দেশীয় টিভি চ্যানেলের জিম্মি দশা কাটাতে হবে

আগের সংবাদ

শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানো প্রয়োজন

পরের সংবাদ

মৃত্যুবার্ষিকী : স্মরণে জননেতা আবুল কাসেম মাস্টার

মোহাম্মদ সেলিম

সম্পাদক, সাপ্তাহিক চাটগাঁর বাণী

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৪, ২০২২ , ১২:৫৯ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২৪, ২০২২ , ১২:৫৯ পূর্বাহ্ণ

সীতাকুণ্ডের গণমানুষের নেতা, সাবেক প্যানেল স্পিকার, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সাবেক সভাপতি এ বি এম আবুল কাসেমের আজ ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী। আওয়ামী লীগের নিবেদিত প্রাণ ও পরোপকারী ত্যাগী এ রাজনৈতিক নেতা ২০১৫ সালের এ দিনে ইন্তেকাল করেন। টাকা দিয়ে মনোনয়ন কেনা ও সন্ত্রাসনির্ভর রাজনীতির ঘোরবিরোধী ছিলেন সাবেক এমপি আবুল কাসেম। রাজনৈতিক যোগ্যতা ও সত্যিকারের সমাজসেবামূলক মনোবৃত্তি নিয়ে জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটেই কয়েক দফা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও এমপি নির্বাচিত হয়ে নজিরবিহীন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড এবং জনহিতকর কাজের মাধ্যমে তিনি হয়েছিলেন গণমানুষের নেতা।
আদর্শের প্রতি অবিচল ও নিষ্ঠা এবং নির্বাচনী প্রতিশ্রæতি বাস্তবায়নের মাধ্যমে নিজের জীবনকে ভবিষ্যৎ মানুষের কাছে যারা স্মরণীয় করে রাখেন আবুল কাসেম তাদের মধ্যে অন্যতম। স্কুলশিক্ষক থেকে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান এবং সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে দীর্ঘ রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় কীভাবে জাতীয় পর্যায়ে প্রতিষ্ঠিত হওয়া যায় তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত এ বি এম আবুল কাসেম মাস্টার। ১৯৯৬ সালে সাবেক মন্ত্রী এলকে সিদ্দিকীকে হারিয়ে প্রথমবার চট্টগ্রাম-৪ সীতাকুণ্ড আসনে এমপি নির্বাচিত হন মাস্টার আবুল কাসেম। তৎকালীন সব মন্ত্রীকে সীতাকুণ্ডে এনে রাস্তাঘাট, পুল কালভার্ট, মসজিদ-মাদ্রাসা, মন্দির ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ অবকাঠোমো উন্নয়নে এক নজিরবিহীন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন তিনি। তারই প্রচেষ্টায় সীতাকুণ্ডে পল্লী বিদ্যুৎ, সীতাকুণ্ড ইকোপার্ক ও বোটানিক্যাল গার্ডেন প্রতিষ্ঠা ও সীতাকুণ্ড সদর ইউনিয়ন পৌরসভায় রূপান্তরিত হয়।
মাস্টার কাসেম ২০০৮ সালে পুনরায় এমপি নির্বাচিত হয়ে এলাকার সামগ্রিক উন্নয়নে অভূতপূর্ব অবদান রেখেছেন। স্বীয় যোগ্যতার দ্বারা যে ত্যাগী নেতা সীতাকুণ্ডবাসীকে বুঝিয়ে দিয়েছেন, এমপি মানে জনগণের সেবক; আমজনতার সুখ-দুঃখের নিত্যসঙ্গী, জনপ্রতিনিধি মানে জনবিচ্ছিন্ন হয়ে রাজধানী কিংবা জেলা শহরে বসে খবরদারি নয়। সীতাকুণ্ড থেকে এমপি হোস্টেল, সংসদ ভবন থেকে সচিবালয় প্রতিটি মুহূর্ত ব্যয় করেছেন গণমানুষের কাজে। প্রতিবারই নির্বাচনী প্রতিশ্রæতি বাস্তবায়নের জন্য গ্রামীণ জনপদের প্রতিটি এলাকার মানুষের সমস্যা স্বচক্ষে দেখতে ছুটে যেতেন। দল-মত নির্বিশেষে যে কোনো লোক, যে কোনো সময় এমপি কাসেমের শয়নকক্ষে পর্যন্ত গিয়ে মনের কথা বলতে পারতেন। তার আমলে এমন কোনো রাস্তা খুঁজে পাওয়া যাবে না, যেখানে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। প্রথমবার এমপি হওয়ার পর তিনি প্যানেল স্পিকারের দায়িত্ব পালন করেন, দ্বিতীয়বার বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। রাজনীতি ও জনপ্রতিনিধির পাশাপাশি আবুল কাসেম কাট্টলী নুরুল হক চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষকতাও করেছেন কয়েক বছর। একজন আদর্শ শিক্ষক হিসেবেও তিনি ছাত্র, অভিভাবক ও এলাকাবাসীর অকুণ্ঠ শ্রদ্ধা, সম্মান এবং ভালোবাসা অর্জন করেছেন। শিক্ষকতা, রাজনীতি ও দীর্ঘদিন জনপ্রতিনিধি হওয়ার সুবাদে নির্বাচনী এলাকা সীতাকুণ্ড-উত্তর পাহাড়তলী ও উত্তর কাট্টলীর এমন কোনো বাড়িঘর নেই যেখানে আবুল কাসেম মাস্টারের পদধূলি পড়েনি। কারো প্রিয় স্যার, কারো প্রিয় কাসেম ভাই হিসেবে তিনি এলাকাবাসীর আত্মার আত্মীয় এবং দলমত, জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সর্বসাধারণের প্রিয় নেতার আসনে অধিষ্ঠিত হয়েছিলেন। আবুল কাসেম মাস্টার মানুষের সুখ-দুঃখ, হাসি কান্না গভীরভাবে প্রত্যক্ষ করতেন। আমৃত্যু আওয়ামী লীগকে নিয়েই স্বপ্ন দেখেছেন, এ দলের জন্যই আজীবন লড়াই করেছেন। প্রতিপক্ষকে কখনোই হেয়প্রতিপন্ন কিংবা গালমন্দ করতেন না। এজন্য তিনি শুধু নিজ দলের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে নয়, সর্বসাধারণের মধ্যে তিনি অত্যন্ত জনপ্রিয় ছিলেন। রাজনীতির এ দিকপাল, ছায়ার মতো আগলে রাখতেন নেতাকর্মীদের, দেখাতেন স্বচ্ছ রাজনীতির পথ। রাজনৈতিক শিষ্টাচার, কর্মীদের প্রতি ভালোবাসা ও সততার উদাহরণ একমাত্র মরহুম আবুল কাসেম মাস্টার। গণমানুষের ভাগ্যোন্নয়নে সর্বোপরি সীতাকুণ্ডের মানুষের কল্যাণে নিজেকে উজাড় করে দিয়েছেন। তার সংগ্রামী মনন ও আন্তরিক কর্মনিষ্ঠা ইতিহাসের উজ্জ্বলতায় বর্তমান ও আগামী প্রজন্মের জীবন সংগ্রামে অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবে। জননেতা আবুল কাসেম মাস্টারের ৭ম মৃত্যুবার্ষিকীতে জানাই বিনম্র শ্রদ্ধা এবং তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি।

মোহাম্মদ সেলিম : সম্পাদক, সাপ্তাহিক চাটগাঁর বাণী।
chatganrbani.com

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়