এসেছে কনসার্টের মৌসুম

আগের সংবাদ

অর্থনীতি গতিশীল রাখতে সক্ষম হয়েছি

পরের সংবাদ

সম্মাননা পাচ্ছেন আসাদুজ্জামান নূর

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৬, ২০২২ , ১১:৪৬ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২৬, ২০২২ , ১১:৪৬ পূর্বাহ্ণ

‘হে উৎসুক দৃষ্টিপাত, এ তীর্থে আসো যদি হে শ্রীজ্ঞান কায়ায় কায়ায় সৃজিব/ নব নব জীবনের মানুষ-রূপ-আখ্যান’ প্রতিপাদ্য নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শুরু হতে যাচ্ছে ১৬তম কেন্দ্রীয় বার্ষিক নাট্যোৎসব। থিয়েটার এন্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগের আয়োজনে আগামী ১-৮ ডিসেম্বর ৮ দিনব্যাপী চলবে এই নাট্যোৎসব। প্রতি সন্ধ্যা ৬টা ৩০ মিনিটে বিভাগের স্নাতক সমাপনী সেমিস্টারের শিক্ষার্থী নির্দেশিত মোট ১৫টি নাটক প্রদর্শিত হবে। ১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬টা ৩০ মিনিটে ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র মিলনায়তনে নাট্যোৎসবের উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হবে। উৎসবে বিশেষ সম্মাননা জানানো হবে সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূরকে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেয়া হবে সম্মাননা। ইতোপূর্বে এই বিশেষ সম্মাননা পেয়েছেন সেলিম আল দীন, ফেরদৌসী মজুমদার, সৈয়দ শামসুল হক, আলী যাকের, আতাউর রহমান ও রামেন্দু মজুমদার।

থিয়েটার এন্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগের চেয়ারম্যান মো. আশিকুর রহমান বলেন, ‘মুক্তির অভিপ্রায় ধারণ করে জ্ঞানচর্চায় ও সৃষ্টিশীলতায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার এন্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগ সাংস্কৃতিক পরিবেশনার অনন্য বাহক হয়ে উঠেছে।’

আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘সম্মাননা পাওয়ার খবরটি তো অবশ্যই আমার জন্য আনন্দের। এর আগে যারা এই সম্মাননা পেয়েছেন তারা দেশের নাট্যচর্চায় বিশিষ্টজন। তাদের পাশাপাশি এবার আমাকে বিবেচনা করা হয়েছে, এটা তো অবশ্যই ভালো লাগার।’

নাট্যোৎসবে মঞ্চস্থ হবে তানভীর আহম্মেদের নির্দেশনায় মুনীর চৌধুরীর লেখা নাটক ‘কবর’। একই সন্ধ্যায় মঞ্চস্থ হবে ‘ক্যাম্প’। মুহম্মদ জাফর ইকবালের লেখা থেকে নাট্যরূপ দিয়েছেন শংকর কুমার বিশ্বাস ও নিদের্শনা দিয়েছেন দীপম সাহা। ২ ডিসেম্বর মঞ্চস্থ হবে ‘কাকচরিত্র’। মনোজ মিত্রের লেখা নাটকটি নির্দেশনা দিয়েছেন সাদমান ফাহিম। একই সন্ধ্যায় মঞ্চস্থ হবে ‘হিস্যা’। সা’দাত হাসান মান্টো থেকে অনুপ্রাণিত নাটকটি রচনা ও নির্দেশনা দিয়েছেন ওবায়দুর রহমান সোহান। ৩ ডিসেম্বর মঞ্চস্থ হবে ‘দ্য গেম’। লুইজিব্রায়ান্টের লেখা থেকে রূপান্তর ও নির্দেশনায় দিয়েছেন সায়র নিয়োগী। একই সন্ধ্যায় মঞ্চস্থ হবে ‘ফুডকনফারেন্স’। আবুল মনসুর আহমেদের লেখা থেকে নাট্যরূপ ও নির্দেশনা দিয়েছেন ফারজাদ ইফতেখার কাব্য। ৪ ডিসেম্বর মঞ্চস্থ হবে ‘ডেথ অব দ্য মুন’। রচনা ও নির্দেশনা দিয়েছেন নীলিমা হোসেন এবং একই সন্ধ্যায় মঞ্চস্থ হবে ‘নিনামাররায়’। শংকর কুমার বিশ্বাসের লেখা থেকে নির্দেশনা দিয়েছেন সুজানা জাহেদী। ৫ ডিসেম্বর মঞ্চস্থ হবে ‘দ্য গিফ্ট অব দ্য ম্যাজাই’। উইলিয়াম সিডনি পোর্টারের থেকে নাট্যরূপ ও নির্দেশনা দিয়েছেন শাহবাজ ইশতিয়াক পূরণ। একই সন্ধ্যায় মঞ্চস্থ হবে আরো দুটি নাটক। যার মধ্যে আছে- ‘ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর’। আন্তনচেখভের লেখা থেকে অনুবাদ করেছেন ফয়সাল আবির এবং রূপান্তর ও নির্দেশনা দিয়েছেন হোসাইন জীবন। এছাড়া ‘ফ্যাতাড়’। নবারুণ ভট্টাচার্যের লেখা থেকে নাট্যরূপ ও নির্দেশনা দিয়েছেন রাফায়াতুল্লাহ। ৬ ডিসেম্বর মঞ্চস্থ হবে নিকিতা আযমের রচনা ও নির্দেশনায় ‘চূর্ণলিপি’। এদিন সন্ধ্যায় আরো মঞ্চস্থ হবে মোহিত চট্টোপাধ্যায়ের রচনায় ও তনুশ্রী কারকুনের নির্দেশনায় ‘কণ্ঠনালীতে সূর্য’। ৭ ডিসেম্বর মঞ্চস্থ হবে অচিন্ত্যকুমার সেনগুপ্তের উপসংহার অবলম্বনে নাট্যরূপ ‘রূপান্তর’।

নাটকটির নির্দেশনা দিয়েছেন প্রণব রঞ্জন বালা। এদিন সন্ধ্যায় মঞ্চস্থ হবে নাসরিন সুলতানা অনুর রচনা ও নির্দেশনায় ‘একটি আদর্শ সেবা সংস্থা’। ৮ ডিসেম্বর সমাপনী দিনে অধ্যাপক রহমত আলীর নির্দেশনায় মৈমনসিংহ গীতিকা অবলম্বনে দ্বিজ কানাই প্রণীত ‘মহুয়া’ মঞ্চায়ন দিয়ে শেষ হবে এবারের ঢাবি নাট্যোৎসব।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়