জিএম কাদের দলের দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না

আগের সংবাদ

শিশু আয়াতের লাশের খণ্ডিতাংশ উদ্ধার

পরের সংবাদ

ঢাবিতে আসছে ‘ক্যাম্প’ নাটক

প্রকাশিত: নভেম্বর ৩০, ২০২২ , ৪:১৩ অপরাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ৩০, ২০২২ , ৪:১৭ অপরাহ্ণ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) মুহম্মদ জাফর ইকবাল রচিত ‘ক্যাম্প’ উপন্যাস অবলম্বনে ‘ক্যাম্প’ নাটকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার অ্যান্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থীদের নির্দেশনা ও অভিনয়ে মঞ্চস্থ হতে যাচ্ছে।

আগামীকাল বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় ১৬তম কেন্দ্রীয় বার্ষিক নাট্যোৎসব ২০২২-এর প্রথম দিনে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) মিলনায়তনে নাটকটির মঞ্চায়ন হবে।

থিয়েটার অ্যান্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগের স্নাতক সমাপনী সেমিস্টারের শিক্ষার্থী দীপম সাহা নাটকটির নির্দেশনা প্রদান করছেন এবং নাট্যরূপে আছেন শংকর কুমার বিশ্বাস। ক্যাম্প উপন্যাস থেকে ক্যাম্প নাটকে অবগাহন একটি গল্পের মতো। দেশের সীমান্তবর্তী একটি জেলার মুক্তিযুদ্ধের সময় সৃষ্ট পরিস্থিতিতে সমাজের কয়েক রকম মানুষের দৃষ্টিকোণ থেকে উদ্ভুত ঘটনার বয়ানই যেন এই নাটকের মূল উপজীব্য।

‘ক্যাম্প’ নাটকটির কাহিনি শুরু হয় কুসুমখালি গ্রামে স্কুল ঘরের রাজাকারের ক্যাম্পে। সারারাত মুক্তিযোদ্ধা ফজলকে মারধরের পর ঘরে নিয়ে খুটির সাথে বেধে রেখে তাকে মতি রাজাকার ও মুকাদ্দিস সিপাহীর কথায় ফজলকে নিয়ে মেজর সাহেবের রুমে নিয়ে যায়। মেজর সাহেবের সাথে তার কথোপকথনে সহমর্মিতা প্রকাশ পায় ফজলের প্রতি। দেশের অবস্থা আর মুক্তিযোদ্ধাদের শক্তি নিয়ে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করে ফজলকে মানসিকভাবে আরো বিপর্যস্ত করে তোলে মেজর।

ফ্লাশব্যাকে কমান্ডার রায়হানের সাথে ফজলের বাড়ির উদ্দেশ্যে বিদায় নেয়ার উদ্দেশ্যে বিদায় নেয়ার দৃশ্য এবং ফজলের বাড়িতে আসার খবর রাজাকারের কাছে পৌঁছাতে দেখাতে যায়। মুক্তিযোদ্ধা ফজল বাড়িতে এসে মা-বোনের সাথে ভাত খাওয়ার সময়েই মতি রাজাকার ও মুকাদ্দিস এসে বন্দুকসহ তাকে ধরে নিয়ে যায় এবং তা প্রথম দৃশ্যকে লিংক করে। মেজর এর আদেশে শেষে ফজলকে পুকুরপাড়ে দাঁড়িয়ে গুলি করে সুবেদার।

নাটকটির বিষয়ে নির্দেশক দীপম সাহা ভোরের কাগজকে বলেন, মুক্তিযুদ্ধের গল্পকে নাটকে পরিণত করার ইচ্ছা থেকেই এই উপন্যাসকে নাটকে রূপ দেয়া হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা আর সমসাময়িক বিষয়ের সমন্বয়ে মুক্তিযুদ্ধকালীন পরিস্থিতি একটি নতুন রূপে রূপায়িত করা হয়েছে নাটকে। দর্শকের ভালো লাগাই আমার সার্থকতা।

নাটকটিতে যারা অভিনয় করছেন:

শেখ মুমতারিণ অথৈ, তানভীর আহম্মেদ, মো. শাহীন আলম (জীবন), সামি আজমাইন খান, শাহী ফারজানা তানজিম মিমি, খাশ্রি গান্দাই, জান্নাতুল মাওয়া নিবিড়, সাদমান মুবতাসিম আদিব, এসএম শাকিব আহমেদ (রাজ) এবং এএম মুনতাকিম।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়