মওলানা ভাসানীর ৪৬তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

আগের সংবাদ

রসিক নির্বাচন সুষ্ঠু করতে ইসির ৬ নির্দেশনা

পরের সংবাদ

বিএনপির সমাবেশ

সিলেটের ইজতেমায় পুলিশের নিষেধাজ্ঞা

প্রকাশিত: নভেম্বর ১৭, ২০২২ , ৮:৩৩ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ১৭, ২০২২ , ৮:৩৩ পূর্বাহ্ণ

আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলামের আয়োজনে সিলেটে অনুষ্ঠিতব্য দুদিনব্যাপী ইজতেমা পেছানোর নির্দেশ দিয়েছে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ। আগামী শনিবার বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশের পর ইজতেমা আয়োজনের জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে ইজতেমার ঠিক আগের দিন পুলিশের এই নির্দেশনা মানা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা।

সিলেট শহরতলীর পারাইরচকে নবনির্মিত ট্রাক টার্মিনালে এ ইজতেমার আয়োজন করেছে আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম। যা বৃহস্পতিবার ফজরের নামাজের পর থেকে শুরু হওয়ার কথা। আয়োজকরা বলছেন, তাদের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন। এখন ইজতেমা পেছানো সম্ভব নয়।

সিলেটের সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলেম ও বরুনার পীর মাওলানা রশীদুর রহমান ফারুকের আহ্বানে গত এক মাস ধরে দুদিনের এই ইজতেমার প্রস্তুতি চলছে। প্রথমে ইজতেমার স্থান ছিল সিলেটের আলিয়া মাদ্রাসা ময়দান। একই স্থানে ২০ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল বিএনপির সিলেট বিভাগীয় গণসমাবেশ। কিন্তু চলমান এইচএসসি পরীক্ষা নির্বিঘ্নে করতে এসএমপির সভা-সমাবেশে নিষেধাজ্ঞার কারণে বিএনপি তাদের সমাবেশের তারিখ একদিন এগিয়ে নিয়ে আসে। এতে বিড়ম্বনায় পড়েন ইজতেমা আয়োজনকারী কর্তৃপক্ষ। পরে বিএনপি নেতাদের অনুরোধে ইজতেমার স্থান পরিবর্তন করে ট্রাক টার্মিনালে নেয়া হয়। ইজতেমার সকল প্রস্তুতি শেষ হয়ে ইতোমধ্যেই ইজতেমাস্থলে আসতে শুরু করেছেন মুসল্লিরা।

কিন্তু মঙ্গলবার রাতে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে ১৯ তারিখের পরে ইজতেমা আয়োজনের নির্দেশনা দেয়া হয়। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেন আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির মুফতি মাওলানা মুহাম্মদ রশিদুর রহমান ফারুক বর্ণভীসহ সংগঠনের নেতাকর্মী। নির্ধারিত তারিখেই ইজতেমা হবে বলে ঘোষণা দেন তারা।

এ ব্যাপারে ইজতেমার আয়োজক আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলামের নায়েবে নাজিম মাওলানা সাদ আমিন বরুনা সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন, মুসল্লিরাও আসতে শুরু করেছেন। এই অবস্থায় মঙ্গলবার রাতে মোগলাবাজার থানার ওসি এসে ইজতেমা পেছানোর কথা বলে গেছেন। তবে আমাদের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে শেষ মুহূর্তে এসে ইজতেমা পেছানো সম্ভব নয়।

তিনি বলেন, আমাদের সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক সংগঠন। এখানে সবাই ধর্মীয় কারণে সমবেত হচ্ছেন। কেউ বিএনপির সমাবেশে যাবে না, তাছাড়া আমাদের ইজতেমার স্থানটিও শহর থেকে অনেক দূরে। তাই এখানে কোনো বিশৃঙ্খলা হওয়ার কথা নয়।

এ বিষয়ে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (মিডিয়া) সুদ্বীপ দাশ বলেন, ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশে ১৯ নভেম্বরের পর ইজতেমা আয়োজন করার কথা সংশ্লিষ্টদের জানানো হয়েছে। বিএনপির মহাসমাবেশের কারণে এমন নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তবে আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম নেতাকর্মী নিজেদের বক্তব্য জানিয়েছেন। এখন ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন।

উল্লেখ্য, গত ১২ নভেম্বর সিলেটে সংবাদ সম্মেলন করে ‘আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের পক্ষ থেকে বলা হয়, ধর্মীয় ও অরাজনৈতিক এ সংগঠনের ৭৭ বছরপূর্তি উপলক্ষে সিলেটে দুদিনব্যাপী ইজতেমার আয়োজন করা হচ্ছে। দক্ষিণ সুরমার পারাইরচকস্থ সিলেট কেন্দ্রীয় ট্রাক টার্মিনালে ১৭ নভেম্বর ফজরের নামাজের পরপরই শুরু হয়ে ইজতেমাটি পরদিন বাদ জুম্মা শেষ হবে।

এমকেএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়