নিউজিল্যান্ডের বিশ্বকাপ জার্সি উন্মোচন

আগের সংবাদ

কাঁঠালবাগানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে কিশোর নিহত

পরের সংবাদ

কাতারে জার্সির মাধ্যমে প্রতিবাদ করবে ডেনমার্ক

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২২ , ৯:৫০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২২ , ৯:৫০ পূর্বাহ্ণ

বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না আয়োজক দেশ কাতারের। বিশ্বকাপের স্টেডিয়াম, মেট্রোরেল, রাস্তা এবং হোটেল নির্মাণের সঙ্গে যুক্ত সাড়ে ছয় হাজার শ্রমিক মারা গেছেন বলে দাবি করেছিল কয়েকটি গণমাধ্যম। অভিবাসী শ্রমিকদের মানবাধিকার লঙ্ঘনের কথা ভুলে যায়নি ডেনমার্ক ফুটবল ইউনিয়ন।

অভিবাসী শ্রমিকদের মানবাধিকার ভঙ্গের প্রতিবাদে বিশ্বকাপে জার্সির রং হাল্কা করল ডেনমার্ক। ফিফার নিয়ম অনুযায়ী, কোনো ফুটবলার বা ফুটবল দল তাদের জার্সি বা ট্রাউজারে রাজনৈতিক বার্তা রাখতে পারবে না। না কোনো শব্দ দিয়ে, না কোনো চিহ্ন দিয়ে। তাই ডেনমার্ক জার্সির রং পরিবর্তন করে ফিফার আইন না ভাঙার বিষয়টিও মাথায় রেখেছে। বিশ্বকাপে সাধারণত দুই ধরনের জার্সি তৈরি করে দলগুলো। একটি তাদের হোম ম্যাচের জন্য আরেকটি অ্যাওয়ে ম্যাচের জন্য। ডেনমার্কের এ দুটি জার্সি হলো লাল ও সাদা। তবে সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশিত ডেনমার্কের জার্সির দুইটি ছবিতে দেখা যায়, ডেনমার্কের চিরাচরিত লাল জার্সি এবার কিছুটা ফিকে। এছাড়া কোম্পানির লোগো, ডেনিশ ফেডারেশনের এবং কিট প্রস্তুতকারকের লোগোও আগের থেকে ফিকে করেছে তারা।

শুধু তাই নয় কালো রঙের আরো একটি জার্সিও বানিয়েছে ডেনমার্ক। জার্সি প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান হামেল তাদের ইনস্টাগ্রামে এক বিবৃতিতে লিখেছে, ডেনিশ জাতীয় দলের নতুন জার্সির মাধ্যমে আমরা দুটি বার্তা দিতে চেয়েছি। ১৯৯২ ইউরোতে ডেনমার্ক ফুটবলের সেরা সাফল্যের প্রতি যেমন শ্রদ্ধা জানানো হয়েছে, তেমনি কাতারে মানবাধিকার লঙ্ঘনে রেকর্ডের প্রতিবাদও জানানো হয়েছে।

হামেলের দেয়া বিবৃতির তৎক্ষণাৎ প্রতিবাদ জানায় কাতার। এক বিবৃতি তারা জানায়, হুমে যে দাবি করেছে, তা ঠিক নয়। স্টেডিয়াম বানানো এবং অন্য কাজে ৩০ হাজার শ্রমিকের নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যের খেয়াল রাখতে তারা দায়বদ্ধ। মাত্র তিনজন শ্রমিক কাজ করতে গিয়ে দুর্ঘটনায় মারা গেছে। তাছাড়া আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনের দাবি মেনে তারা তাদের ব্যবস্থার সংস্কার করেছে এ এর ফলে শ্রমিকদের জীবনধারণের মান উন্নত হয়েছে।

বিশ্বকাপের মূলপর্বে খেলার সুযোগ পাওয়ার পর ডিবিইউ বলেছিল, তারা কাতারের মানবাধিকারের বিষয়টি গুরুত্ব দিচ্ছে। তারা যে মানবাধিকারের প্রতি দায়বদ্ধ সেই বার্তা দেয়া হবে। তারা প্রতিযোগিতার সঙ্গে যুক্ত বাণিজ্যিক ইভেন্টগুলিতেও কম অংশগ্রহণ করবে। ইংল্যান্ড ফুটবল এসোসিয়েশন বলেছে, কাতার যেন মৃত শ্রমিকদের পরিবারকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দেয়। যারা আহত হয়েছে, তাদেরও যেন ক্ষতিপূরণ দেয়া হয়। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ও হিউম্যান রাইটস ওয়াচও গত সপ্তাহে ফিফার কাছে আবেদন জানিয়ে বলেছে, তারা যেন কাতারের ওপর চাপ সৃষ্টি করে। বিশ্বকাপে ডেনমার্কের অভিযান শুরু হবে ২২ নভেম্বর তিউনিসিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে। ডি গ্রুপে তাদের অপর দুই সঙ্গী বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স ও অস্ট্রেলিয়া।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়