বিজয়ের মাসকে কলঙ্কিত করার টার্গেট নিয়েছে বিএনপি: নানক

আগের সংবাদ

সদস্য পদে নির্বাচন হবে হাড্ডাহাড্ডি

পরের সংবাদ

তেঁতুলিয়ায় শ্বেতশুভ্র হিমালয়ের দেখা মিলছে

প্রকাশিত: অক্টোবর ১৪, ২০২২ , ৮:৩৯ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ১৪, ২০২২ , ৮:৩৯ অপরাহ্ণ

আসছে শীত কিংবা হেমন্তে যারা ভ্রমণে যাওয়ার জন্য স্যুটকেস গোছাচ্ছেন, তাদের চিত্তের প্রশান্তির জন্য সুসংবাদ। পঞ্চগড়ে শরতের শ্বেতশুভ্র আকাশের দিকে তাকালেই হিমালয়ের দেখা মিলছে। যার মাঝে পৃথিবী লুকিয়ে রেখেছে অপার রহস্য। তাই রহস্যঘেরা এই সর্বোচ্চ শৃঙ্ঙ দেখতে নেপালে পাড়ি জমান অনেকে। কিন্তু প্রকৃতির অপরার লীলা বোঝা ভার। সুদূর নেপালের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ এখন দেশের মাটিতে বসেই দেখা যাবে।

একাত্তরের মুক্তাঞ্চল পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া থেকেই এখন এভারেস্টের সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারছেন দর্শনার্থী ও পর্যটকরা। এই আশ্বিনেই আসতে শুরু করেছেন অনেক পর্যটক। আবার অনেকে সেখানে ভ্রমণের পরিকল্পনাও করছেন।

শরৎ ও হেমন্তের মেঘমুক্ত আকাশে প্রায় প্রতিদিনই হিমালয় দেখার সুযোগ ঘটে পর্যটকদের। শরতের শেষদিক থেকে শীত পর্যন্ত সবচেয়ে আকর্ষণীয় দৃশ্য মূলত এই হিমালয়েই দেখা যায়। মনোরম আবহে প্রকৃতির এই অপরূপ সৌন্দর্য ভ্রমণপিপাসুদের মনে অপার্থিব মায়ার ঘোর সৃষ্টি করে। তেঁতুলিয়া ঘেঁষে বয়ে যাওয়া মহানন্দা নদীর পাড়ে গিয়ে দাঁড়ালে দেখা যায় সূর্যের বর্ণিল আলোকচ্ছটায় উদ্ভাসিত এভারেস্ট শৃঙ্গ।

তাই ভোরবেলা থেকে বিকেল পর্যন্ত ডাকবাংলো ও বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত ঘেঁষে চলা মহানন্দা নদীর তীরে বসে প্রকৃতি প্রেমীদের আড্ডা। সন্ধ্যা নামার আগে ভিন্ন রূপের মহানন্দা হৃদয় কাড়ে পর্যটকদের। বাংলার বুক চিরে যে সূর্য উঠে ভোরে, সন্ধ্যায় আবার সেই সূর্য ডুব দেয় প্রতিবেশী দেশের হিমালয়ের কাঞ্চনজঙ্ঘার আড়ালে।

শরৎ, হেমন্ত ও শীতেই দেখা মেলে শ্বেতশুভ্র এই মহানায়কের। ভোরের আলো মেখে জাগতে শুরু করে। তারপর ক্ষণে ক্ষণে রং পাল্টাতে থাকে। অপার সৌন্দর্য্যের বিস্তৃতি ঘটিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে। মনে হয় হাসছে পাহাড়। তার শরীর ঘেঁষে চলে গেছে বিস্তৃত হিমালয়। সবুজ আর কালো রং মেখে হিমালয়ও হয়ে ওঠে অপরূপ।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়