চাঁপাইনবাবগঞ্জে এক রাতে বিএনপির ৬২ জন গ্রেপ্তার

আগের সংবাদ

আলঝেইমার্সের যুগান্তকারী ওষুধ আবিষ্কার

পরের সংবাদ

টেন্ডার নিয়ে বিরোধের জের

কুষ্টিয়ায় হত্যা মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন

প্রকাশিত: নভেম্বর ৩০, ২০২২ , ৬:০৭ অপরাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ৩০, ২০২২ , ৬:৫৪ অপরাহ্ণ

কুষ্টিয়ায় টেন্ডার বিরোধের জের ধরে লিটন বিশ্বাস (৩০) নামে এক যুবককে গলাকেটে হত্যার পর ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান গেটে রাখার দায়ে নিষিদ্ধ ঘোষিত চরমপন্থী সংগঠন গণমুক্তি ফৌজের অন্যতম সদস্য (পলাতক) কালু ওরফে আলী রেজা সিদ্দিক ওরফে বুলবুলসহ তিনজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এ মামলার ২১ আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (৩০ নভেম্বর) সকালে কুষ্টিয়া অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. তাজুল ইসলাম এ রায় দেন। একই সাথে তাদেরকে ২৫ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছে আদালত।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন, কুষ্টিয়া সদর উপজেলার পশ্চিম আবদালপুর গ্রামের ইসহাক আলী মাস্টারের ছেলে বড় কালু ওরফে আলী রেজা সিদ্দিক ওরফে বুলবুল (৪৩) মৃত্তিকাপাড়া গ্রামের মৃত এছেম আলীর ছেলে মনোয়ার হোসেন ওরফে মনো (৪৫) ও মাইজপাড়া গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে লিয়াকত (৪৫)। দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তিগণ বিচারাধীন সময়কালে বিভিন্ন সময় আদালত থেকে জামিনপ্রাপ্ত হওয়ার পর থেকেই পলাতক আছেন বলে সরকারী কৌসুলি জানান।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০০৯ সালের ২৭ জুন বিকালে বাড়ি থেকে বের হয় লিটন। পরের দিন ২৮ জুন সকালে কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের মেইন গেটের গ্রীলের সঙ্গে গাঁথা অবস্থায় লিটনের দেহবিহীন রক্তাক্ত মাথা উদ্ধার করে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানা পুলিশ। আসামিরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে টেন্ডার বিরোধের জেরে লিটনকে নির্মমভাবে হত্যা করে। ওই দিন নিহতের বাবা ও ঝিনাইদহ জেলার শৈলকূপা উপজেলার গোলকনগর গ্রামের মৃত চেতন আলী বিশ্বাসের ছেলে আজিবর বিশ্বাস বাদী হয়ে আসামিদের বিরুদ্ধে ইবি থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্ত শেষে ২০১১ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি ইবি থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মুজিবুর রহমান ৩০২/২০১/৩৪ পেনাল কোডে অভিযোগে এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত ২৪ জনের নামোল্লেখ করে চার্জশিট দাখিল করেন আদালতে।

আদালতের পিপি অনুপ কুমার নন্দী বলেন, লিটনকে গলাকেটে মাথা বিচ্ছিন্ন করে হত্যার দায়ে তিনজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। তারা সবাই পলাতক রয়েছেন। এ মামলার ২১ আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

কেএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়