ভারতের জয়ের রাতে পাকিস্তানের হার

আগের সংবাদ

পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করতে পারে রাশিয়া!

পরের সংবাদ

পরিমিত ডিজাইনে হাল ফ্যাশন

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২ , ১২:০৫ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২ , ১২:০৬ অপরাহ্ণ

উৎসবকে কেন্দ্র করে নির্দিষ্ট কিছু মোটিফ ব্যবহারের চল এখন কমেছে। বছরের অন্য সময়েও এসব পোশাকের ব্যবহার উপযোগিতা বজায় রাখতে মোটিফ ব্যবহারে ভাবনার ছাপ বেশ স্পষ্ট। নির্দিষ্ট কিছু মোটিফে যেমন আটকে থাকেনি, তেমনি অনেক বেশি মোটিফ ব্যবহার করে পোশাককে জবরজং করে তোলা হয়নি।

পোশাকে পরিমিত ডিজাইন হালের ফ্যাশন। ফ্যাশন ব্র্যান্ডগুলোর এবারের পূজা সংগ্রহে নকশার এই মাধ্যমগুলো চমৎকারভাবে ব্যবহার করা হয়েছে। নকশা ফুটিয়ে তুলতে একাধিক মাধ্যম ব্যবহার করা হয়েছে। প্রাধান্য পেয়েছে পাশ্চাত্য কাটের ফিউশন ও আরামদায়ক পোশাকও। মূলত: করোনা মহামারির সময় থেকে জনপ্রিয়তা পেতে শুরু করে এই ফ্যাশন। কারণ, সে সময় থেকে বেশিসংখ্যক পোশাক ব্যবহার না করাকেই গুরুত্ব দেওয়া হয়। সব জায়গাতেই পরা যায় এমন পোশাকের চাহিদা বৃদ্ধি পায়। আবার যে পোশাকটি অনেকগুলো স্টাইলে পরা যায়, সে ধরনের পোশাকের ধারা ফ্যাশন ট্রেন্ডে জায়গা করে নিতে শুরু করে।
এধরনের ফ্যাশনের আলাদা দিক হলো পোশাকের উপকরণ ও কাটিং। এই পোশাকের উপকরণ আরামদায়ক কিন্তু কাটিং হয় স্টাইলিশ। এ ধরনের পোশাক হতে হবে খুবই হালকা ও ঢিলেঢালা। ওজনে হবে হালকা, যাতে চলাফেরায় পাওয়া যায় আরাম। তাই প্রতিদিনের পোশাক ও ভ্রমণ ফ্যাশনে জনপ্রিয়তা পেয়েছে ক্যাজুয়াল কজি ফ্যাশন। এতে পোশাকে থাকে না বিশেষ কোনো অর্নামেন্টেশন। আরামের জন্য অলংকরণে ব্যবহার করা হয় হালকা এমব্রয়ডারি, হাতের সেলাই বা প্রিন্ট। পোশাকের জমিন হয় যথারীতি নরম ও পাতলা।

এছাড়াও ট্রেন্ডি তবে ক্যাজুয়াল কমফোর্টেবল ওয়্যার মানে তা হবে ফিটিং বা আঁটসাঁট পোশাকের বিপরীত। তবে এখন যেহেতু পাশ্চাত্য পোশাক ঘরে-বাইরে দুই জায়গাতেই সমান জনপ্রিয়; তাই পোশাকগুলোর নেক, স্লিভ, লেংথ ও কাটিং এখন বেশি গুরুত্ব পায়।

ফরমাল লুকের তুলনায় তরুণীদের কাছে ক্যাজুয়াল লুকের গ্রহণযোগ্যতা বেড়েছে। অনেকে আবার বোহেমিয়ান স্টাইলকে কিছুটা ফিউশনের মাধ্যমে কজি লুক তৈরি করছে। এ ছাড়া ওভারসাইজ শার্ট, সিঙ্গেল কুর্র্তি, টপস, পালাজ্জো, ব্যাগি প্যান্ট, ক্রপটপ, জার্সি টপ, টার্টলনেক টপও জায়গা করে নিয়েছে কজি ফ্যাশনে।

ক্যাজুয়াল কমফোর্টেবল ফ্যাশনের আন্তর্জাতিক ট্রেন্ডের সঙ্গে পার্থক্য রয়েছে দেশি কজি ফ্যাশনের। আবহাওয়া, শারীরিক গঠন ও পোশাক নির্বাচনের ধরন আলাদা হওয়ায় মূলত এই পার্থক্য তৈরি হয়েছে। তবে সবকিছু ছাপিয়ে ক্যাজুয়াল এসব ফ্যাশনের প্রধান শর্ত হচ্ছে আরাম। তাই অনেকেই একে শুধু ভ্রমণ ফ্যাশন মনে করেন। তবে এধরনের ফ্যাশনকে শুধু ভ্রমণ ফ্যাশন বলা যাবে না। ভ্রমণ ছাড়াও ঘরেবাইরে সব জায়গাতেই পরা যায় আরামদায়ক এবং একই সঙ্গে স্টাইলিশ এই কজি পোশাক।

এটি থাকতে পারে প্রতিদিনের ফ্যাশনেও। হয়ে উঠতে পারে উৎসবে পরিধেয় বর্নিল ট্রেন্ড হিসাবেও।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়