সৈয়দ শামসুল হকের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

আগের সংবাদ

শিক্ষা কার্যক্রমের নীতিমালা তৈরি করছে ইউজিসি

পরের সংবাদ

শারদীয় দুর্গোৎসব

কুমিল্লায় ৭৮৮ মণ্ডপ ঘিরে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২২ , ৮:৪৪ পূর্বাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২২ , ৮:৪৬ পূর্বাহ্ণ

আগামী ১ অক্টোবর থেকে শুরু হতে যাচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শারদীয় দুর্গোৎসব। কুমিল্লায় এবার ৭৮৮টি পূজামণ্ডপে চলছে দুর্গোৎসব। দক্ষ কারিগরদের নিপুণ হাতের ছোঁয়ায় দৃষ্টিনন্দন করে নির্মিত হয়েছে ব্যয়বহুল দেব-দেবীসহ দুর্গা প্রতিমা। তবে গত বছর নগরীর নানুয়া দীঘির পাড়ের একটি অস্থায়ী মণ্ডপে পবিত্র কোরআন রেখে অবমাননা ও এ নিয়ে কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সহিংসতার ঘটনার রেশ আজও কাটেনি। এতে এই উৎসবকে সামনে রেখে আতঙ্কও বিরাজ করছে জেলার সর্বত্র।

এদিকে গত বছরের মণ্ডপকাণ্ড ও সহিংসতার বিষয়টি মাথায় রেখে এবার জেলার প্রতিটি পূজামণ্ডপ ঘিরে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে নেয়া হচ্ছে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা। জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, এ বছর কুমিল্লা মহানগরসহ জেলার ১৭টি উপজেলায় ৭৮৮টি পূজামণ্ডপে শারদীয় দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হবে। এসব পূজামণ্ডপের মধ্যে রয়েছে- কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলা এলাকায় ৭২টি, সদর দক্ষিণে ৪৪টি, লালমাই ১৭টি, মনোহরগঞ্জে ১৩টি, লাকসামে ৩৫টি, নাঙ্গলকোটে ৯টি, চৌদ্দগ্রামে ২২টি, বরুড়ায় ৮৮টি, বুড়িচংয়ে ৪৩টি, ব্রাহ্মণপাড়ায় ১৮টি, দেবিদ্বারে ৮৭টি, চান্দিনায় ৭২টি, মুরাদনগরে ৮২টি, বাঙ্গরা ৬৬টি, দাউদকান্দিতে ৪৭টি, হোমনায় ৫১টি, তিতাসে ১৫টি ও মেঘনায় ৭টি।

সূত্র জানায়, গত বছর এ জেলায় পূজামণ্ডপ ছিল ৭৭৬টি। তবে গত বছর জেলার সর্বত্র শুরুর দিকে শান্তিপূর্ণভাবে পূজা উদযাপন হলেও ১৩ অক্টোবর মহাঅষ্টমির দিন ভোরে কুমিল্লা নগরীর নানুয়া দীঘির পাড়ের অস্থায়ী একটি মণ্ডপে পবিত্র কোরআন রেখে অবমাননার ঘটনা দেশজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি করে।

এ ঘটনায় কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সহিংসতার সৃষ্টি হয়। পবিত্র কোরআন অবমাননা ও পরবর্তীতে মন্দির ভাঙচুরসহ বিভিন্ন ঘটনায় জেলায় মোট ১২টি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে কোতোয়ালি মডেল থানায় ৮টি, সদর দক্ষিণ মডেল থানায় ২টি এবং দাউদকান্দি ও দেবিদ্বারে একটি করে মামলা হয়। এসব মামলায় গ্রেপ্তার হয় শতাধিক আসামি। মামলাগুলো এখনো সিআইডি, পিবিআই ও পুলিশের তদন্তাধীন আছে বলে জানা গেছে।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ কুমিল্লা জেলা শাখার সভাপতি নির্মল পাল জানান, এ বছর জেলার সবগুলো পূজামণ্ডপে শারদীয় দুর্গোৎসব সম্পন্ন করতে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। গত বছরের অনাকাক্সিক্ষত সহিংসতার ঘটনার যেন পুনরাবৃত্তি না ঘটে সেদিকে খেয়াল রেখে এবার শান্তিপূর্ণ পরিবেশে পূজা উৎসব সম্পন্ন করতে তিনি প্রশাসনসহ সবার সহযোগিতা কামনা করেন।

কুমিল্লা পুলিশ সুপার আবদুল মান্নান সাংবাদিকদের জানান, গত বছরের ঘটনা মাথায় রেখে জেলার প্রত্যেক উপজেলায় পূজামণ্ডপগুলোতে বাড়তি সতর্কতার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে এবং থাকছে সিসি ক্যামেরাও। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির ব্যত্যয় যেন না ঘটে সেজন্য সব প্রস্তুতি রাখা হয়েছে। এছাড়া পূজার সময় মোবাইল কোর্ট পরিচালনাসহ র‌্যাব-পুলিশের টহল ও আনসার মোতায়েনের মাধ্যমে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ উৎসব শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করতে জেলা ও পুলিশ প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সবার সমন্বয়ে প্রতিটি মণ্ডপ ঘিরে সতর্কতামূলক প্রহরা বসানো হবে বলেও জানান তিনি।

এমকে

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়