ভ্যালেন্সিয়ার জোড়া গোলে ইকুয়েডরের শুভ সূচনা

আগের সংবাদ

প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চাই

পরের সংবাদ

বিশ্বকাপ ফুটবল ও আমাদের প্রত্যাশা

প্রকাশিত: নভেম্বর ২১, ২০২২ , ১২:২৯ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২১, ২০২২ , ১২:২৯ পূর্বাহ্ণ

মরুর দেশ কাতারে গতকাল শুরু হয়েছে ফুটবলের সবচেয়ে বড় উৎসব ফিফা বিশ্বকাপ ২০২২। ফুটবল বিশ্বকাপ নিয়ে বাংলাদেশে উন্মাদনার কমতি নেই। প্রতি চার বছর পর এই বিশ্বকাপের এক মাসে বাংলাদেশের মানুষ যেন ভুলে যায় সবকিছু। বিভিন্ন কারণে এবারের বিশ্বকাপটি আলাদা মাত্রা পেয়েছে। কারণ এবারের বিশ্বকাপটি আয়োজিত হচ্ছে এশিয়ায়। আল খোরের আল বাইত স্টেডিয়ামে উদ্বোধনী ম্যাচে মুখোমুখি হবেন স্বাগতিক কাতার ও ইকুয়েডর। তার আগে এ মাঠে জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বসেছে তারার মেলা। বিশ্বকাপ আয়োজন কাতারের জন্য গৌরবের, আরবের গৌরবের দিন। এ অঞ্চলের প্রথম বিশ্বকাপ আয়োজন সফল ও প্রাণবন্ত হোক- এ প্রত্যাশা রাখছি। বিশ্বকাপের যাবতীয় প্রস্তুতি নিতে কাতারের খরচ হয়েছে প্রায় ৩০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ৩০ লাখ কোটি টাকা। গত ৮টি বিশ্বকাপের মধ্যে যা সবচেয়ে বেশি। শুধু বেশি বললে ভুল হবে, গত ২০১৮ রাশিয়া আসরের চেয়ে ২২ গুণ বেশি অর্থ খরচ হচ্ছে এবারের আসরে। এবারের বিশ্বকাপে ৩২টি দেশ অংশগ্রহণ করছে। দেশগুলোকে ‘এ’ থেকে ‘এইচ’ পর্যন্ত ৮টি গ্রুপে বিভক্ত করা হয়েছে। গতকাল এবারের বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হয় স্বাগতিক কাতার ও ইকুয়েডর। ২১ নভেম্বর ম্যাচ হবে দুটি। এরপর থেকে প্রতিদিন চারটি করে ম্যাচ হবে গ্রুপ পর্বে। গ্রুপ পর্বের লড়াই শেষে ৩ ডিসেম্বর থেকে শুরু হবে নকআউট পর্বের ম্যাচ। রাউন্ড অব ১৬ থেকে বিজয়ী দলগুলো কোয়ার্টার ফাইনাল খেলবে আগামী ৯, ১০ ও ১১ ডিসেম্বর। এরপর ১৪ ও ১৫ ডিসেম্বর হবে সেমিফাইনালের ম্যাচ। আগামী ১৮ ডিসেম্বর ফাইনালের পর বিশ্ব খুঁজে পাবে এবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নকে। একইসঙ্গে পর্দা নামবে ফিফা বিশ্বকাপের এবারের আসরের। ফুটবল বিশ্বকাপের আয়োজক দেশ হিসেবে কাতারের না ছিল কোনো অভিজ্ঞতা, না ফুটবলীয় ইতিহাস, না ছিল কোনো সুযোগ-সুবিধা। কিন্তু ২০১০ সালে আয়োজক দেশ ঘোষণা হওয়ার পরপরই কাতার সমগ্র বিশ্বকে কথা দিয়েছিল, বিশ্বকাপ আয়োজন করে সবাইকে চমকে দেবে, প্রযুক্তির দিন বদলে দেবে। কাতার সেই কথা রাখার চেষ্টা করেছে অনেকটুকু। বিশ্বকাপের এবারের আসরে চোখ ধাঁধানো স্টেডিয়াম থেকে শুরু করে থাকছে নজরকাড?া সব আয়োজন। আয়োজক দেশ হওয়ায় এবারের বিশ্বকাপে সরাসরি খেলতে পারছে কাতার। মধ্যপ্রাচ্যের এ দেশটি এবারই প্রথম বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ। বাংলাদেশ কি কোনোদিন বিশ্বকাপ ফুটবল খেলবে না? অন্য দেশগুলো পারলে বাংলাদেশ কেন পারছে না? এক সময় বিশ্বকাপ ক্রিকেটে বাংলাদেশের কোনো অবস্থান ছিল না। নিজেদের দল না থাকায় ভারত, পাকিস্তান বা অন্যান্য দল নিয়ে মেতে থাকতেন সমর্থকরা। তবে এখন নিজেদের দল বিশ্বকাপে অংশ নেয়ায় পরিস্থিতির পরিবর্তন ঘটেছে। আমরা আশাবাদী হতে চাই, ফুটবল বিশ্বকাপে একদিন আমাদের অবস্থান তৈরি হবে। সাফ ফুটবলেই আমাদের সাফল্য নেই দীর্ঘকাল ধরে। ফুটবলে উন্নতির জন্য দরকার সমন্বিত চেষ্টা, ফুটবলারদের সদিচ্ছা আর কঠোর পরিশ্রম।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়