সিএনএন-এফবিসিসিআই সমঝোতা স্মারক সই

আগের সংবাদ

ইঁদুর তাড়াতে এক কোটি ৭৪ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা

পরের সংবাদ

ঢাবি ছাত্রলীগের সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগ পল্টনকে ভয় পায় না

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৩, ২০২২ , ৭:৫৪ অপরাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ৩, ২০২২ , ৭:৫৪ অপরাহ্ণ

আওয়ামী লীগ পল্টনকে ভয় পায় না বরং আওয়ামী লীগ ভয় পায় আপনাদের আগুন সন্ত্রাস ও লাঠি নিয়ে খেলাধুলাকে। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুলকে উদ্দেশ্য করে এই মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শনিবার (৩ ডিসেম্বর) বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অপরাজেয় বাংলা ভাস্কর্যের পাদদেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন ২০২২-এ প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় তিনি বলেন, আমি শুনলাম বিএনপির নেতারা হান্ডিপাতিল, কম্বল, মশার কয়েল নিয়ে পল্টনেই তাবু গেঁড়েছে। আমি পরিবহন নেতাদের বলেছি তারা আমাকে বলেছে তারা পথ আটকাবে না। তাহলে ভয় কীসের? ছাত্রলীগের সম্মেলন ছয় তারিখে চলে এসেছে। আপনাদের ধারে কাছেও ছাত্রলীগ যাবে না।

এ সময় মির্জা ফখরুলকে উদ্দেশ্য করে তিনি আরও বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার আর হবে না। সংবিধান পরিবর্তন হওয়ার কোনো সুযোগ নাই। সংবিধানকে অনেক কঁচুকাটা করা হয়েছে। সংবিধানে হাত দেওয়ার অধিকার কারো নেই। কাজেই তত্ত্বাবধায়ক নিয়ে রঙিন খোয়াব দেখে লাভ নাই।

ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের লক্ষ্য করে সেতুমন্ত্রী বলেন, বিজয়ের মাসে পরাজিত শক্তির সঙ্গে বিজয়ী শক্তির, সাম্প্রদায়িক শক্তির সঙ্গে অসাম্প্রদায়িক চেতনা, মূল্যবোধ ও শক্তির খেলা হবে। আমাদের জেলা সম্মেলনের মানুষজনের ধারেকাছেও তাদের লোক হয় না।

এ সময় গণমাধ্যমের প্রতি উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আমাদের যারা পছন্দ করে না তারা আমাদের বিশাল সম্মেলনেরও ছবি ছাপে না। অথচ ফখরুল কোথায় দাঁড়িয়ে কী বলে সেটা ডাবল কলামে আসে৷ আমরা তো বেশিকিছু চাই না। আমাদের যা ঘটে সেটাই চাই। আমি ঢাকা ক্লাবে সবাইকে আমন্ত্রণ জানিয়ে কথা বলেছি, অনুরোধ করেছি। কী অপরাধ করেছি আমরা? সত্যকে কখনো ঢেকে রাখা যায় না।

ছাত্রলীগের আসন্ন নতুন কমিটি নিয়ে ওবায়দুর কাদের বলেন, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি, ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কমিটি একসঙ্গে দেওয়া হবে। এর মধ্যে আমরা সিভি নিচ্ছি, যোগ্যতা বিচার করছি।

সম্মেলনে উদ্বোধনী বক্তা হিসেবে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, ছাত্রলীগকে শিক্ষার্থীদের পাশে থেকে তাদের মনের কথা বুঝে কাজ করে যেতে হবে। শিক্ষার্থীরা যেন আমাদের ভালোবেসে ছাত্রলীগের রাজনীতি করে সেই জন্য আমাদের কাজ করে যেতে হবে। এ সময় আগামীর বাংলাদেশের জন্য, চতুর্থ শিল্প বিপ্লব এগিয়ে নেওয়ার জন্য যে নেতৃত্ব দরকার সে নেতৃত্ব ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

সম্মেলনে প্রধান বক্তা ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেন, চার বছর পরে ঢাবি ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এই চার বছরে ঢাবি ছাত্রলীগের কর্মীরা তাদের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ চর্চা করার সুযোগ পেয়েছে, শেখ হাসিনার নির্দেশনাগুলো মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়ন করার সুযোগ পেয়েছে। এ সময় তিনি করোনাকালীন সময়ে ছাত্রলীগের কর্মীদের নিজ নিজ জায়গা থেকে সংগঠনের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করায় ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

বক্তব্য প্রদানকালে সাদ্দাম হোসেন বলেন, বিএনপি জামায়াত নামের ক্রিমিনাল গংদের মূলোৎপাটন বাংলার মাটিতে নিশ্চিত করতে হবে। আগামী নির্বাচনে শেখ হাসিনার জয় নিশ্চিত করার শপথ আমাদের গ্রহণ করতে হবে। আজ এই অপরাজেয় বাংলার পাদদেশ থেকে আমরা শপথ গ্রহণ করতে চাই, অপরাজেয় বাংলায় শেখ হাসিনা অপরাজিতই থাকবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনের সঞ্চালনায় এ সময় আরও বক্তব্য দেন ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস। সম্মেলনে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ, ঢাবি শাখা, ঢাবি শাখার বিভিন্ন হল, অনুষদ ও ইনস্টিটিউট শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

কেএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়