বিল কাঠুরিয়ার দুঃখ কাঠুরিয়া খাল

আগের সংবাদ

ইউক্রেনে ৬০ লাখ পরিবার বিদ্যুৎবিহীন

পরের সংবাদ

উষ্ণতার খোঁজে

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৭, ২০২২ , ২:৩৬ অপরাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২৭, ২০২২ , ২:৩৬ অপরাহ্ণ

ঝুপ করে সন্ধ্যা নামার মতো শীত পরশ বোলাতে শুরু করেছে। গুছিয়ে ওঠার আগেই যেন ঠান্ডার হানা। বদলে গেছে মৌসুম। বদল প্রতিদিনের পোশাকেও। শীতের এই সময়ে পোশাকের ধরন ও রঙেও পাওয়া যায় উষ্ণতা। প্রকৃতির রং এখন কিছুটা রুক্ষ হলেও পোশাকের রঙে কিন্তু থাকে উৎসবমুখরতা। শীতকে এ কারণে রঙিন পোশাক পরার মৌসুমও বলা যায়।

গরম পোশাক নিয়ে জবুথবু থাকার দিন শেষ অনেক দিন আগেই। বরং বছরের এই সময়টায় দেখা যায় পোশাকের চমক। রং-নকশায় শীতের পোশাক বছরের অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে এগিয়ে। ছেলেদের জ্যাকেট কিংবা সোয়েটারের মাধ্যমে তুলে ধরা যায় অভিজাত এবং স্টাইলিশ লুক, সহজেই। স্তরে স্তরে, অর্থাৎ লেয়ারিং করার ধারা এ ক্ষেত্রে বেশ ভালো ভূমিকা রাখে। লেয়ারিং করার মাধ্যমে একদিকে যেমন নিজস্ব স্টাইল স্টেটমেন্ট তৈরি করা যায়, অন্যদিকে আবহাওয়া অনুযায়ী শীতের পোশাক কমানো বা বাড়ানোর কাজটিও করা যায়।

দেশীয় বাজারে ক্রেতার একটি বড় অংশই হচ্ছে আজকালকার তরুণ-তরুণী; বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ পর্যায়ের শিক্ষার্থী। সুতরাং তাদের চাহিদা নতুন ট্রেন্ডি পোশাক। এই চাহিদার কথা মাথায় রেখেই দেশীয় লাইফস্টাইল স্টোরগুলোর পোশাক ডিজাইনগুলো করা হচ্ছে। প্রাধান্য পাচ্ছে ফিউশন। সে ক্ষেত্রে দেশীয় ধাঁচ থেকেই যাচ্ছে প্রায় সব পোশাকে।

তবে এখন ফিউশনের এই যুগে পশ্চিমা স্টাইলের সঙ্গে মিলেমিশে একাকার হয়ে গেছে আমাদের দেশীয় স্টাইল। বাজারে তরুণীদের এ ধরনের পোশাকের দেখা মিলছে বেশি। পশ্চিমা পোশাকের মধ্যে আছে লং কোট, ট্রেঞ্চ কোট ইত্যাদি। বেশ লম্বা এবং অধিকাংশ সময়েই সামনে থাকছে বেল্ট। এ ছাড়া ক্রপ টপ, টার্টেল নেক, ইত্যাদিও প্রাধান্য পাচ্ছে।

লেদারের জ্যাকেট মেয়েদের মধ্যেও বেশ সাড়া জাগানো একটি পোশাক। টুইড জ্যাকেট, জিপ ফ্রন্টসহ বিভিন্ন ধরনের জ্যাকেট রয়েছে। লেদার যে আবার শুধু একরঙা, তা কিন্তু নয়। লেদারের মধ্যে রয়েছে চেক, স্ট্রাইপসহ নানা ধরনের নকশা করা। রয়েছে প্রিন্টেড ব্লেজারও। অফিস পার্টি হোক কিংবা ইউনিভার্সিটির ফেয়ারওয়েল মানিয়ে যাবে সব উৎসবের সঙ্গেই। আরেকটি জনপ্রিয় পোশাক হচ্ছে সোয়েট শার্ট। বেশ ক্যাজুয়াল একটি লুকের জন্য সোয়েট শার্ট বেশ জনপ্রিয়। এতে করা হচ্ছে টাইডাইসহ বিভিন্ন ধরনের ডিজিটাল প্রিন্ট। সামনের দিকে থাকছে পকেটও। এসবের সঙ্গে পরার জন্য নারীরা বেছে নিচ্ছেন ডেনিম জিন্স, গ্যাবার্ডিং প্যান্ট, লেগিংস ইত্যাদি।

অন্যদিকে এই যেমন ডেনিম এর কথাই ধরা যাক। গতবারের মত এবারও রেভ-রেডি অ্যাসিড ওয়াশ এবং ব্লিচড-আউট স্টাইলই এবার চলবে। দেখলে একেবারেই র মনে হবে। কেজো ডেনিম কার্গো প্যান্টও এই শীতে থাকবে। পাশাপাশি প্যাচওয়ার্ক করা ডেনিম ট্রেঞ্চকোটও এই এই জিনসের সঙ্গী হবে। হাঁটুর কাছে ছেঁড়া বেঢপ আকারের জিনসও এই শীতে আপনাকে ট্রেন্ডি করে তুলবে। থাকবে বেলবটম কাট, বুটকাটও। একই ধরনের ওয়াশের জিনস আর জ্যাকেটও ইচ্ছা করলে ওয়ার্ডরোবে রাখতে পারেন। এই শীতে আরও একটা বিষয় দেখা যাবে স্ট্রাপডআপ টেলরিং। অর্থাৎ ব্লেজার, কোট বা ওভারকোটে থাকবে স্ট্র্যাপ। নানাভাবে দেখা যাবে এই স্ট্রাপের ব্যবহার। কোট আর ব্লেজার হবে কখনো রেগুলার ফিট, কখনো ওভারসাইজড, ঢিলেঢালা।

এবার আসি ফেব্রিক প্রসঙ্গে। যেহেতু শীতের পোশাক নিয়ে কথা বলছি, যতই বলি শহুরে জীবনযাপনে শীতের তেমন ঠাঁই নেই। ‘তেমন’ অব্যয়টি কিন্তু মাঝে থেকেই যায়। পাশাপাশি শীত যে জাঁকিয়ে পড়বে না, তার কিন্তু কোনো নিশ্চয়তা নেই। দেশের অনেক স্থানেই এখন আছে তীব্র হাড় কাঁপানো শীত। সুতরাং শীতের পোশাককে হতে হবে ওমদায়ক। পাতলা ফিনফিনে তন্তু কিন্তু এ সময় ব্যবহারের একেবারেই অনুপযোগী। পশম এবং ফ্লানেলের মতো ফেব্রিকের দর শীতের বাজারে একটু বেশিই। তবে স্টাইল স্টেটমেন্ট বজায় রাখতে গিয়ে ফেব্রিক যদি একটু কম উষ্ণ হয় কাজে দেবে লেয়ারিং। লেয়ারিং কিন্তু বেশ কয়েক বছর ধরেই ট্রেন্ডে আছে। পাতলা থেকে ধীরে ধীরে ভারী পোশাকের দিকে যাওয়ার স্টাইলকেই বলা হয় লেয়ারিং। সোজা বাংলায় বলতে গেলে একটি পোশাকের ওপর কয়েকটি পোশাকের আস্তর।

আস্তে আস্তে টাইটফিট পোশাক থেকে সরে আসছে বিশ্ব। এবারের শীতে সেটা পুনরায় দৃশ্যমান হবে। এমনকি যথেষ্ট ঢিলেঢালা বা ওভারসাইজড পোশাক এই শীতে থাকবে বিশেষভাবে। অনেকেরই হয়তো মনে পড়ে যাবে আশির দশকের কথা। তখন বেশ ঢিলেঢালা পোশাক পরা হতো। ফ্যাশনের আবর্তনে আবার ফিরছে অতীত স্মৃতি সজীব করতে।

আর হ্যাঁ, স্টাইপড বা ডুরে শার্ট ও কর্ডুরয় কা কডের জ্যাকেট, প্যান্ট ও শার্ট থাকবে ট্রেন্ডি পোশাকের তালিকায়। ফলে, পুরোনো কিছু থাকলে এখনই বের করে ফেলা যেতে পারে। কারণ, ট্রেন্ডে থাকতে গেলে সেই মতো পোশাক তো পরতে হবে। অতএব এখনই ঠিক করে নিন, পোশাক-আশাকে কীভাবে উপভোগ করবেন এবারের শীত।

লেখক-শাহাদাৎ হোসেন চৌধুরী, চিফ ডিজাইনার ও চেয়ারম্যান, জেন্টল পার্ক

এমকে

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়