল্টি এবং অফসাইডের মতো জটিল পরিস্থিতিতে বিশ্লেষকরা আপ-টু-ডেট, রিয়েল-টাইম তথ্য ব্যবহার করে প্রতিটি খেলোয়াড় কিভাবে পারফর্ম করেছে সে সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারে। সেন্সর থেকে পাওয়া তথ্য এককথায় একটি ডেটা প্যাকেজ হিসেবে কাজ করে। যার মধ্যে রয়েছে বলের আবৃত দূরত্ব, বলের ত্বরণ এবং গতি, আক্রমণ ও রক্ষণের সময় খেলোয়াড়রা কতদূর দৌড়েছে, কোনো নির্দিষ্ট সময়ে ড্রিবলিং গতি কত ছিল, গোলের সময় বল শট করার গতি, দলের পাসিং এর নির্ভুলতা সম্পর্কিত তথ্য। কিনেক্সনের ট্র্যাকিং সেন্সরগুলো সরাসরি ম্যাচ চলাকালীন ভালো উপস্থাপনার জন্য রিয়েল-টাইম তথ্য দৃশ্যায়ন করতে সাহায্য করে।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়