বগুড়ায় আওয়ামী লীগ নেতা অভিকে কুপিয়ে হত্যা

আগের সংবাদ

২৬ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে জনবল বরাদ্দ

পরের সংবাদ

নবম এশিয়ান ট্যুরিজম ফেয়ার উদ্বোধন

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২ , ৪:২৯ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২ , ৮:০৫ অপরাহ্ণ

দেশের পর্যটন শিল্পকে বিকশিত করতে নবমবারের মতো সবচেয়ে বড় আন্তর্জাতিক পর্যটন মেলা এশিয়ান ট্যুরিজম ফেয়ার উদ্বোধন করা হয়েছে। তিন দিনের এ মেলাটি চলবে ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে ১ অক্টোবর পর্যন্ত।

বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেশন সেন্টার বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ মেলার উদ্বোধন করেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোকাম্মেল হোসেন।

উদ্বোধনী আয়োজনে এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের চেয়ারম্যান মো. আলি কদর, ট্যুর অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টোয়াব) সভাপতি শিবলুল আজম কোরেশী ও ঢাকায় নিযুক্ত নেপাল থাইল্যান্ড দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত এবং মালয়েশিয়ার ঢাকাস্থ হাইকমিশনারসহ অন্যান্য দূতাবাসের প্রতিনিধিরা।

এতে স্বাগত বক্তব্য দেন পর্যটন বিচিত্রার সম্পাদক ও এশিয়ান ট্যুরিজম ফেয়ারের চেয়ারম্যান মো. মহিউদ্দিন হেলাল। পর্যটন বিচিত্রার আয়োজনে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন ও বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের সার্বিক সহযোগিতায় এ মেলা হচ্ছে। তিন দিনব্যাপী এ মেলা চলবে ১ অক্টোবর পর্যন্ত। মেলা চালু থাকবে প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি মো. মোকাম্মেল হোসেন বলেন, এশিয়ান ট্যুরিজম ফেয়ার বাংলাদেশের একটি আন্তর্জাতিক ও অন্যতম পর্যটন মেলা। এর মাধ্যমে পর্যটন সংস্থাগুলো প্রচার-প্রচারণার এক বিশেষ সুযোগ পাবে। এ মেলার মাধ্যমে বাংলাদেশে পর্যটন শিল্পের এক নতুন সম্ভাবনার সৃষ্টি হবে।

তিনি বলেন, সারা বাংলাদেশে ট্যুরিস্টদের নিরাপত্তা দেব। সেই লক্ষ্যে আমরা কাজ করেছি।

মো. মহিউদ্দিন হেলাল বলেন, আসন্ন পর্যটন মৌসুমকে সামনে রেখে এ মেলায় পর্যটকদের জন্য নানা রকমের বৈচিত্র্যময় অফার থাকবে। পর্যটকরা সাশ্রয়ী মূল্যে তাদের ভ্রমণের আগাম বুকিং দিতে পারবেন। আশা করছি, দেশ ও আঞ্চলিক পর্যটন শিল্পের জন্য মেলাটি একটি সেতুবন্ধন তৈরি করবে এবং সব গন্তব্যে পর্যটকদের আনন্দমিছিল ছড়িয়ে পড়বে। কোভিড পরবর্তী এ মেলা আয়োজনের ফলে নতুনভাবে পর্যটনের দুয়ার খুলবে।

এবারের মেলায় আটটি দেশ অংশগ্রহণ করেছে। বাংলাদেশ, নেপাল, থাইল্যান্ড, ভারত, ভুটান, মালেয়েশিয়া, শ্রীলঙ্কা ও লিথুনিয়াসহ প্রায় ১৩০টি দেশের বিভিন্ন পর্যটন সংস্থা মেলায় অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে ৫০টির বেশি বিদেশি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। মেলায় রয়েছে পর্যটন মৌসুমে দেশ-বিদেশে বেড়ানোর বিভিন্ন আকর্ষণীয় ভ্রমণ অফার, হোটেল, রিসোর্ট বা প্যাকেজ বুকিংসহ বিশেষ ছাড়ের ব্যবস্থা।

মেলায় অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে হোটেল, মোটেল, রিসোর্ট, ক্রুজলাইন্স, এয়ারলাইন্স, ট্যুর অপারেটর ও থিমপার্কসহ বিনোদনের আরও অনেক প্রতিষ্ঠান।

এছাড়া মেলায় বৈচিত্র্যময় আয়োজনের মধ্যে রয়েছে পর্যটন বিষয়ক সেমিনার, শিশুদের জন্য চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও বিজনেস টু বিজনেস মিটিং। মেলায় থাকবে শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এ মেলার মাধ্যমে পর্যটন শিল্পের একটি পূর্ণাঙ্গ চিত্র দর্শনার্থীদের মাঝে তুলে ধরার প্রচেষ্টা থাকবে।

মেলায় এয়ারলাইন্স পার্টনার বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, হসপিটালিটি পার্টনার ইন্টারকন্টিনেন্টাল ঢাকা ও প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও, অ্যাডভেঞ্চার ডাইনিং পার্টনার ফ্লাই ডাইনিং, ক্রুজ পার্টনার ঢাকা ডিনার ক্রুজ, এন্টারটেইনমেন্ট পার্টনার ফ্যান্টাসি কিংডম ও ট্রান্সপোর্ট পার্টনার কনভয় সার্ভিস ও নেটওয়ার্কিং ইভেন্ট পার্টনার বোটোফ।

এবারের মেলায় প্রাইম পার্টনার কান্ট্রি নেপাল, পার্টনার কান্ট্রি থাইল্যান্ড, ফিচার কান্ট্রি ভারত, ভুটান, মালয়েশিয়া, শ্রীলংকা ও লিথুনিয়া এবং মেলার হোস্ট কান্ট্রি বাংলাদেশ।

মেলার প্রবেশ ফি ৩০ টাকা, প্রবেশ কুপনের বিপরীতে র‍্যাফেল ড্র বিজয়ীদের জন্য থাকবে এয়ারলাইন্স টিকিটসহ বেড়ানোর আকর্ষণীয় গিফট ভাউচার। র‍্যাফেল ড্র বিজয়ীরা পাবেন বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের সৌজন্যে ঢাকা-টরেন্টো-ঢাকা রিটার্ন টিকিট, ঢাকা-ব্যাংকক-ঢাকা রিটার্ন টিকিট ও ঢাকা-দিল্লি-ঢাকা রিটার্ন টিকিট। এছাড়া প্রতিটি টিকিটেই থাকবে মেলার এন্টারটেইনমেন্ট পার্টনার ফ্যান্টাসি কিংডমে প্রবেশে ৫০ শতাংশ ছাড়।

এনজে

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়