গাইবান্ধায় মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

আগের সংবাদ

গৃহবধূকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর হত্যায় ১০ জনের যাবজ্জীবন

পরের সংবাদ

মদনে বউ-শাশুড়ির দ্বন্দ্বে শাশুড়ির মৃত্যু

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২২ , ৩:৩০ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২২ , ৫:৩৭ অপরাহ্ণ

নেত্রকোনার মদনে পারিবারিক ঝগড়া থামাতে এসে আহত শাশুড়ি মিনারা আক্তার (৫০) সোমবার রাতে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। মিনারা আক্তার রুদ্রশ্রী গ্রামের বাসিন্দা এলাল উদ্দিনের স্ত্রী।

এর আগে ওই ঘটনায় রবিবার ইটনা উপজেলার গজারিয়া গ্রামের মৃত আব্দুল জলিলের ছেলে শফিকুল ইসলাম (৬০) নামের একজন মসজিদের ইমাম নিহত হয়। নারীসহ আরো ছয়জন আহত রয়েছে।

রবিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) রাত ১০টার দিকে উপজেলা ফতেপুর ইউনিয়নের রুদ্রশ্রী গ্রামে এ ঘটনার সূত্রপাত হয়।

নিহত মিনারা আক্তারের লাশ ময়নাতদন্ত শেষে মঙ্গলবার বিকালে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। এছাড়াও আহত ইব্রাহীম (৮০), মোবারক হোসেন (২৫), মাসুম মিয়া (১২) অবস্থা আশঙ্কাজনক।

দুটি হত্যার ঘটনায় এলাকার সব শ্রেণি-পেশার লোকজনের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এরই প্রতিবাদে মঙ্গলবার ইমাম ওলামা পরিষদ ফতেপুর ইউনিয়ন শাখার উদ্যোগে রুদ্রশ্রী গ্রামে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। দোষীদের দ্রুত গ্রেফতার ও ফাসিঁর দাবি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন, ফতেপুর ইউপি চেয়ারম্যান সামিউল হায়দার সফি, মাওলানা মুফতি দেওয়ান মাছুম ইয়ার চৌধুরী, মাওলানা আব্দুল বাছির, মাওলানা আজিজুল হক, মাওলানা আহমদ নান, মুফতি হেলাল উদ্দিন, মুফতি মোজাম্মেল হক সালেহী, নিহত শফিকুল ইসলামের ছেলে আব্দুর রহমান প্রমুখ।

মদন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ ফেরদৌস আলম বলেন, পারিবারিক কলহের জেরে রুদ্রশ্রী গ্রামে দুইজন নিহত হয়েছে। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গৃহীত হবে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়